আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৩-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

মন্ত্রিসভা কমিটিতে অনুমোদন

আমদানি হচ্ছে ৩০ হাজার শটগান

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জন্য ৩০ হাজার ১২ বোর শটগান এবং ৩০ লাখ কার্তুজ আমদানি করছে সরকার। এগুলো আনা হবে তিনটি দেশÑ ইতালি, তুরস্ক ও যুক্তরাজ্য থেকে। সরকারের কাছে এগুলো সরবরাহ করবে মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি। এছাড়া বিভিন্ন দেশের সঙ্গে চুক্তির আওতায় ৭৫ হাজার টন সার আমদানিসহ ১১টি 

ক্রয়প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয়সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। বুধবার সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ কক্ষে কমিটির সভাপতি অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে এসব প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।
৩০ হাজার শটগান আমদানি করা হচ্ছে জানিয়ে অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, বাংলাদেশ আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জন্য ৩০ হাজার ১২ বোরের শটগান এবং শটগানের জন্য ৩০ লাখ কার্তুজ ক্রয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের একটি প্রস্তাবের অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। শটগানের জন্য ১০৯ কোটি ৪ লাখ টাকা এবং কার্তুজ ক্রয়ে ব্যয় হবে ৩৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। এসব শটগান ও কার্তুজ ইতালি, তুরস্ক ও যুক্তরাজ্য থেকে সংগ্রহ করে জননিরাপত্তা বিভাগের কাছে সরবরাহ করবে সরকারি প্রতিষ্ঠান মেশিন টুলস ফ্যাক্টরি। তিনি আরও বলেন, বিভিন্ন সময় আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর জন্য এসব অস্ত্র কেনা হয়। তারই ধারবাহিকতায় এবারও কেনা হচ্ছে।
অতিরিক্ত সচিব বলেন, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে চুক্তির মাধ্যমে কাতার কেমিকেল অ্যান্ড পেট্রো কেমিকেল মার্কেটিং অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি (মুনতাজাত) থেকে প্রথম লটে ২৫ হাজার টন ব্যাগড প্রিল্ড ইউরিয়া সার আমদানির ভুতাপেক্ষ অনুমোদনের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। এজন্য ব্যয় হবে ৬৯ কোটি ৬১ লাখ টাকা। তিনি বলেন, অপর একটি কোটেশন ইনকোয়েরির বিপরীতে ২৫ হাজার টন ব্যাগড প্রিল্ড ইউরিয়া সার মংলা বন্দরের মাধ্যমে আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ৭২ কোটি ৫২ লাখ টাকা। কোটেশন ইনকোয়েরির বিপরীতে অপর একটি ক্রয় প্রস্তাবে ২৫ হাজার টন ব্যাগড গ্রানুলার ইউরিয়া সার চট্টগ্রাম বন্দরের মাধ্যমে আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ৬৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা।
মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ২ লাখ ৪ হাজার ৯৯০টি বিদ্যুতের খুঁটি কেনার প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে ক্রয় কমিটি। বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের একটি প্রকল্পের আওতায় এসব খুঁটি আমদানি করা হচ্ছে। এতে ব্যয় হবে ৪১৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকা।
অতিরিক্ত সচিব জানান, কনটেক কনস্ট্রাকশন লিমিটেড ১০৬ কোটি ৪৪ লাখ টাকায়, পোলস অ্যান্ড কংক্রিট লিমিটেড ১০৬ কোটি ৪০ লাখ টাকায়, ক্যাসেল কনস্ট্রাকশন কোম্পানি ১০৬ কোটি ৩৫ লাখ টাকায় এবং বাংলাদেশ মেশিনারিজ ফ্যাক্টরি ১০০ কোটি ৬৩ লাখ টাকায় চারটি লটে এসব খুঁটি সরবরাহ করবে বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, গণপূর্ত অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘ঢাকাস্থ মিরপুরে সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য ২৮৮টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় সব সুযোগ-সুবিধাসহ ১ হাজার ২৫০ বর্গফুটের তিনটি ১৩ তলা ভবন নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এতে সরকারের ব্যয় হবে ১২৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।
বিশ্বব্যাংকের ঋণ সহায়তায় বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন কোস্টাল এমব্যাংকমেন্ট ইমপ্রুভমেন্ট প্রজেক্টের দীর্ঘমেয়াদি পর্যবেক্ষণ এবং গবেষণা কাজে পরামর্শক সেবা ক্রয়ের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। এতে ব্যয় হবে ১২৮ কোটি ৬০ লাখ টাকা। অতিরিক্ত সচিব বলেন, চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (চউক) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘এশিয়ান ইউনিভার্সিটি ফর উইমেনের বাহিঃসীমানা দিয়ে লুপ রোড নির্মাণ ও ঢাকা ট্রাঙ্ক রোড হতে বায়েজিদ বোস্তামী পর্যন্ত সংযোগ সড়ক নির্মাণ’ প্রকল্পের ক্রয়প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে কমিটি। এতে ব্যয় হবে ১১০ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। এছাড়া কমিটি আরও কয়েকটি ক্রয়প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে।