আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৩-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

বাংলাদেশ-আফগানিস্তান

তবুও ফাইনালের স্বপ্ন মাশরাফির

আহসান হাবিব সম্রাট
| প্রথম পাতা

 

‘আমরা টুর্নামেন্ট থেকে এখনও ছিটকে যাইনি। ভালো করে ঘুরে দাঁড়ানোর এখনও সুযোগ আছে’

এশিয়া কাপের সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচে হেরেছে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান। ফাইনালের আশা বাঁচাতে রাখতে হলে সুপার ফোরের দ্বিতীয় ম্যাচে জয় জরুরি দুই দলের জন্যই। এমন সমীকরণ সামনে রেখে আজ আফগানদের মুখোমুখি হচ্ছে মাশরাফি বাহিনী। গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটিতে টাইগারদের দুশ্চিন্তা দলের ভঙ্গুর ব্যাটিং। আবুধাবিতে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে ৫টায় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচটি মাঠে গড়াবে। 

আফগানিস্তানকে হারিয়ে টুর্নামেন্টে 

ঘুরে দাঁড়াতে মরিয়া বাংলাদেশ। ওপেনিং দুশ্চিন্তা দূর করতে সুপার ফোরের দ্বিতীয় ম্যাচের আগেই আমীরাতে উড়িয়ে নেওয়া হয় ইমরুল কায়েস ও সৌম্য সরকারকে। যদিও দলে তাদের যোগ দেওয়া কতখানি সফল হবে সেটা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে। তবে টানা দুই ম্যাচ হারলেও ফাইনালের আশা ছাড়ছেন না বাংলাদেশ দলপতি মাশরাফি। শুক্রবার ভারতের বিপক্ষে ম্যাচ শেষে বলেন, ‘আমরা টুর্নামেন্ট থেকে এখনও ছিটকে যাইনি। ভালো করে ঘুরে দাঁড়ানোর এখনও সুযোগ আছে। একটা দিন সময় আছে পরের ম্যাচের আগে। নিজেদের একটু গুছিয়ে নিয়ে পরের ম্যাচে নামতে হবে।’ আফগানদের দুর্দান্ত স্পিনকে সমীহ করলেও ‘ভালো’ একটি দিনের প্রত্যাশায় টাইগার দলপতি, ‘একটা ভালো দিনেই সব বদলে যেতে পারে। আফগানিস্তানের সঙ্গে ম্যাচে যদি আমরা জিততে পারি, তাহলে ফিফটি ফিফটি চান্স চলে আসবে। এরপর পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচে জিতলে ভালো সুযোগ থাকবে (ফাইনালের)।’
এশিয়া কাপে বাংলাদেশ দলের ব্যাটিং এখন পর্যন্ত সুখকর নয়। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে মুশফিকুর রহিম ও তামিম ইকবালের বীরত্বে বিপর্যয় কাটিয়ে জয়ও তুলে নেয় মাশরাফি বাহিনী। গ্রুপ পর্বে লঙ্কানরা আফগানদের কাছে হারলে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সুপার ফোর নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। টুর্নামেন্টে পরের দুই ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় বড় হারের লজ্জা পেতে হয় টাইগারদের। আফগানিস্তানের ২৫৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ১১৯ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। আফগান বোলিং আক্রমণ সামলাতে ভীষণ বেগ পেতে হয় টাইগার ব্যাটসম্যানদের। মাত্র তিন ব্যাটসম্যান ২ অঙ্কের রানে পৌঁছাতে সক্ষম হন। ভারতের বিপক্ষেও সুবিধা করতে পারেননি তারা। স্কোর বোর্ডে মাত্র ১৭৩ রান জমা করেন ব্যাটসম্যানরা। 
টুর্নামেন্টে ঘুরে দাঁড়াতে হলে সুপার ফোরের দ্বিতীয় ম্যাচে জয়ের বিকল্প নেই মাশরাফিদের। কিন্তু সেজন্য আফগান স্পিন বাধা জয় করতে হবে ব্যাটিং নিয়ে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশকে। তিন স্পিনার রশিদ খান, মুজিব উর রহমান ও মোহাম্মদ নবীদের মোকাবিলা করা চাট্টিখানি ব্যাপার নয় তামিমবিহীন টাইগার দলের। টুর্নামেন্টে এখন পর্যন্ত সেরা বোলিং বিভাগ আফগানদেরই। আর তিন ম্যাচে রশিদ, মুজিব, নবীদের ওভারপ্রতি গড় খরচ সাড়ে ৩ এর কম! বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উদ্বেগের জায়গা ওপেনিং। লিটন দাস তিন ম্যাচে করেন যথাক্রমে ০, ৭ ও ৬। অন্যদিকে দুই ম্যাচে যথাক্রমে ৭ ও ৭ রান করেছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। টপ অর্ডারে থাকা মোহাম্মদ মিঠুন প্রথম ম্যাচে ৬৩ করলেও পরের দুই ম্যাচে তার সংগ্রহ যথাক্রমে ২ ও ৯। মুমিনুল এক ম্যাচ খেললেও ব্যাট হাতে কিছু করে দেখাতে পারেননি। বড় ইনিংস খেলতে পারছেন না সাকিব ও মাহমুদউল্লাহও। টেইলএন্ডেও ঝড় তোলার মতো ব্যাটসম্যানের অভাব রয়েছে টাইগার দলে। মোসাদ্দেক বা মেহেদি হাসান মিরাজরা শেষদিকে ব্যাটে ঝড় তুলতে তেমন পারদর্শী নন। যেই সক্ষমতা আছে এশিয়া কাপে দুর্দান্ত নৈপুণ্য দেখানো আফগানিস্তানের। ব্যাটসম্যানদের। সব বিভাগেই মুগ্ধতা ছড়াচ্ছে আফগানিস্তান।