আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৪-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

পাঁচ জেলায় সড়কে ঝরল কলেজছাত্রসহ ১০ প্রাণ

আলোকিত ডেস্ক
| শেষ পাতা

রাজধানী ঢাকাসহ পাঁচ জেলায় শনিবার রাতে ও রোববার সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন ১০ জন। কিশোরগঞ্জে বাস ও বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষে একই পরিবারের তিনজন, ঢাকায় বাসের ধাক্কায় যুবক, চট্টগ্রামে পৃথক ঘটনায় তিনজন, গোপালগঞ্জে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে এক শিশু এবং ফরিদপুরে দুইজন মারা গেছেন। নিজস্ব প্রতিবেদক, ব্যুরো ও প্রতিনিধিদের খবরÑ

কিশোরগঞ্জ : নেত্রকোনার কেন্দুয়া থেকে চার বছরের শিশুকে কিশোরগঞ্জে চিকিৎসার জন্য বাইক নিয়ে আসার পথে বাস কেড়ে নিল একই পরিবারের তিনজনের প্রাণ। তারা হলেনÑ শিশু শাহরিয়ারসহ তার বাবা ও মামা। কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ মহাসড়কের কাটাবাড়িয়া ডাউকিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ বাসটিকে আটক করলেও চালক পালিয়ে গেছেন। কিশোরগঞ্জের কটিয়াদী হাইওয়ে থানার ইনচার্জ মো. আক্তারুজ্জামান জানান, সিলেট থেকে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছাগামী যাত্রীবাহী এডিএস জালালাবাদ নামের একটি বাসের সঙ্গে কেন্দুয়া থেকে কিশোরগঞ্জগামী একটি বাইকের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই মোটরসাইকেলচালক শাহরিয়ারের মামা রফিকুল ইসলাম মারা যান। আহত শাহরিয়ার ও তার বাবা রুবেল মিয়াকে কিশোরগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসকরা তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
ঢাকা : রাজধানীর বাড্ডায় ড্রিমল্যান্ড পরিবহনের যাত্রাবাহী একটি বাসের ধাক্কায় রাশেদুল ইসলাম টিটু নামে এক যুবক মারা গেছেন। তিনি সাভার এলাকায় থাকতেন। পুলিশ ঘাতক বাস জব্দসহ চালক কাওসার আহমেদ ও হেলপার আবদুল খালেককে আটক করেছে। ময়নাতদন্তের জন্য পুলিশ লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছে। বাড্ডা থানার এসআই আবদুল কাদের জানান, গুলশান-বাড্ডা লিংক রোডে ড্রিমল্যান্ড পরিবহনের একটি বাসের ধাক্কায় টিটু গুরুতর আহত হন। উদ্ধার করে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।
চট্টগ্রাম : নগরীর কোতোয়ালি থানা পলোগ্রাউন্ড এলাকায় ৭নং রুটের সিটি বাস ও বাইক মুখোমুখি সংঘর্ষে এক কলেজছাত্র মারা গেছেন। তার নাম আলমগীর হোসেন রিয়াদ। তার বাবার নাম রফিকুল ইসলাম। রিয়াদ ইসলামিয়া কলেজের শিক্ষার্থী। তার বাড়ি কুমিল্লায়। তিনি ফিরোজশাহ এলাকায় থাকতেন। কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ মহসীন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। ঘাতক বাসের চালক ও সহকারী পালিয়ে গেছেন। এদিকে পাঁচলাইশ থানা এলাকায় একটি প্রাইভেট কার, নোহা মাইক্রোবাস ও সিএনজি-অটোরিকশার ত্রিমুখী সংঘর্ষে দুইজন মারা যান। তারা হলেনÑ প্রাইভেট কারে থাকা মো. ফারদিন ও সিএনজি-অটোরিকশার চালক মো. হানিফ। ফারদিন নাসিরাবাদ বাটাগলি এলাকার আবুল বশর মিলনের ছেলে ও হানিফ হালিশহরের ব্রিকফিল্ড এলাকার মো. মুস্তফার ছেলে।
গোপালগঞ্জ : মুকসুদপুর উপজেলার প্রভাকরদীতে বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে লাশ হলো পাপড়ী দাস নামে এক শিশু। গোপালগঞ্জে মামাবাড়ি বেড়াতে এসে রোববার সকালে ঢাকা-খুলনা মহাসড়কের গোপালগঞ্জে এ দুর্ঘটনা ঘটে। সে ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার তালতলা মহিলা রোড এলাকার শ্রীবাস দাসের মেয়ে। ভাঙ্গা হাইওয়ে থানার ওসি মাহফুজুর রহমান জানান, নগরকান্দা থেকে মা-বাবার সঙ্গে মামাবাড়ি প্রভাকরদীতে আসছিল পাপড়ী। এ সময় মহাসড়ক পার হতে গিয়ে দ্রুতগামী একটি বাস পাপড়ীকে চাপা দিলে ঘটনাস্থলে সে মারা যায়।
ভাঙ্গা : ফরিদপুরের ভাঙ্গা উপজেলায় বামনকান্দা এলাকায় সড়ক দুর্ঘটনায় দুইজন মারা গেছেন। খুলনাগামী ফালগুনি পরিবহনের সঙ্গে দাঁড়িয়ে থাকা পাথরভর্তি ট্রাকের পেছনে ধাক্কা দিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহতরা হলেনÑ হেলপার অহিদুল ইসলাম ও মো. নজরুল ইসলাম। 
সাভার : সাভারে ট্রাকচাপায় এক পোশাক শ্রমিক হারিয়েছেন তার পা। ঘাতক ট্রাক ও তার চালক পালিয়ে গেলেও হাসপাতালের বিছানায় মৃত্যুর প্রহর গুনছেন হাসিনা বেগম নামে ওই শ্রমিক। তিনি সাভারের গেন্ডা এলাকায় ডাইনামিক সোয়েটার কারখানার হেলপার পদে কর্মরত। তিনি বনপুকুর এলাকায় খালেকের বাসায় একটি কক্ষে পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকতেন।