আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২১-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

জুভেন্টাসের জয়ে রোনালদোর লাল কার্ড

স্পোর্টস ডেস্ক
| খেলা

রেফারির সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করছেন রোনালদো ষ ডেইলি মেইল

জুভেন্টাসের হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের অভিষেক ম্যাচটা স্মরণীয় হয়ে রইল ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর জন্য। তবে তা ইতিবাচক দিকে নয়, নেতিবাচক। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে দারুণ পারফর্ম করেন বলেই জুভেন্টাস রোনালদোর দিকে ঝুঁকেছে। সেই দলের হয়ে এ লিগে নেমেই লাল কার্ড দেখতে হলো রোনালদোকে। লাল কার্ডের তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে মাত্র আধা ঘণ্টার মধ্যে মাঠ ত্যাগ করতে হয়েছে তাকে। অবশ্য ১০ জনের দল নিয়েও ভ্যালেন্সিয়ার বিপক্ষে অ্যাওয়ে ম্যাচে ২-০ গোলের জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছেন ইতালিয়ান চ্যাম্পিয়নরা। স্পট কিক থেকে ম্যাচে ২টি গোলই করেছেন মিরালেম পানিচ।

ভ্যালেন্সিয়ার কলম্বিয়ান ডিফেন্ডার জেইসন মুরিলোর সঙ্গে বিতর্কের জেরে ম্যাচের মাত্র ২৯ মিনিটেই লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন রোনালদো। জার্মান রেফারি ফেলিক্স বিব্রচ তার সহকারীদের সঙ্গে ঘটনাটি নিয়ে কিছুক্ষণ আলোচনার পর রোনালদোকে সরাসরি লাল কার্ড দেখান। মুরিলোর চুল ধরে টানার অপরাধে লাল কার্ড দেখানো হয়েছে রোনালদোকে। কিন্তু ঘটনার সূত্রপাত ছিল খুবই বিতর্কিত। রোনালদোর গায়ে ধাক্কা না লাগতেই মাটিতে পড়ে যান মুরিলো। মুরিলোর মাথায় হাত দিয়ে এমন করার কারণ জানতে চান রোনালদো। চুল ধরে খুব জোরে টান দেননি তা রিপ্লেতে স্পষ্ট দেখা যায়। তবুও রেফারি রোনালদোকে লাল কার্ড দেখান। ৩৩ বছর বয়সি তারকা এ সিদ্ধান্তে আবেগতাড়িত হয়ে মাঠ ত্যাগ করেন। এর ফলে এক ম্যাচ নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছেন পাঁচবারের বর্ষসেরা তারকা। আর উয়েফা যদি শাস্তির মেয়াদ আরও বাড়ায় তবে অক্টোবরে পুরানো ক্লাব ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের বিপক্ষে তার আর খেলা হচ্ছে না। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এ পর্যন্ত খেলা ১৫৪টি ম্যাচে এটাই রোনালদোর প্রথম লাল কার্ড। এ নিয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে জুভেন্টাস সবচেয়ে বেশি (২৬) লাল কার্ডের তিক্ত অভিজ্ঞতা পেল।
রোনালদোর উপিস্থিতিতে জুভেন্টাস ইউরোপীয়ান সর্বোচ্চ আসরে ২২ বছরের শিরোপা খরা কাটিয়ে সাফল্যের আসায় মাঠে নেমেছিল। যদিও রোনালদোকে ছাড়াও জুভেন্টাসের জন্য ম্যাচে ভাগ্য নিজেদের করে নিতে খুব একটা কষ্ট হয়নি। উভয় অর্ধে পানিচের দুটি স্পট কিক থেকে গোল আদায়ে জুভেন্টাসের জয় নিশ্চিত হয়েছে। দিনের শেষে তিন পয়েন্ট নিয়ে ঘরে ফেরায় স্বস্তি ফিরেছে জুভ শিবিরে। প্রথমার্ধে মারিও মানজুকিচ, সামি খেদিরা ও ব্লেইস মাতৌদি ভালো কিছু সুযোগ হাতছাড়া করেছেন। প্রথমার্ধের একদম শেষ মিনিটে পেনাল্টি পাওয়ার পর ভ্যালেন্সিয়ার মাঠ মেস্টায়ার প্রতিকূল পরিবেশে পানিচও ঠা-া মাথায় দলকে এগিয়ে দিতে ভুল করেননি। ডি বক্সের ভেতর হুয়াও কানসেলোকে বাজে একটি চ্যালেঞ্জ করায় ড্যানিয়েল পারেজোর বিপক্ষে পেনাল্টির নির্দেশ দেন রেফারি। তার আগে কানসেলোর একটি জোরালো শট ক্রসবার দিয়ে বাইরে চলে যায়। ৪৫ মিনিটে স্পট কিক থেকে জুভেন্টাসকে এগিয়ে দেন বসনিয়া-হার্জেগোভেনিয়ার ২৮ বছর বয়সি মিডফিল্ডার পানিচ। বিরতির ৬ মিনিট পর গিওর্গিও চিয়েলিনিকে ফাউলের অপরাধে মুরিলোর বিপক্ষে পেনাল্টির নির্দেশ দেন ব্রিচ। এবারও পানিচের ওপরই আস্থা রেখেছিলেন আলেগ্রি। আর কোচের আস্থার প্রতিদানও দিয়েছেন এ মিডফিল্ডার। এ প্রথম পাজানিচ জুভেন্টাসের হয়ে ২ গোল দিলেন। যদিও স্টপেজ টাইমে পাজেরোর স্পট কিক রুখে দিয়ে স্বাগতিক দর্শকদের আরও হতাশ করেছেন রিয়াল গোলরক্ষক জেসনি। এর আগে ২০১৫ সালে সর্বশেষ সেভিয়া বনাম বরুসিয়া মুনশেনগ্ল্যাডবাখের ম্যাচে তিনটি পেনাল্টির সিদ্ধান্ত দেওয়া হয়েছিল।