আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৭-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

সমালোচিত মেসি, রোনালদো

স্পোর্টস ডেস্ক
| খেলা

উয়েফার পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত থাকায় সমালোচনা হয়েছিল ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর। সোমবার লন্ডনে রয়্যাল ফেস্টিভ্যাল হলে ফিফার অনুষ্ঠানেও আসেননি রোনালদো। বার্সেলোনার সংবাদ মাধ্যম খবর করেছিল, বর্ষসেরার চূড়ান্ত তিনজনে নাম না থাকলেও লিওনেল মেসি ফিফার অনুষ্ঠানে থাকবেন এবং সৌজন্যতাবোধে রোনালদোকে ছাপিয়ে যাবেন। বাস্তবে দেখা গেল শুধু রোনালদো নয়, ফিফার অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত থাকলেন মেসিও, যা নিয়ে উত্তাল ফুটবল মহল। মারাত্মক হতাশ ফিফাও। ফিফার এক কর্তা তো বলেই ফেললেন, ‘ফুটবলকে অসম্মান করলেও সেটা বোঝার মতো অনুভূতি ওদের নেই।

১০ বছর সেরার পুরস্কারটা ভাগ করে নিয়েছেন মেসি আর রোনালদোই। অথচ দুজনের কেউই লন্ডনে লুকা মডরিচের সেরার পুরস্কার নেওয়া দেখলেন না। বার্সেলোনা ক্লাবের একটি সূত্র জানায়, মেসির যাওয়া নিশ্চিত ছিল। কিন্তু শেষ মুহূর্তে ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে লন্ডন যাত্রা বাতিল করেন। আর রোনালদো নাকি জুভেন্টাসে জানিয়েছেন, ঠাঁসা সূচির জন্য লন্ডন যাওয়ার ধকল নেওয়া তার পক্ষে সম্ভব হয়নি।
মেসি বা রোনালদো যে যুক্তিই দিন, সাবেকরা কিন্তু তাদের সমালোচনাই করেছেন। ইতালির কিংবদন্তি কোচ ফাবিয়ো কাপেলো যেমন বলেন, ‘হতে পারে ওরা অনেক পুরস্কার জিতেছে। হয়তো পুরস্কার না পাওয়াটা ওরা নিতে পারেনি। কিন্তু একজন সত্যিকারের মানুষকে জীবনে সব সময়ই একই রকম ভালো থাকতে হয়। পুরস্কার জিতলেও। না জিতলেও।’
এদিকে, বর্ষসেরার পুরস্কার নিয়ে মডরিচের প্রতিক্রিয়া ছিল ‘এটা ঘটনা, ক্রিশ্চিয়ানো আর মেসির গোল করার ব্যাপারে অবিশ্বাস্য দক্ষতা রয়েছে। সন্দেহ নেই ফুটবলে গোল খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার। কিন্তু পুরো মৌসুম ধরে ভালো খেলার জন্য অন্য ফুটবলারদেরও স্বীকৃতি দেওয়া উচিত। আমি খুশি এবার অন্তত সেটা হওয়ায়।’ সঙ্গে মডরিচ অবশ্য জানিয়েছেন, এ পুরস্কারের চেয়েও বেশি খুশি হতেন রাশিয়ায় বিশ্বকাপ জিততে পারলে।
এদিকে, মানুষ জানতে চানÑ বিশ্বসেরা বাছার ক্ষেত্রে মেসি ও রোনালদো কাকে ভোট দিয়েছেন। মেসি সেরা বেছেছিলেন মডরিচকই। তার বিচারে দ্বিতীয় ও তৃতীয় সেরা কিলিয়ান এমবাপে এবং রোনালদো। আর পর্তুগিজ তারকার প্রথম পছন্দের ভোট পেয়েছেন রাফায়েল ভারানে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় পছন্দের ফুটবলার মডরিচ ও গ্রিজমান। মেসি তাকে প্রথম তিনে রেখেছিলেন। কিন্তু রোনালদো বর্জন করেছেন মেসিকে।