আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৭-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

ফেইসবুক ভালো তবু...

পঞ্চানন মল্লিক
| সম্পাদকীয়

বর্তমানে বিশ্বের প্রায় অর্ধেকেরও বেশি মানুষের নামে ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট আছে। তাই ফেইসবুকের প্রশংসা না করে পারা যায় না। তবে প্রত্যেক ভালো জিনিসের সঙ্গে কিছু খারাপ বিষয়ও জড়িয়ে থাকে। ফেইসবুকের সঙ্গেও তেমনি কিছু খারাপ জিনিস সমাজের খারাপ উৎস থেকে ঢুকে পড়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক আজ কিছুটা অশ্লীলতায় আক্রান্ত। অন্যের ছবি, অন্য কোনো বস্তুর ছবি কিংবা মেয়েদের ছবি ব্যবহার করে ভুয়া আইডি খুলে ছড়ানো 
হচ্ছে এ অশ্লীলতা

বর্তমান প্রযুক্তিনির্ভর বিশ্বে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হিসেবে ফেইসবুক যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না। যদিও সভ্যতার এ যান্ত্রিক লগ্নে মানুষের জীবন অত্যন্ত কর্মব্যস্ত, তবু এর ব্যবহারকারীদের একটু সময় সুযোগ পেলেই পেজে ঢুকে পোস্ট, কমেন্ট, লাইক, শেয়ারে মেতে উঠতে দেখা যায়। এটিই এর ব্যাপক জনপ্রিয়তার একটি প্রমাণ বলা চলে। বিশ্বে মোট ফেইসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা বর্তমানে ২০০ কোটি ছাড়িয়ে গেছে এবং বাংলাদেশে প্রায় ২ কোটি ৪০ লাখ লোক ফেইসবুক ব্যবহার করেন বলে ফেইসবুকের তথ্য সূত্রে জানা যায়। এর অধিকাংশই মূলত মুঠোফোনে ফেইসবুক ব্যবহারকারী। নিজের অ্যান্ড্রয়েড মুঠোফোন ব্যবহার করে কিছু নির্দিষ্ট তথ্য পূরণ করে সহজেই অ্যাকাউন্ট খোলা যায়। আবার ডেক্সটপ/ল্যাপটপ ব্যবহার করেও খোলা যায়। বিনা খরচায় সদস্য হওয়া যায় এটিতে। খোলা আইডি ব্যবহার করে অন্যকে রিকোয়েস্ট পাঠিয়ে বা অন্যের পাঠানো রিকোয়েস্ট গ্রহণ করে অ্যাড হওয়া যায় অন্যদের সঙ্গে। যার সঙ্গে অ্যাড হলেন সঙ্গে সঙ্গে সে আপনার বন্ধু হলো। যদিও ফেইসবুকের বন্ধু আর বাস্তবে আশপাশের পরিচিত বন্ধু এক নয় বলে অনেককেই মন্তব্য করতে শোনা যায়। অনেক সময় দেখা যায়, নিয়মিত লাইক, কমেন্ট করছেন এমন বন্ধুর সঙ্গে রাস্তায় দেখা হলে পাশ কাটিয়ে চলে যাচ্ছেন বা না চেনার ভান করে চলে যাচ্ছেন এমনও হতে পারে। এর অবশ্য কিছু কারণও আছে। যেমন : ফেইসবুকে যাদের সঙ্গে অ্যাড হতে হয় তাদের ভেতর অনেকেই থাকে পূর্ব অপরিচিত বা তাদের সঙ্গে কখনোই দেখাসাক্ষাৎ হয়নি বা হওয়ার সম্ভাবনা নেই। আবার বয়স ও মতাদর্শে সবাই সমান না বা দূরে থাকেন। এসব কারণে অনেক সময় সবার সঙ্গে অ্যাডজাস্ট বা ঘনিষ্ঠতা হয় না। আবার পরিচিত কারও সঙ্গে অ্যাড হওয়ার পর কিছু দিন গেলে আলস্য বা গুরুত্বের অভাবে সব সময় লাইক, কমেন্ট করে না। তখন তাকে বিরক্তিকর বলে মনে