আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৩-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

শ্রীলঙ্কাকে হারাতে সেরাটাই খেলতে হবে : মাহমুদউল্লাহ

স্পোর্টস ডেস্ক
| খেলা

সাম্প্রতিক সময়ে ফর্মহীনতায় ভুগছে শ্রীলঙ্কা। এর মধ্যে আবার দলটিতে হানা দিয়েছে চোট। এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে মাঠে নামার আগে যা বাংলাদেশকে কিছুটা হলেও দিচ্ছে সুবিধা। কিন্তু তেমনটা মোটেও ভাবছেন না মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। উল্টো সতীর্থদের তিনি স্মরণ করে দেনÑ সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের হারাতে নিজেদের সেরাটা দিতে হবে।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গেল মার্চে নিদাহাস ট্রফিতে দুর্দান্ত খেলেছিল বাংলাদেশ। চন্দিকা হাথুরুসিংহের শিষ্যদের দুটিই ম্যাচেই মাহমুদউল্লাহর বীরত্বে জিতে ফাইনালে উঠে টাইগাররা। তবে ওই টুর্নামেন্ট ছিল টি-টোয়েন্টি সংস্করণের। কিন্তু এবারের এশিয়া কাপ হবে ওয়ানডে ফরম্যাটে। তারপর আগের জয় থেকেই শনিবারের ম্যাচে প্রেরণা পাচ্ছেন রিয়াদ। 
দুবাইয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের লড়াই দিয়েই শুরু হবে এবারের এশিয়া কাপ। এ ম্যাচ ঘিরেই এখন নিজের রণকৌশল সাজাচ্ছে টিম টাইগার্স। মঙ্গলবার আবার আমিরাতে অনুশীলনের ফাঁকে মাহমুদউল্লাহ বললেন, লঙ্কানদের হারাতে খেলতে হবে নিজেদের সেরাটা, ‘কয়েক মাস আগে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ভালো কিছু স্মৃতি আছে আমাদের। তবে শ্রীলঙ্কা খুব ভালো দল। বেশ ভালো ক্রিকেট খেলছে ওরা। ওদের হারাতে আমাদের খেলতে হবে নিজেদের সেরাটা। দেশে আমাদের প্রস্তুতি খুব ভালো হয়েছে। আশা করি, আমরা পারব।’ এমনিতেই দুবাইয়ের আবহাওয়া গরম। নিজেদের মানিয়ে নিতে তাই বেশ আগেভাগেই সেখানে গিয়েছে বাংলাদেশ। মাহমুদউল্লাহর আশা, দ্রুতই কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নেবে দল, ‘এ মুহূর্তে এখানে (দুবাইয়ে) বেশ গরম। তবে পেশাদার ক্রিকেটার হিসেবে কন্ডিশনের সঙ্গে মানিয়ে নিতে হবে আমাদের। পরিস্থিতি যেমনই হোক, সেটিকে আলিঙ্গন করে নিতে হবে ইতিবাচকভাবে।’
সংযুক্ত আরব আমিরাতে অনেক বাংলাদেশি বসবাস করেন। তাই মাহমুদউল্লাহ আশা করছেন, এখানেও দেশের মতো সমর্থন পাবেন। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আশা করি এখানে বেশ ভালো দর্শক সমর্থন পাব আমরা, কারণ অনেক বাংলাদেশি থাকেন এখানে। আশা করি, তারা মাঠে আসবেন এবং আমাদের সমর্থন করবেন। আমরাও চাইব তাদের জন্য ভালো কিছু করতে।’এশিয়া কাপের গেল তিন আসর বসেছিল বাংলাদেশে। তার মধ্যে দুটিতে ফাইনালে খেলেছিলেন টাইগাররা। কিন্তু একবার শিরোপা ছুঁতে পারেননি সাকিব আল হাসান-মুশফিকুর রহিমরা। তবে এবার অতীত ভুলে নতুন স্বপ্নে বিভোর স্টিভ রোডসের শিষ্যরা।