আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৬-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

দিনাজপুরে সিইসি

নির্বাচনে গাফিলতি বরদাশত করব না

দিনাজপুর প্রতিনিধি
| শেষ পাতা

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচন 

কমিশন সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। নির্বাচনকালীন যে কোনো ধরনের সহিংসতা ও বাধা সৃষ্টির 
অপচেষ্টা কঠোর হস্তে দমন করা হবে। নির্বাচনি কাজে নিয়োজিত ব্যক্তিদের গাফিলতি ও অবহেলা বরদাশত করা হবে না। মঙ্গলবার বিকালে দিনাজপুর জেলা প্রশাসকের হলরুমে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের সঙ্গে রুদ্ধদ্বার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।
সিইসি বলেন, জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, বিজিবি, র‌্যাব, আনসার বাহিনীর সদস্য এবং নির্বাচন কমিশনের জেলা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সমন্বয় বৈঠকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে ব্যাপক আলোচনা হয়েছে। মতামত পর্যালোচনা করে মাঠ পর্যায়ে যারা ভোটগ্রহণ এবং নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকবেন, তাদের চাহিদা অনুযায়ী নির্বাচন সংক্রান্ত সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হবে। তিনি বলেন, একজন ভোটার ভোটকেন্দ্রে গিয়ে তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিয়ে যেন নিরাপদে বাড়ি ফিরতে পারেন, সেজন্য আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা সতর্ক অবস্থায় থাকবেন। নির্বাচনকালীন দায়িত্বে নিয়োজিত কর্মকর্তাদের ভোটগ্রহণের সময় কোনো গাফিলতি, অনিয়ম, অবহেলা ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কোনো ধরনের অনিয়ম ও গাফিলতি সহ্য করা হবে না।
ইভিএম ব্যবহার প্রসঙ্গে সিইসি বলেন, নতুন আইন প্রণয়ন করে ইভিএম ব্যবহারের ব্যাপারে পরবর্তী সময়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ের উন্নয়ন মেলায় নির্বাচন কমিশনের স্টল থেকে ভোটারদের ইভিএম ব্যবহারের ব্যাপারে হাতে-কলমে ভোট দেওয়ার পদ্ধতি শেখানো হবে। জাল ভোট ও ব্যালট ছিনতাইয়ের মতো অপরাধ দমনে ইভিএম একটি কার্যকর আধুনিক প্রযুক্তিতে ভোটদানের ব্যবস্থা। তিনি বলেন, ৩১ ডিসেম্বর থেকে ২৮ জানুয়ারি পর্যন্ত একাদশ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এ সময়ের মধ্যে তফসিল ঘোষণা করা হবে।
জেলা প্রশাসক ড. আ ন ম আবদুছ ছবুরের সভাপতিত্বে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে বক্তব্য রাখেন নির্বাচন কমিশনের যুগ্ম সচিব খন্দকার মিজানুর রহমান, পুলিশ সুপার সৈয়দ আবু সায়েম, বিজিবি ব্যাটালিয়ন কমান্ডার লে. কর্নেল মোর্শেদুর রহমান, র‌্যাব ১৩ ক্যাম্প কমান্ডার মেজর সোহেল হোসেন, আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা (রংপুর) জিএম সাহাদাম হোসেন, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহফুজ্জামান আশরাফ, সদর সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুশান্ত সরকার, ভারপ্রাপ্ত আনসার অ্যাডজুটেন্ট মোতালেব হোসেন, ডিজিএফআই’র উপপরিচালক জুলফিকার রহমান, এনএসআই উপপরিচালক মঞ্জুরুল ইসলাম মামুন, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. দেলোয়ার হোসেন, বীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তোফাজ্জল হোসেন, ফুলবাড়ী থানার ওসি শেখ নাসিম হাবিব এবং সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জাহিদ ইবনে ফজল। এর আগে সিইসি জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কার্যালয়ের অডিটরিয়ামে জেলা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেন।