আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২০-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

বিস্মিত ক্ষুব্ধ মাশরাফি

স্পোর্টস রিপোর্টার
| খেলা

আন্তর্জাতিক পর্যায়ের টুর্নামেন্টে ম্যাচের আগের দিন আপনি শুনছেন যে গ্রুপ পর্যায়ের শেষ ম্যাচের আগেই আমরা ‘বি-২’। সবাই হতাশা প্রকাশ না করলেও প্রতিক্রিয়া হওয়া স্বাভাবিক।’ 

এশিয়া কাপের সুপার ফোরের সূচিতে আচমকা পরিবর্তন আনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। ভারতকে সুবিধা দিয়ে প্রথম রাউন্ড শেষ হওয়ার আগে নক আউট পর্বের ফরম্যাটে পরিবর্তন আনায় বিস্মিত তিনি।  গেল রাতে হংকংকে হারিয়ে ভারতের সুপার ফোর নিশ্চিত হওয়ার পর নক আউট পর্বে সূচিতে বিস্ময়কর পরিবর্তন আনে এসিসি।

মঙ্গলবারে রাতে এসিসি বিতর্কিত এ সিদ্ধান্ত নেয়। নতুন সূচি অনুযায়ী প্রথম রাউন্ডের শেষ ম্যাচ দুটি হয়ে পড়েছে নিছক আনুষ্ঠানিকতার। আজ আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। তবে তাদের হারালেও কিছু যায় আসে না। গ্রুপে দ্বিতীয়ই থাকছে বাংলাদেশ। ভ্রমণ ক্লান্তির জন্য আবুধাবিতে খেলতে রাজি হচ্ছিল না ভারত। এ নিয়ে কোনো রকম ছাড় দিতে রাজি নয় তারা। তাই বাধ্য হয়েই তাদের সুবিধা দিতে গ্রুপ পর্বের খেলা শেষ হওয়ার আগেই সূচি নির্ধারণ করে এসিসি। এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পরিবর্তিত সূচি প্রকাশ করে এশিয়ান ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি।
বুধবার ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে বিস্মিত মাশরাফি বলেন, ‘এটা অবশ্যই হতাশার। প্রথম থেকেই আমাদের পরিকল্পনায় ছিল, শ্রীলঙ্কাকে প্রথম ম্যাচে হারাতে পারলে আমরা হয়তো গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পথে এগিয়ে যাব। এরপর গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলে ‘এ’ গ্রুপের রানার্সআপ দলের সঙ্গে প্রথম ম্যাচ খেলব সুপার ফোরে। কিন্তু আজকে জানতে পেরেছি, আমরা আফগানিস্তানের বিপক্ষে জিতি আর হারি, আমরা ‘বি-২’ হয়ে গেছি। এটা অবশ্যই হতাশার। গ্রুপ ম্যাচ বলেন বা যা বলেন, একটি নিয়ম থাকে টুর্নামেন্টের। সেই নিয়মের বাইরে চলে যাচ্ছি আমরা। এটাই হতাশার।’
সুপার ফোরের চার দলের অবস্থান নির্দিষ্ট করে দিয়ে আচমকা সূচিতে পরিবর্তন আনে এসিসি। বিস্ময়কর এ নিয়মে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন বা রানার্স আপ হয়েও লাভ নেই। যেমন ‘বি’ গ্রুপ থেকে বাংলাদেশ যদি চ্যাম্পিয়ন হয়ও তাতে লাভ নেই। এই গ্রুপ থেকে বাংলাদেশের অবস্থান ‘বি-২’ নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার আফগানিস্তান যদি বাংলাদেশের কাছে হেরেও যায় তাহলে গ্রুপ চ্যাম্পিয়নের মতো মর্যাদা পাবে। তাদের অবস্থান ‘বি-১’। অন্যদিকে অপর গ্রুপ থেকে ‘এ-১ স্ট্যাটাস দেওয়া হয়েছে ভারতকে। আর পাকিস্তান পেয়েছে ‘এ-২’ স্ট্যাটাস।
টুর্নামেন্টে পরিবর্তিত সূচির বিষয়টি মাশরাফিরা বিষয়টা জানতে পারেন বুধবার প্রাকটিসে আসার পর। এটা শোনার পরই বিস্মিত হয়ে যান বাংলাদেশ অধিনায়ক। তিনি বলেন,‘ দেখেন, একজন পাগলও এটাতে ভালোভাবে রিঅ্যাক্ট করবে না। এটা অবশ্যই ঠিক না। আন্তর্জাতিক পর্যায়ের টুর্নামেন্টে ম্যাচের আগের দিন আপনি শুনছেন যে গ্রুপ পর্যায়ের শেষ ম্যাচের আগেই আমরা ‘বি-২’। সবাই হতাশা প্রকাশ না করলেও প্রতিক্রিয়া হওয়া স্বাভাবিক।’ বাংলাদেশ দলপতি যোগ করেন,‘ ৬ দিনে চারটি ম্যাচ খেলতে হবে। পরের তিনটি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। এ গরমে ৬ দিনে চারটি ম্যাচ, আমি নিশ্চিত যে রাজি হবে না কোনো দল। বলতে পারেন সব দলের জন্যই চ্যালেঞ্জিং। কিন্তু আমাদের ব্যাপারটা হলো, ২১ তারিখে এমন গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ, এর আগের রাতে গ্রুপ পর্যায়ের ম্যাচ খেলতে হবে। সুপার ফোরে প্রথম ম্যাচটিই সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।’