আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৯-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী চ্যাম্পিয়নশিপ

লেবাননকে হারাতে প্রত্যয়ী বাংলাদেশ

স্পোর্টস রিপোর্টার
| খেলা

লেবানন ম্যাচের প্রস্তুতি শেষে মাঠ ছাড়ছেন বাংলাদেশের কিশোরীরা। মনিকার সঙ্গে খুনসুটিতে ব্যস্ত সতীর্থরা, সেটা দেখে উপভোগ করছেন আঁখি, তহুরা, শামসুন্নাহাররা ষ বাফুফে

বাহরাইনের বিপক্ষে ১০-০ গোলের বড় জয় দিয়ে এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ বাছাইপর্ব শুরু করেছে ‘এফ’ গ্রুপ স্বাগতিক বাংলাদেশ। তাতে গতকাল কিছুটা ফুরফুরে মেজাজে থাকার কথা ছিল মারিয়া মান্ডা, মনিকা চাকমা, তহুরা খাতুন, আনাই মগিনি, আনুচিং মগিনিদের! কিন্তু ঘুম কমিয়ে কাকডাকা ভোরে তাদের নিয়ে মাঠে নেমেছিলেন কোচ গোলাম রব্বানী ছোটন। ভোর পৌনে ৬টায় কমলাপুর স্টেডিয়ামে ঘণ্টা খানেক অনুশীলন করান কিশোরীদের।

কেননা, বাহরাইনকে ৮-০ ও সংযুক্ত আরব আমিরাতকে ৬-৩ গোলে হারিয়ে টানা দুই জয়ে গ্রুপে শীর্ষে লেবানন; আপাত দৃষ্টিতে ভালো অবস্থানে আছে বলা যায়। আজ তাদের গতিরোধ করে ভালো অবস্থানে যেতে চান স্বাগতিক কোচ; কাল জানানও ছোটন, ‘ওরা শক্তিশালী দল, বেশ কয়েকজন ভালো ফুটবলার আছে, যাদের স্কিল ভালো। দুই ম্যাচ খেলা জায়গায় আছে, আমরাও নিজেদের অবস্থান সুসংহত করতে চাই।’ লেবাননের বিপক্ষে জিতে গ্রুপ সেরার পথে এগিয়ে থাকতে চান কোচ, ‘আমাদের লক্ষ্য গ্রুপ সেরা হওয়া। এ ম্যাচ জিততে পারলে গ্রুপ সেরার পথে খানিকটা এগিয়ে থাকব।’ সেটা আজই হয়ে যেতে পারে, কমলাপুর স্টেডিয়ামে বেলা সাড়ে ১১টায় লাল-সবুজ কিশোরীদের প্রতিপক্ষ লেবানন। স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে পারলে সম্ভব দেখছেন ছোটন। ভালো জায়গায় যেতে চাইলে সুযোগ কাজে লাগাতে হবে। কারণ বাহরাইনকে ১০ গোলে হারালেও গোটা দশেক সুযোগ নষ্ট করেন ফরোয়ার্ডরা। লেবাননের মতো শক্ত দলের বিপক্ষে হয়তো এত সুযোগ পাওয়া যাবে না, যা তৈরি করা যাবে, তা-ই কাজে লাগাতে হবে মনে করেন কোচ। 
গেল ম্যাচে তহুরা ও আনুচিংয়ে খেলায় মন ভরেনি কোচের। দুইজনই পোস্টের কাছে থেকেও বল পোস্টেও উপর দিয়ে মেরেছেন। আর তহুরা যেভাবে জায়গা নিয়ে খেলেন, বাহরাইনের মেয়েরা নিচে নেমে রক্ষণকাজ করায় সে জায়গা পায়নি। লেবানন ম্যাচে আনুচিংয়ের পরিবর্তে সাজেদাকে একাদশে খেলানোর চিন্তা তার। বাহরাইনের বিপক্ষে বাংলাদেশ দল বেশ কয়েক বার অফসাইডের ফাঁদে আটকা পড়েছে, ৪টি গোল বাতিল হয়েছে। এ ম্যাচে পুনরাবৃত্তি হবে না জানালেন কোচ।
নারী ফুটবলে আজই প্রথম লেবাননের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। আসরে প্রতিপক্ষের গেল দুই ম্যাচের ভিডিও দেখে কোচ ছোটনের উপলব্ধি, ‘গতি-অভিজ্ঞতা ও শক্তির দিক দিয়ে আমরা এগিয়ে। কিন্তু ওদের অনেক ভালো খেলোয়াড় আছে। সবচেয়ে বড় কথা, ওরা দুটি ম্যাচ জিতে ভালো অবস্থানে আছে, ছোট করে দেখার কিছু নেই। লেবাননকে হারাতে হলে সর্বশক্তি দিয়ে খেলতে হবে। কোনো ছাড় দেওয়া যাবে না।’ লেবানন ম্যাচে মেয়েরা আরও ভালো খেলবে প্রতিশ্রুতি দিলেন কোচ, ‘মধ্যমাঠে মনিকা গেল ম্যাচে তাড়াহুড়ো করেছে, সে ঠা-া মাথায় খেললে আমাদেও খেলা আরও ভালো হবে। লেবানন ম্যাচে মেয়েরা আরও ঠা-া মাথায়, ভালো খেলবে।’ এমন প্রত্যাশা তো গোটা দেশবাসীর।
লেবাননের মূল শক্তি আক্রমণ ভাগের জারা আসাফ, নাথালি আলাবেদ, সিনতিয়া শালহা, ক্রিস্টি মালউফ। জারা তো গেল ম্যাচে ৪ গোল করেছে, প্রথম ম্যাচে হ্যাটট্রিক করেছে নাথালি। লারা বও হামরা, মারিয়া শ্লিম, মারিয়া নুর নৌজামরা মিলে রক্ষণকে বেশ জমাট করেছেন। দুই ম্যাচেই তাদের তুলে নিয়ে বেঞ্চের খেলোয়াড়দের পরখ করে নিয়েছেন কোচ হাগপ দেমির জিয়ান। বাংলাদেশের বিপক্ষেও গত দুই ম্যাচের ছন্দ ধরে রাখতে চান তিনি। বলেনও, ‘বাংলাদেশ স্বাগতিক সুবিধা পাবে। কিন্তু আমরা নিজেদের স্বাভাবিক খেলাটা খেলতে চাই।’ তবে ছোটন চাইবেন তাদের খেলাটা নষ্ট করে দিতে। তাতেই না জমবে খেলা।