আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২০-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

গ্রুপ সেরা হতে চায় বাংলাদেশ

আহসান হাবিব সম্রাট
| প্রথম পাতা

এশিয়া কাপে ‘বি’ গ্রুপ থেকে সুপার ফোর আগেই নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। এক ম্যাচ হাতে রেখেই সেরা চারে জায়গা করে নিয়েছে উভয় দল। ম্যাচটি মূলত নিয়মরক্ষার ম্যাচ হলেও এটার আলাদা গুরুত্ব রয়েছে বৈকি। রশিদ-মোহাম্মদ নবিদের বিপক্ষে জয় দিয়ে গ্রুপ সেরা হওয়ার পাশাপাশি ভারতের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ লড়াইয়ের আগে আত্মবিশ্বাস ঝালিয়ে নিতে চান টাইগাররা। একই সঙ্গে আফগানদের হারিয়ে দেরাদুনে টি-

টোয়েন্টি সিরিজে হারের প্রতিশোধ নিতে চাইবে বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার আবুধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে দুই দলের ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৫টায়। ম্যাচটি বাংলাদেশ টেলিভিশন (বিটিভি) ও স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল গাজী টিভি সরাসরি সম্প্রচার করবে। 
এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে বাংলাদেশ মুশফিক-তামিমের বীরত্বে ১৩৭ রানে হারিয়েছে শ্রীলঙ্কাকে। অন্যদিকে আফগানিস্তানের জয়টিও লঙ্কানদের বিপক্ষে। তারা ৯১ রানে হারায় এশিয়া কাপের পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নদের। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বড় জয়ে দুই দলের আত্মবিশ্বাসই তুঙ্গে। তাই বাংলাদেশ-আফগানিস্তানের ‘ওয়ার্ম আপ’ ম্যাচটিও উত্তাপ ছড়াবে। ছেড়ে কথা বলবে না কোনো দলই। পরিসংখ্যানও তেমনটাই ইঙ্গিত দিচ্ছে। ওয়ানডেতে টাইগারদের তিন জয়ের বিপরীতে আফগানিস্তান জিতেছে দুটিতে। আর দুই দলের সবশেষ সাক্ষাৎ হয়েছিল চলতি বছরে দেরাদুনে। তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে টাইগারদের হোয়াইটওয়াশ করেছিলেন মুজিব-রশিদরা। এশিয়া কাপে আফগানদের হারিয়ে সেই হারের ক্ষতে প্রলেপ দিতে চায় বাংলাদেশ। জয়ের ধারাবাহিতকতা ধরে রেখে গ্রুপ সেরা হয়েই সুপার ফোর এ অবতীর্ণ হতে চায় টাইগার দল। আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচ সম্পর্কে বাংলাদেশ দলের অফস্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ বলেন, ‘আমরা আশাবাদী, আফগানিস্তানকে হারাতে পারব। ওদের হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়েই সুপার ফোরে খেলতে চাই।’ তবে আফগানিস্তানের মূল শক্তি স্পিন। তাদের তিন স্পিনার রশিদ খান, মুজিব জাদরান এবং মোহাম্মদ নবি আছেন ফর্মের তুঙ্গে। রশিদ খান ১৬ ম্যাচে ৪০ উইকেট নিয়ে আছেন সবার ওপর। মুজিব জাদরান ১৬ ম্যাচে নিয়েছেন ৩২ উইকেট। আর অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবী ২১ উইকেটে শিকার করেন এ বছর ওয়ানডেতে। দেরাদুনে রশিদ ও মুজিবের কারণেই সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হতে হয় বাংলাদেশকে। এ প্রসঙ্গে মিরাজ বলেন, ‘ওটা ছিল টি- টোয়েন্টি সিরিজ। আর এখন আমরা খেলব ওয়ানডে। ৫০ ওভারের ম্যাচে অনেক সময় পাওয়া যায়, কোনো ভুল করলে শোধরানোর সময় থাকে। আমরা আশাবাদী, আফগানিস্তানকে হারাতে পারব।’ আফগান স্পিনাররা বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের জন্য তেমন সমস্যার কারণ হবে না বলেই মনে করেন এ টাইগার অফস্পিনার। এছাড়া আফগানদের চেয়ে নিজেদের দলকে অনেক ব্যালান্সড বলেই মনে করেন মিরাজ, ‘আমাদের ব্যাটসম্যানরা আগের চেয়ে স্পিন অনেক ভালো খেলে। আশা করি, কোনো সমস্যা হবে না। এছাড়া আমাদের দলেও ভালো স্পিনার রয়েছে, তারা খুব ভালো বল করছে। দলের পেসাররাও ভালো করছে। আমাদের দলে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার আছে। আমাদের সব বিভাগই ব্যালান্সড।’ আফগানিস্তানের বিপক্ষেও জয়ের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে প্রত্যয়ী টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাও। যদিও আফগানিস্তানের বিপক্ষে প্রতিশোধ নিয়ে ভাবছেন না তিনি। বুধবার ম্যাচ-পূর্ব সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘সবাই জয়ের ইচ্ছায় খেলতে নামে। আমরাও তাই নামব। তবে প্রত্যেক ম্যাচেই এমনটা বলা হয়। এর আগে যখন শ্রীলঙ্কার সঙ্গে খেলা হলো, তখনও এমন একটা কথা শোনা গেল। আসলে তেমন কিছু নয়। সবাই জিততেই মাঠে নামে।’
চোট পেয়ে দেশে ফিরে আসা ওপেনার তামিম ইকবালকে দল নিশ্চিতভাবেই মিস করবে। বাংলাদেশ অধিনায়কও সেটি গোপন করার চেষ্টা করলেন না, ‘তামিমের ব্যাপারটি আমাদের জন্য খুব দুঃখজনক। ও খুব ভালো ফর্মে ছিল।’ তামিমের জায়গা কে পূরণ করবে, সে ব্যাপারে এখনও চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়নি টিম ম্যানেজমেন্ট। তবে তামিমের জায়গায় দলের হয়ে ইনিংস উদ্বোধন করতে পারেন নাজমুল হোসেন শান্ত। সুপার ফোর নিশ্চিতের পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটির আসলে খুব একটা গুরুত্ব নেই। পরের রাউন্ডে টাইগারদের শুরুর প্রতিপক্ষ ভারত। এর আগে দলের কাউকে বিশ্রামে রাখার পরিকল্পনা নিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘আসলে কালকের (আজ) ম্যাচ নিয়ে আমরা এভাবে চিন্তা করছি না। প্রতিটি দেশের আন্তর্জাতিক ম্যাচ। সুতরাং, আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচটিরও গুরুত্ব রয়েছে। তবে কাকে বিশ্রাম দেওয়া যায়, আমরা তা ভাবছি। এখনও ঠিক করা হয়নি।’ চোট নিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ১৪৪ রানের মহাকাব্যিক এক ইনিংস খেলেছেন মুশফিক। শেষ চারের কথা মাথায় রেখে আফগানিস্তানের বিপক্ষে মুশফিককে বিশ্রামে রাখতে পারে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট।