আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৫-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকা

ঘোষণা প্রত্যাখ্যান গার্মেন্ট শ্রমিক সংগঠনগুলোর

নিজস্ব প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

গার্মেন্ট শ্রমিকের মজুরি ৮ হাজার টাকা প্রত্যাখ্যান করে শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র আয়োজিত সভায় বক্তব্য রাখেন সিপিবি সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম -আলোকিত বাংলাদেশ

গার্মেন্ট শ্রমিকদের ন্যূনতম মাসিক মজুরি ৮ হাজার টাকা নির্ধারণ অন্যায্য ও প্রহসনমূলক দাবি করে তা প্রত্যাখ্যান করেছে বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন। শুক্রবার রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে সরকার ঘোষিত এ সর্বনিম্ন মজুরিকে প্রত্যাখ্যান করেন শ্রমিকরা।

শ্রমিকদের দাবি, মজুরি নির্ধারণের এ সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করে রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের মজুরির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নিম্নতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা ঘোষণা করতে হবে।
গার্মেন্ট ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের ব্যানারে আয়োজিত সমাবেশে বাংলাদেশ কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, ভিক্ষা চাইতে আসিনি, মেহনতি মানুষের শ্রমের মজুরি চাইতে রাস্তায় এসেছি। শ্রমিকের দাবি ন্যূনতম ১৮ হাজার টাকা মেনে নিতে হবে। নইলে আগামী নির্বাচনে শ্রমিকরা আপনাকে ক্ষমতা থেকে নামিয়ে দেবে। তিনি বলেন, সুইপারের বেতন ১৭ হাজার টাকা অথচ পোশাক শ্রমিকদের বেতন ৮ হাজার টাকা এটা মানা যায় না। একই সময় গার্মেন্ট শ্রমিক অধিকার আন্দোলন আয়োজিত সমাবেশে শ্রমিকনেত্রী মোশরেফা মিশু বলেন, দুই বছর আগে ১৬ হাজার টাকা শ্রমিকের মজুরির প্রস্তাব করা হয়েছে। দুই বছরে সব পণ্যের দাম বেড়েছে অথচ শ্রমিকের মজুরি করা হলো ৮ হাজার টাকা। 
এদিকে নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, গার্মেন্ট শ্রমিকদের নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকার ঘোষণা প্রত্যাখ্যান এবং মজুরি পুনর্বিবেচনা করে রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের মজুরির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে নিম্নতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা ঘোষণার দাবিতে গার্মেন্ট শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ ও শহরে মিছিল করা হয়েছে। শুক্রবার শহরের ২নং রেলগেটে গার্মেন্ট শ্রমিক ফ্রন্ট নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি সেলিম মাহমুদের সভাপতিত্বে এ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়। 
বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাসদ নারায়ণগঞ্জ জেলার সমন্বয়ক নিখিল দাস, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্টের নারায়ণগঞ্জ জেলার সভাপতি আবু নাঈম খান বিপ্লব, গার্মেন্ট শ্রমিক ফ্রন্টের নারায়ণগঞ্জ জেলার সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম গোলক, সহ-সভাপতি সাইফুল ইসলাম শরীফ, গাবতলী পুলিশ শাখার সাধারণ সম্পাদক হাসনাত কবীর, রূপগঞ্জ উপজেলার সভাপতি মোঃ সোহেল, সিদ্ধিরগঞ্জ থানার সভাপতি তৌহিদুল ইসলাম সুজন, বিসিক শাখার সাধারণ সম্পাদক আবু সাঈদ সাইদুল, কাঁচপুর শিল্পাঞ্চল শাখার আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমান। 
