আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৬-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

সড়ক দুর্ঘটনা চট্টগ্রাম ও কুষ্টিয়ায় নিহত ৮

আলোকিত ডেস্ক
| শেষ পাতা

দুই জেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছেন আটজন। মঙ্গলবারের এসব ঘটনায় চট্টগ্রামে রেলওয়ের নিরাপত্তা কর্মীসহ ছয়জন এবং কুষ্টিয়ায় নসিমনের হেলপার ও এক শিশু মারা গেছে। ব্যুরো ও প্রতিনিধির খবরÑ

চট্টগ্রাম : মহানগরীতে এবং মিরসরাই উপজেলায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় ছয়জন মারা গেছেন। ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের উপজেলার জোরারগঞ্জ থানার ঠাকুরদীঘি এলাকায় রাস্তায় দাঁড়ানো অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কায় পাঁচজনের মৃত্যু হয় এবং নগরীর খুলশীতে বাসের ধাক্কায় রেলওয়ের এক নিরাপত্তা কর্মী মারা যান। স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মহাসড়কের পাশে দাঁড়ানো ছিল দুটি অটোরিকশা। ঢাকা অভিমুখী একটি দ্রুতগামী ট্রাক নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ওই দুই অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশা দুটি দুমড়ে-মুচড়ে গিয়ে ভেতরে আটকা পড়েন চারজন। আরও দুইজন ট্রাকের নিচে চাপা পড়েন। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। ফায়ার সার্ভিসের চট্টগ্রামের উপসহকারী পরিচালক জসিম উদ্দিন বলেন, দুমড়ে-মুচড়ে যাওয়া অটোরিকশার ভেতর থেকে চার লাশ উদ্ধার করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। আরও দুইজনকে আহত অবস্থায় স্থানীয় হাসপাতালে নেওয়া হয়। তাদের মধ্যে একজন মারা গেছেন। মৃত চারজন হলেনÑ অটোরিকশার চালক শাহআলম ও দিদারুল আলম, শিক্ষানবীশ চালক কামরুল এবং যাত্রী মহিউদ্দিন। এছাড়া লিটন নামে আরও এক যুবক মারা গেছেন। মোশাররফ নামে একজন আহত হয়েছেন বলে জানান ফায়ার সার্ভিসের এ কর্মকর্তা। জোরারগঞ্জ হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এসআই টিপু সুলতান জানান, একটি ট্রাকের চাকা পাংচার হয়ে যায়। এ সময় চালক নিয়ন্ত্রণ হারালে ট্রাকটি উল্টে গিয়ে রাস্তার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা সিএনজি অটোরিকশার ওপর পড়ে। এতে হতাহতের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে পুলিশ যাওয়ার আগেই লাশ স্বজনরা নিয়ে যান। এদিকে খুলশী থানার চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে দেশ ট্রাভেলস গাড়ির ধাক্কায় রেলওয়ের এক নিরাপত্তা কর্মী মারা যান। দুর্ঘটনার পর নিরাপত্তা কর্মী আবদুল আজিজকে উদ্ধার করে চমেক হাসপাতালে আনার এক ঘণ্টা পর তিনি মারা যান। আজিজ কুমিল্লার কোতোয়ালি থানার কাপ্তানবাজারের রশিদ আহমেদের ছেলে।
কুষ্টিয়া : ভেড়ামারায় ও ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় এক শিশুসহ দুইজন মারা গেছে। শহরের চার রাস্তার মোড়ে নসিমন উল্টে হেলপার মারা গেছেন। ভেড়ামারা থানার ওসি আমিনুল ইসলাম জানান, যাত্রী ও মালামাল নিয়ে পাবনা থেকে নসিমনটি ভেড়ামারার চার রাস্তার মোড়ে উল্টে যায়। নসিমনের অজ্ঞাত হেলপারকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। অপরদিকে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় থানার ওসি রতন শেখ জানান, ইবি থানার মধুপুর ইটভাটার বাজারে রাস্তা পারাপারের সময় বাইকের ধাক্কায় সুমাইয়া নামে ৬ বছরের এক শিশু ঘটনাস্থলেই মারা যায়। সে মধুপুর এলাকার আছানুর রহমানের মেয়ে।