হতে পারে। অবশ্য কাউকে ভালো না লাগলে বা কারও দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন মনে হলে বন্ধু তালিকা থেকে তাকে বাদ দেওয়া যায় ‘ব্লক’ এর মাধ্যমে। তবে সাময়িক আবেগ বা খেয়ালের বশে কাউকে হঠাৎ ‘ব্লক’ না করাই ভালো। হয়তো পরে কোনো কারণে তাকে প্রয়োজন হতে পারে। এক্ষেত্রে ‘ব্লক’ না করে নতুন বন্ধু তালিকা বাড়ালে বরং ভালো হবে বলে মনে হয়। তবে সবক্ষেত্রে যে একই রকম হয় তাও নয়। অনেক সময় অনেক অচেনা, অজানা বন্ধুও খুব ঘনিষ্ঠ বা আন্তরিক হয়ে ওঠে বা তার কাছ থেকে বিশেষ কোনো উপকারও পাওয়া যায়। এভাবে হারিয়ে যাওয়া অনেক বন্ধু, প্রিয়জন, পরিচিত জন, জনপ্রিয় ব্যক্তি, ডাক্তার, জনপ্রতিনিধি, খেলোয়াড়, খ্যাতনামা ব্যক্তিগণের সঙ্গে ফেইসবুকের মাধ্যমে অতি সহজেই ইদানীং আমাদের যোগাযোগ বা পুনঃযোগাযোগ সম্ভব হচ্ছে। একজন ব্যবহারকারী বন্ধু সংযোজন, বার্তা প্রেরণ, তথ্যাদির আদান-প্রদান ইত্যাদি করতে পারেন পরস্পরের মধ্যে এর মাধ্যমে। ২০০৪ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর থেকে যেমন অতিদ্রুত ফেইসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়ে চলেছে, তেমনি উন্নতি ও নতুনত্ব সংযোজন হয়েছে এর বিভিন্ন ফাংশনে। ফেইসবুকের গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো যেমন : ১। খবর-১ ডিসেম্বর, ২০০৬, ২। নোট-২২ আগস্ট, ২০০৬, ৩। চ্যাট-৭ এপ্রিল, ২০০৮, ৪। উপহার-৮ ফেব্রুয়ারি, ২০০৭, ৫। মার্কেট প্লেস-১৪ মে ২০০৭, ৬। বার্তা-১৫ নভেম্বর, ২০১০, ৭। ভয়েস কল-এপ্রিল/২০১১, ৮। ভিডিওকল-৬ জুলাই, ২০১১, ৯। ভিডিও- সেপ্টেম্বর/২০১৪, ১০। অনুসরণ-ডিসেম্বর, ২০১১, ১১। পছন্দ বোতাম-২১ এপ্রিল, ২০১০-এ সংযোজিত হয়। ফলে সামাজিক এ যোগাযোগ মাধ্যমটি মানুষকে ব্যাপকভাবে আকৃষ্ট করতে সক্ষম হয়েছে। এর সম্মোহনী জাদুতে মুগ্ধ করে রাখার ক্ষমতা আছে মানুষকে। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় অর্ধেকেরও বেশি মানুষের নামে ফেইসবুক অ্যাকাউন্ট আছে। তাই ফেইসবুকের প্রশংসা না করে পারা যায় না। তবে প্রত্যেক ভালো জিনিসের সঙ্গে কিছু খারাপ বিষয়ও জড়িয়ে থাকে। ফেইসবুকের সঙ্গেও তেমনি কিছু খারাপ জিনিস সমাজের খারাপ উৎস থেকে ঢুকে পড়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক আজ কিছুটা অশ্লীলতায় আক্রান্ত। অন্যের ছবি, অন্য কোনো বস্তুর ছবি কিংবা মেয়েদের ছবি ব্যবহার করে ভুয়া আইডি খুলে ছড়ানো হচ্ছে এ অশ্লীলতা। প্রেম বা কু-প্রস্তাবে ব্যর্থ হয়ে ক্ষতি করার উদ্দেশে মেয়েদের ছবি তুলে কম্পিউটারের মাধ্যমে তাতে অশালীনতা যোগ করে বখাটেরা ছড়িয়ে দিচ্ছে ইন্টারনেটে। পরে জানাজানি হলে অভিভাবকসহ ওই মেয়েটির সমাজে মুখ দেখানো হয়ে পড়ছে দায়। লজ্জা ও ঘৃণায় অনেক মেয়ের আত্মহত্যার খবরও আমরা পত্রিকার পাতায় দেখেছি। ফেইসবুকে এভাবে ছবি ফাঁস করার ভয় দেখিয়ে মেয়েদের মানসিক নির্যাতনও করা হয়ে থাকে; যা ইভটিজিংয়ের মতোই ভয়াবহ। এভাবে অভিভাবকসহ মেয়েদের জীবনে নেমে আসতে পারে করুণ পরিণতি। আবার মন্দ চরিত্রের কিছু মেয়ে এসব মাধ্যমে নগ্ন ছবি ও ভিডিও পোস্ট/শেয়ার করে চ্যাটিংয়ের নামে হাতিয়ে নিচ্ছে টাকা-পয়সা। প্রলোভনে পড়ে রিচাজর্, বিকাশ করে টাকা হারাচ্ছে কেউ কেউ।
ফেইসবুকে এভাবে অশ্লীল ছবির প্রদর্শন তাই কাম্য নয় কারও। ফেইসবুক হচ্ছে একটি আধুনিক ও উন্নত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। যার মাধ্যমে অতি সহজে দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তের খবর নেওয়া যায়। পরিচিত হওয়া যায় অনেক অপরিচিত লোকের সঙ্গে। অনেক অচেনা, অজানা জায়গার ছবি, অলৌকিক ঘটনা, কিংবদন্তি, দর্শনীয় স্থান, আলোচিত ঘটনার ছবি মুহূর্তেই আমরা দেখতে পারি এ মাধ্যমে। ছড়িয়ে দিতে পারি খবরাখবর, লেখালেখি, ব্যক্তিগত চিন্তাচেতনা। ফেইসবুক তাই নিঃসন্দেহে একটি ভালো যোগাযোগ মাধ্যম। কিন্তু এর ভেতর নগ্নতা ঢুকে মানুষের মনে আজ নেতিবাচক ধারণা জন্ম নিচ্ছে। কে, কখন যে কার আইডিতে নগ্ন ছবি ট্যাগ করবে তা আগে থেকে বোঝা যায় না। ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠানোর আগে ও কারও ফ্রেন্ড হিসেবে অ্যাড হওয়ার আগে বোঝার তেমন উপায় নেই লোকটা কেমন। পরে আনফ্রেন্ড করেও রেহাই পাওয়া দুষ্কর । কারণ তার সঙ্গে জড়িত থাকে অন্য ফ্রেন্ডদের বিষয়। ফেইসবুক নিশ্চয়ই ভালো উদ্দেশ্য নিয়েই চালু হয়েছিল বিশ্বে। কিন্তু সেটি আজ নগ্নতায় আক্রান্ত হচ্ছে। সে কারণে ভালো মন নিয়ে ফেইসবুক ব্যবহার করতে গেলেও বিপত্তি। ধরুন লেখালেখির সূত্রে দেশের অন্য লেখক বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে একজন লেখককে ফেইসবুক ব্যবহার করতে হয়। লেখা অন্যদের মাঝে পৌঁছে দেওয়ার জন্য পোস্ট, কমেন্ট করতে হয়। আবার বিভিন্ন অ্যাপসের মাধ্যমে নেটে ঢুকে অনেক পত্রপত্রিকা পড়তে হয়। কিন্তু সবার সামনে মোবাইল নিয়ে বসাটা যেন কেমন লজ্জাকর ব্যাপার, কারও সামনেও ফেইসবুক বা নেট ওপেন করে কিছু দেখতে কুণ্ঠা লাগে অনেকের। না জানি লোকে ভাববে বুঝি ফেইসবুকে নগ্ন ছবি দেখছেন। সমাজের খারাপ দিকটাই তো লোকে আগে ভাবে। বিশেষ করে ফেইসবুকে যে নগ্নতা আছে তা তো সবারই জানা। সন্দেহ করাটা তাই স্বাভাবিক। ফেইসবুককে তাই কলুষতা থেকে আমাদের মুক্ত রাখতে হবে। সরকার এরই মধ্যে কিছু পর্নোসাইট বন্ধ করে দিয়েছে। এটি আমাদের জন্য একটি ভালো সংবাদ। এভাবে সরকারি এবং আমাদের সবার উদ্যোগের ফলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে অশ্লীলতা ছড়ানো বন্ধ হবে আশা করি। হ

পঞ্চানন মল্লিক 
কবি ও কলামিস্ট