আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৩-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

সাংবাদিকদের প্রতিমন্ত্রী

শ্রম আইনের ৪৯টি সংশোধনী শ্রমিকবান্ধব

নিজস্ব প্রতিবেদক
| শেষ পাতা

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, আহত শ্রমিকদের ক্ষতিপূরণের জন্য দেশের কারখানাগুলোয় ইনজুরি স্কিম চালু করতে মালিকরা এখনও প্রস্তুত নন। তিনি বলেন, সংশোধিত শ্রম আইনে শ্রমিকবান্ধব ৪৯টি সংশোধনী আসছে; যা মালিক, শ্রমিক ও সরকারের অংশগ্রহণে গঠিত ত্রিপক্ষীয় পরামর্শক পরিষদের সর্বসম্মত অভিমতের ভিত্তিতে হচ্ছে। বুধবার সচিবালয়ে বাংলাদেশে সফররত আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

চার সদস্যের এ সফরকারী দলের নেতৃত্ব দেন সংস্থার পরিচালক এনি ডারউইন। প্রতিমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের কলকারখানায় কর্মরত শ্রমিকদের ক্ষেত্রে দুর্ঘটনা-পরবর্তী স্বাস্থ্য ও আর্থিক ঝুঁকি দূর করতে ইনজুরি স্কিম চালুর বিষয়ে সহায়তার প্রস্তাব দিয়েছে আইএলও। তাদের বলেছি, এটি ভালো কনসেপ্ট। দুর্ঘটনা হলে শ্রমিক যদি অক্ষম হয়ে যায় সে কীভাবে চলবে? তিনি বলেন, তবে আমাদের সামাজিক ও আর্থিক প্রেক্ষাপট এ ইনজুরি স্কিম চালুর জন্য এখনও উপযুক্ত নয়। আমাদের যারা কলকারখানা মালিক রয়েছেন, তারাও মানসিকভাবে এ প্রস্তাব শুনতে প্রস্তুত নন। মুজিবুল হক বলেন, আমি তাদের কাছ থেকে এ সংক্রান্ত সুস্পষ্ট প্রস্তাব চেয়েছি। কাগজপত্র চেয়েছি। আমরা এসব নিয়ে কাজ করব। গবেষণা করব। স্টেকহোল্ডারদের (শ্রমিক ও মালিক) সঙ্গে কথা বলব। তাদের মানসিকভাবে প্রস্তুত করব। এরপর দেখা যাবে এটি কীভাবে শুরু করা যায়। সামনে নির্বাচন। কিছুদিন পরই নির্বাচনকালীন সরকার আসছে। তাই আপাতত এটি চালু হওয়ার সম্ভাবনা নেই।
শ্রম আইনে ৪৯টি সংশোধনী আনা হচ্ছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, যার সবই শ্রমিকের পক্ষে। ত্রিপক্ষীয় পরামর্শ পরিষদের ঐকমত্যের ভিত্তিতে এসব সংশোধনী করা হচ্ছে। আলাদা আইনে ইপিজেড পরিচালিত হয়। ওই আইনে শ্রমিকদের জন্য ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন গঠনের বিধান রাখা হয়েছে। শুধু নামে আলাদা শ্রম আইন অনুসরণ করে বাকিগুলো করা হয়েছে। ট্রেড ইউনিয়নের মতোই তারা কাজ করতে পারবে। ট্রেড ইউনিয়নই প্রায়, নামটা শুধু আলাদা। জাতীয় সংসদের অক্টোবরের অধিবেশনে তা পাস হবে। এ আইনকে মূল ধরেই ইপিজেড ওয়ার্কার্স ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন আইন করা হচ্ছে বলেও তিনি জানান।