আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৩-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

নওগাঁর ৯৯ ইউনিয়নে ডিজিটাল সেন্টার

আলোকিত ডেস্ক
| সুসংবাদ প্রতিদিন

নওগাঁর ১১ উপজেলার ৯৯টি ইউনিয়নে ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে হাজার হাজার গ্রামীণ জনগোষ্ঠী নানা ধরনের ডিজিটাল সেবা গ্রহণ করে উপকৃত হচ্ছে। অন্যদিকে এসব ডিজিটাল সেন্টারের উদ্যোক্তারা হাজার হাজার টাকা আয় করে স্বাবলম্বী হচ্ছেন। ডিজিটাল সেন্টারগুলোয় সরকারের সম্পূর্ণ লজিস্টিক সাপোর্ট গ্রহণ করে কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে এ আয় করে তাদের সংসার ভালোভাবেই চলছে। খবর বাসসের।

গ্রামীণ জনগোষ্ঠী ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারগুলো থেকে হজযাত্রীদের নিবন্ধন ফরম পূরণ, জমির নামজারি, বৈবাহিক/ অবৈবাহিক সনদের আবেদন, প্রিন্টিং, ফটোকপি, ফটো তোলা, বিদেশে আপনজনদের সঙ্গে কথা বলা, পাসপোর্ট প্রাপ্তির আবেদন ফরম পূরণ করা, বিদ্যুৎ বিল পরিশোধ, টাকা-পয়সা লেনদেন, কৃষি ও ফসলি ঋণ গ্রহণের আবেদন, ডিজিটাল রেকর্ড রুম, বিভিন্ন সরকারি অফিসের সেবা গ্রহণ, চাকরির আবেদন করা, ছাত্রছাত্রীদের ভর্তির আবেদন করা, ডাক/কুরিয়ার সার্ভিস, তথ্যসেবা, ই-কমার্স, ই-টেন্ডার, কম্পিউটার প্রশিক্ষণসহ শতাধিক সেবা এসব ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার থেকে জনসাধারণ পাচ্ছেন। প্রতিটি ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে একজন মহিলা ও একজন পুরুষ উদ্যোক্তা জনসাধারণকে এসব সেবা প্রদানের মাধ্যমে আয় করে জীবিকা নির্বাহ করছেন।

নওগাঁর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি মো. কামরুজ্জামান জানিয়েছেন, গত আট মাসে জেলায় ১১টি উপজেলার ৯৯ ইউনিয়নে সর্বমোট ২ লাখ ৯ হাজার ১৫৬ নাগরিক এসব ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার থেকে বিভিন্ন সেবা গ্রহণ করেছেন। এসব সেবা দিয়ে উদ্যোক্তারা আয় করেছেন ৫৭ লাখ ৭১ হাজার ৬৯ টাকা। জানুয়ারি থেকে আগস্ট পর্যন্ত এ আয় করা সম্ভব হয়েছে।
মাসভিত্তিক এসব ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে সেবাগ্রহীতা ও আর্থিক আয়ের পরিমাণ হচ্ছে জানুয়ারি মাসে মোট ২৪ হাজার ৩৮২ সেবাগ্রহীতার কাছ থেকে আয় হয়েছে ৭ লাখ ১৬ হাজার ৭০৪ টাকা। ফেব্রুয়ারি মাসে ২৫ হাজার ৫২৩ জনকে সেবা দিয়ে উদ্যোক্তাদের আয় হয়েছে ৬ লাখ ৫৯ হাজার ৬১৭ টাকা। মার্চ মাসে মোট ২৭ হাজার তিনজনকে বিভিন্ন সেবা দিয়ে উদ্যোক্তারা আয় করেছেন ৭ লাখ ২১ হাজার ৫৪৭ টাকা। এপ্রিল মাসে ২৬ হাজার ৩৭১ জনকে বিভিন্ন সেবা প্রদান করে উদ্যোক্তাদের আয় হয়েছে ৭ লাখ ১ হাজার ১ টাকা। মে মাসে জেলায় ২৬ হাজার ৫৭৪ জনকে বিভিন্ন ডিজিটাল সেবা প্রদান করে উদ্যোক্তাদের আয় হয়েছে ৭ লাখ ২০ হাজার ২৯৫ টাকা। জুন মাসে মোট ২৭ হাজার ৯১৮ নাগরিককে সেবা দিয়ে আয় হয়েছে মোট ৭ লাখ ২৮ হাজার ২০৯ টাকা। জুলাই মাসে জেলার ৯৯টি ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে মোট ২৭ হাজার ৪৯৮ জনকে সেবা দিয়ে মোট আয় হয়েছে ৭ লাখ ৫৭ হাজার ৭৩৯ টাকা এবং আগস্ট মাসে মোট ২৩ হাজার ৮৮৭ নাগরিককে সেবা প্রদান করে উদ্যোক্তাদের আয় হয়েছে ৭ লাখ ৬৫ হাজার ৯৫৭ টাকা। নওগাঁ জেলায় কর্মরত অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক শিক্ষা ও আইসিটি মো. কামরুজ্জামান বলেছেন, ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারগুলো সরকারের যে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার ভাবনা; তা যথার্থভাবেই নিশ্চিত করছে। গ্রামীণ জনগণকে ডিজিটালাইজড প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত করে তাদের জীবনমান উন্নয়নে এসব ডিজিটাল সেন্টারের ভূমিকা অপরিসীম।