আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৭-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

বিশেষজ্ঞ সভা ৩০ সেপ্টেম্বর

পদ্মা সেতুর স্প্যানে বসল রেলওয়ে সø্যাব

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি
| প্রথম পাতা

পদ্মা সেতুর স্প্যানে বসানো হচ্ছে রেলওয়ে সø্যাব ষ আলোকিত বাংলাদেশ

পদ্মা সেতুর স্প্যানের ওপর এবার বসল রেলওয়ে সø্যাব। এ কার্যক্রম বেশ জোরেশোরে শুরু হয়েছে। জাজিরা প্রান্তে সেভেন এফ স্প্যানের ওপর এরই মধ্যে প্রথম সেকশনে একটি সø্যাব বসিয়েছে দেশি-বিদেশি প্রকৌশলীরা। মঙ্গলবার সকাল থেকেই মুন্সীগঞ্জের লৌহজং উপজেলার কুমারভোগ কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে সø্যাবগুলো জাজিরা প্রান্তে নিয়ে আসা হয়। সø্যাব বসানোর কার্যক্রম শুরু হয় জাজিরা প্রান্তে। পৌনে এক কিলোমিটার দৃশ্যমান স্প্যানে এসব সø্যাব বসবে। একেকটি স্প্যানে আটটি সেকশনে আটটি করে মোট ৬৪টি সø্যাব বসবে। সেই সঙ্গে প্রতি জয়েন্টে বসবে আটটি করে সø্যাব। প্রতিটি স্প্যানে জয়েন্টসে মোট ৭২টি রেলওয়ে সø্যাব বসবে। ৭এফ স্প্যানে অর্থাৎ সেতুর সর্বশেষ প্রান্তে ৪১ ও ৪২ নম্বর খুঁটির স্প্যানের একটি সেকশনে আটটি স্প্যান বসানো হয়েছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র নিশ্চিত করেছে। এদিকে পদ্মা সেতুর বিশেষজ্ঞ সভা শুরু হচ্ছে ৩০ সেপ্টেম্বর। নানা কারণেই প্যানেল অব এক্সপার্টদের এ সভাটি গুরুত্বপূর্ণ। তিন দিনের এ সভাটি শেষ হবে ২ অক্টোবর।
দায়িত্বশীল প্রকৌশলীরা জানিয়েছেন, ৮ টন ওজনের একেকটি সø্যাবের দৈর্ঘ্য ২ মিটার এবং প্রস্থ ৫ দশমিক ১৫ মিটার। মঙ্গলবার প্রথমে সø্যাব বহনকারী ভসমান ক্রেনটিকে ৪১ ও ৪২ নম্বর পিলার বরাবর নির্ধারিত স্থানে রাখা হয়। এরপর সুবিধাজনক উচ্চতায় উঠিয়ে স্ট্রিংগার বিমসহ স্প্যানের ওপর রাখা হয়। সø্যাব বসানো শেষে সø্যাবের মধ্যবর্তী স্থানে কনক্রিট ঢালাইয়ের কাজ করা হবে। স্প্যানের ওপর রাখার আগে লোডটেস্টসহ বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে। মাওয়া প্রান্তে ৭ শতাধিক সø্যাব প্রস্তুত রয়েছে। জাজিরা প্রান্তে এখন যে ছয়টি পিলারে পাঁচটি স্প্যান বসানো হয়েছে, তাতে রেলওয়ে সø্যাব বসানো হচ্ছে। এছাড়া স্ট্রিংগার বসানো হবে সø্যাবের সঙ্গেই। এরই মধ্যে সেতুর ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০, ৪১ ও ৪২ নম্বর পিলারের ওপর পাঁচটি স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে জাজিরা প্রান্তে সেতুর পৌনে এক কিলোমিটার কাঠামো দৃশ্যমান হয়েছে। এদিকে, পদ্মা সেতুর বিশেষজ্ঞ সভা শুরু হচ্ছে ৩০ সেপ্টেম্বর। নানা কারণেই প্যানেল অব এক্সপার্টদের এ সভাটি গুরুত্বপূর্ণ। তিন দিনের এ সভাটি শেষ হবে ২ অক্টোবর। বিদেশি পাঁচ বিশেষজ্ঞসহ সব বিশেষজ্ঞ এ সভায় যোগ দিচ্ছেন। এ সভা ঘিরে তাই চলছে নানা প্রস্তুতি।
প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে এ সেতুর কাজ শুরু হয়। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর বসানো হয় প্রথম স্প্যানটি। এর প্রায় চার মাস পর চলতি বছরের ২৮ জানুয়ারি দ্বিতীয় স্প্যানটি বসে। এর মাত্র দেড় মাস পর ১১ মার্চ শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে ধূসর রঙের তৃতীয় স্প্যানটি বসানো হয়। এর দুই মাস পর ১৩ মে বসে চতুর্থ স্প্যান আর পঞ্চম স্প্যানটি বসে এর এক মাস ১৬ দিনের মাথায়। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুতে ৪২টি পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। কনক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত এ পদ্মা বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা।