আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২১-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

আসন্ন জাতিসংঘ অধিবেশন

মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়াতে আহ্বান জানানো হবে

কূটনৈতিক প্রতিবেদক
| প্রথম পাতা

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী বলেছেন, রোহিঙ্গা সমস্যার শান্তিপূর্ণ স্থায়ী সমাধানের জন্য মিয়ানমারের ওপর চাপ বাড়াতে জাতিসংঘের আসন্ন সাধারণ অধিবেশনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে আহ্বান জানাবে বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি একথা জানান। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতিসংঘ সাধারণ অধিবেশনে যোগদান উপলক্ষে আয়োজিত এ সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের পক্ষ থেকে আমাদের উত্তেজিত করার অনেক চেষ্টা করা হয়েছে। তারা আকাশসীমা লঙ্ঘন করেছে, ল্যান্ড মাইন বসিয়েছে। কিন্তু আমরা ঠা-া মাথায় এর 

শান্তিপূর্ণ সমাধানের চেষ্টা করছি। তিনি বলেন, এবারের সাধারণ পরিষদ অধিবেশনে রোহিঙ্গা বিষয়ে উচ্চ পর্যায়ের বেশ কিছু ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হবে, যেখানে আমরা আমাদের উদ্যোগ ও বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তুলে ধরব।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা সমস্যার স্থায়ী সমাধান নিশ্চিত করার ব্যাপারে মিয়ারমারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ বেড়েছে। মিয়ানমার সফর সম্পর্কে তিনি বলেন, আমরা উত্তর রাখাইনের মংডু, বুথিডংসহ বেশ কিছু এলাকা পরিদর্শন করেছি। আমি নিজে দেখেছি, সেখানে বাড়ির গাছপালা পর্যন্ত জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। আসন্ন জাতিসংঘ অধিবেশনে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মিয়ানমারের মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের সম্ভাবনার ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা হবে নিউইয়র্কে। সেখানে মিয়ানমারের মন্ত্রীও হয়তো বা থাকবেন।
জুনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী যখন চীন সফর করেছিলেন, তখন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং জি ও মিয়ানমারের ইউনিয়নমন্ত্রী টিন্ট সোয়ের সঙ্গে ত্রিপক্ষীয় বৈঠক হয়েছিল। এ বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদ আলী বলেন, আমি যখন জুনে চীনে গিয়েছিলামÑ তখন চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং জি আমাকে বলেছিলেন; আপনি মিয়ানমারের গিয়ে পরিস্থিতি দেখে এসে আমাকে জানাবেন। দেখা যাক, আলোচনা হবে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এবারের জাতিসংঘ অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী উচ্চ পর্যায়ের বেশ কিছু বৈঠকে অংশ নেবেন। এছাড়া ২৭ সেপ্টেম্বর প্রতিবারের মতো এবারও জাতিসংঘে বাংলায় বক্তব্য দেবেন। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে গেল বছর তার প্রস্তাবিত পাঁচ দফার ধারাবাহিকতায় পুনরায় কিছু সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব তুলে ধরবেন। এবারের অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রীকে দুটি পুরস্কারে সম্মানিত করা হবে। ইন্টারপ্রেস সার্ভিস নিউজ এজেন্সি প্রধানমন্ত্রীকে ইন্টারন্যাশনাল অ্যাচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড প্রদান করবে। এছাড়া গ্লোবাল হোপ কোয়ালিশন ‘স্পেশাল রিকগনিশন ফর আউটস্ট্যান্ডিং লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড’ প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দেবেন। সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এবং পররাষ্ট্র সচিব এম শহিদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।