সমাবেশে নেতারা বলেন, গার্মেন্ট শ্রমিকদের নতুন মজুরি কাঠামো নির্ধারণের জন্য গঠিত মজুরি বোর্ডের সুপারিশে সরকার বৃহস্পতিবার গার্মেন্ট শ্রমিকদের নিম্নতম মজুরি ৮ হাজার টাকা ঘোষণা করেছে। অথচ গার্মেন্ট শ্রমিক ফ্রন্টসহ স্কপভুক্ত গার্মেন্ট শ্রমিক সংগঠনগুলোর জোটের (জি-স্কপ) নেতৃত্বে গার্মেন্ট শ্রমিকরা নিম্নতম মজুরি ১৮ হাজার টাকা নির্ধারণের দাবিতে দীর্ঘদিন আন্দোলন করছেন। সরকার ২ জুলাই রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের জন্য নিম্নতম মজুরি ঘোষণা করে, যা ২০১৫ সাল থেকে কার্যকর হবে বলে সরকার সিদ্ধান্ত দেয়। ৩ বছরের ইনক্রিমেন্টসহ রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের এ মজুরি দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজার ৮১২ টাকা। অর্থাৎ সরকারের মানদ-েও এটা প্রমাণিত যে একজন শ্রমিকের মানবিক জীবন যাপনের জন্য ন্যূনতম ১৮ হাজার টাকা প্রয়োজন। কিন্তু সরকার মালিকদের চাপের কাছে নতি স্বীকার করে শ্রমিকদের দাবির সঙ্গে প্রহসনমূলক মজুরি ঘোষণা করেছে। সরকার ৮ হাজার টাকার যে মজুরি ঘোষণা করেছে তার মধ্যে মূল মজুরি ৪ হাজার ১০০ টাকা। ২০১৩ সালে গার্মেন্ট শ্রমিকদের জন্য ঘোষিত নিম্নতম মূল মজুরি ৩০০০ টাকা ৫ শতাংশ হারে বাৎসরিক বৃদ্ধির প্রেক্ষিতে ৫ বছর পর বিদ্যমান মূল মজুরি ৩৮২৮ টাকা। অর্থাৎ নতুন মজুরি ঘোষণায় শ্রমিকদের মূল মজুরি মাত্র ২৭২ টাকা বৃদ্ধি করা হয়েছে, যা প্রমাণ করে মজুরি বোর্ড শ্রম আইন ‘২০০৬-এর ১৪১নং ধারায় উল্লেখিত মানদ- কিংবা আইএলও কনভেনশন ১৩১-এর মজুরির মাপকাঠিকে কোনো মূল্য দেয়নি। মজুরি বোর্ড মানদ- বিচারের পরিবর্তে দর কষাকষির স্থান হিসেবে ব্যবহৃত হয়েছে, যা আইন সম্মত নয়। দর কষাকষির ক্ষেত্রে সরকার মালিকদের প্রতি সহানুভূতিশীল আচরণ করে শ্রমিকদের বঞ্চিত করেছে। আর সরকার, এ ঘোষণার মাধ্যমে সমাজে বৈষম্য বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করছে। 
নেতারা মজুরির এ অন্যায্য ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে বলেন, শ্রমিকরা ২০১০ সালে ৮ হাজার টাকা নিম্নতম মজুরি ঘোষণার দাবি করেছিলেন। অর্থাৎ সরকার লাখ লাখ শ্রমিককে ৮ বছরের রাষ্ট্রীয় প্রবৃদ্ধির সুবিধা থেকে বঞ্চিত করে অল্প সংখ্যক মালিকের সম্পদের প্রবৃদ্ধিকে আরও ত্বরান্বিত করতে চায়। নেতারা ঘোষিত মজুরি পুনর্বিবেচনার মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকদের মজুরির সঙ্গে সঙ্গতি রেখে গার্মেন্ট শ্রমিকদের জন্য নিম্নতম ১৮ হাজার টাকা ভিত্তি ধরে মজুরি কাঠামো ঘোষণা করার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানান। নেতারা আদমজী ইপিজেডে অবস্থিত অবৈধভাবে বন্ধ বেকা গার্মেন্ট চালু ও শ্রমিকদের ১২ দফা মেনে নেয়ারও আহ্বান জানান।
এদিকে গার্মেন্ট শ্রমিকদের মজুরি ৮ হাজার টাকার ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে তা পুনর্বিবেচনায় ১৮ হাজার টাকা করা ও নিউ টেক্স এশিয়া গার্মেন্ট শ্রমিকদের সংকট সমাধানের দাবিতে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের (জিটিইউসি) উদ্যোগে বিকালে নারায়ণগঞ্জ প্রেসক্লাবের সামনে শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি এমএ শাহীন। বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক জলি তালুকদার, কেন্দ্রীয় নেতা দুলাল সাহা, বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সভাপতি আবদুল হাই শরীফ, সাবেক সভাপতি হাফিজুল ইসলাম, গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন, সহ-সভাপতি আবদুস সালাম বাবুল প্রমুখ।