আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১২-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

শারীরিক কারণে মুখের সমস্যা

ডা. মো. ফারুক হোসেন
| সুস্থ থাকুন

মুখ ও জিহ্বার আলসার যদি ফলিক এসিডের অভাবজনিত কারণে হয় তবে সে ক্ষেত্রে ফলিক এসিড প্রদান না করলে কোনোভাবেই মুখের আলসার ভালো হবে না। কোনো কোনো মিনারেলসের অভাবে মুখে বারবার অ্যাপথাস আলসার হতে পারে

সোরিয়াসিস রোগীদের ক্ষেত্রে জিওগ্রাফিক টাং বা মানচিত্র জিহ্বা বেশি দেখা যায়। যাদের ফিসারড টাং বা জিহ্বা রয়েছে তাদের ক্ষেত্রেও জিওগ্রাফিক টাং দেখা যায়। এক কথায় বলতে গেলে যারা সোরিয়াসিস, ডায়াবেটিস, একজিমা, এনিমিয়া বা মানসিক চাপজনিত সমস্যায় আক্রান্ত তাদের ক্ষেত্রে জিওগ্রাফিক টাং পরিলক্ষিত হতে পারে। তবে সব রোগীর ক্ষেত্রে তা হয় না। মৃগী রোগীর চিকিৎসার পাশর্^প্রতিক্রিয়া হিসেবে জিনজাইভাল হাইপারপ্লাসিয়া হতে পারে। মেগালোব্লাস্টিক এনিমিয়া হতে পারে। বারবার অ্যাপথাস আলসার হয়ে রোগীর খাদ্যদ্রব্য গ্রহণে ব্যাঘাত সৃষ্টি হতে পারে। দাঁত দেরিতে উঠতে পারে। দাঁত আকৃতিতে ছোট হতে পারে। ফলিক এসিডের অভাবে শরীরে দুর্বলতা, ধূসর বর্ণের চুল, মুখের আলসার এবং জিহ্বায় ফোলাভাব দেখা যেতে পারে। মুখ ও জিহ্বার আলসার যদি ফলিক এসিডের অভাবজনিত কারণে হয় তবে সে ক্ষেত্রে ফলিক এসিড প্রদান না করলে কোনোভাবেই মুখের আলসার ভালো হবে না। কোনো কোনো মিনারেলসের অভাবে মুখে বারবার অ্যাপথাস আলসার হতে পারে। আবার বিশেষ কিছু ভিটামিনের অভাবজনিত সমস্যায়ও বারবার মুখের আলসার বা ঘা দেখা যেতে পারে। মানবদেহে লোহিত রক্তকণিকা চার মাস বেঁচে থাকে। তাই ফের লোহিত রক্তকণিকা তৈরিতে শরীরে প্রয়োজন হয় আয়রন, ভিটামিন বি১২ এবং ফলিক এসিড বা ভিটামিন বি৯। এর কোনো অভাব হলে শরীরে রক্তস্বল্পতা দেখা দেবে এবং মুখে আলসার বা ঘা দেখা দিতে পারে। আলসারেটিভ কোলাইটিস রোগীদের চেয়ে ক্রনস ডিজিজের রোগীদের মুখের আলসার বেশি দেখা যায়। কারণ আলসারেটিভ কোলাইটিস কোলনে অর্থাৎ বৃহদন্ত্রে সীমাবদ্ধ থাকে। আর ক্রনস ডিজিজের ক্ষেত্রে পরিপাকতন্ত্রের মুখ, পাকস্থলী, অন্ত্র ও পায়ুপথসহ যে কোনো অংশ আক্রান্ত হতে পারে। শুধু ভুল মাউথওয়াশ ব্যবহারের কারণেও বারবার মুখের আলসার হতে পারে। আপনার মাউথওয়াশ প্রয়োজন আছে কিনা বা প্রয়োজন থাকলে কোনটি আপনার জন্য প্রযোজ্য তা অবশ্যই জেনে নিতে হবে। হরমোনের পরিবর্তনের কারণে মেয়েদের মাসিকের সময় মুখে আলসার ও জ্বালাপোড়া দেখা যেতে পারে। আবার মাসিক বন্ধ হয়ে গেলেও মোনোপজের সময় মুখে আলসার বা ক্ষত দেখা দিতে পারে। এ সময় কারও কারও মেজাজ খিটখিটে থাকে। মারাত্মক ধরনের ভিটামিন বি’র অভাবে এট্রপিক গ্লসাইটিস হতে পারে। এট্রপিক গ্লসাইটিসের ক্ষেত্রে জিহ্বার টেস্ট বাডের ডিজেনারেশন হয়ে থাকে। ফলে জিহ্বার স্বাদ ঠিকভাবে পাওয়া যায় না। আমাদের দেশে হারপিস ভাইরাসের কারণে ঠোঁট আক্রান্ত হতে দেখা যায়, যা হারপিস ল্যাবিয়ালিস নামে পরিচিত। বারবার হারপিস সিমপ্লেক্স ভাইরাসের কারণে ঠোঁটে ফুসকুড়ি হতে পারে এবং প্রদাহ দেখা দিতে পারে যা চিলাইটিস নামে পরিচিত। তবে সিফিলিসের কারণেও ঠোঁটে ঘা বা আলসার দেখা দিতে পারে। প্রজনন অঙ্গের বাইরে পুরুষদের উপরের ঠোঁটে এবং মহিলাদের নিচের ঠোঁটে সবচেয়ে বেশি সিফিলিসের লক্ষণ দেখা যায়। ফলিক এসিডের অভাব হলে ঠোঁটকাটা ও তালুকাটা শিশু জন্মগ্রহণ করতে পারে। গর্ভাবস্থায় কিছু ওষুধ সেবনের কারণে ঠোঁটকাটা ও তালুকাটায় প্রভাব ফেলতে পারে। সেগুলো হলোÑ (ক) মিথোট্রিক্সেট এমন একটি ওষুধ যা ব্যবহৃত হয় ক্যান্সার, আর্থ্রাইটিস এবং সোরিয়াসিস রোগের চিকিৎসায়। (খ) আইসোট্রিটিনোনিন একটি ওষুধ যা একনির চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। (গ) এন্টি সিজার মেডিসিন।
তাই আপনার মুখের আলসারসহ মুখের নানাবিধ রোগের চিকিৎসার আগে অবশ্যই একবার হলেও দেখে নিতে হবে আপনার শরীরে অন্য কোনো রোগ আছে কিনা?

ডা. মো. ফারুক হোসেন
মুখ ও দন্তরোগ বিশেষজ্ঞ
[email protected]