আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৯-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

সাপের দ্বীপ!

আলোকিত ডেস্ক
| শেষ পাতা
একটা দ্বীপজুড়ে কোনো মানুষের বসতি নেই। তেমন কোনো প্রাণীও নেই সেখানে। তবে পাখিদের বিচরণ আছে। কিন্তু পাখিরা তো আর ওই দ্বীপে থাকে না। সেখানে থাকে সাপ। পুরো দ্বীপে বসবাস পৃথিবীর অন্যতম বিষধর এক ধরনের সাপের। মাটিতে হোক বা গাছের শাখায়Ñ সবখানেই সাপ; হাজার হাজার সাপ। বলাইবাহুল্য, এটা ব্রাজিলের সাও পাওলো প্রদেশের মূল ভূখ- থেকে ৩৩ কিলোমিটার দূরে ইলহা দা কুয়েমাদা গ্র্যান্ডি দ্বীপ। আন্টলান্টিক মহাসাগরের বুকে এ দ্বীপে অসংখ্য সাপের বিচরণ থাকায় এটা ‘স্ন্যাক আইল্যান্ড’ বা সাপের দ্বীপ নামেই বেশি পরিচিত। সাপের ভয়ে ওই দ্বীপে ঘুরতে যেতে চান না পর্যটকরা। আকারে খুব বড় নয় এ দ্বীপ; মাত্র ৪ লাখ ৩০ হাজার স্কয়ার মিটার (১১০ একর)। রয়েছে বিভিন্ন ধরনের গাছপালা। সেই সঙ্গে ভয়ংকর সোনালি রঙের ওই সাপ। বিজ্ঞানের ভাষায় এদের বলা হয় ‘বথ্রোপস ইনসুলারিস’। দ্বীপের সবুজ গাছগাছালিতে যেসব ছোট আকারের পাখি এসে বসে, সেই পাখিগুলোই এদের খাবার। ধারণা করা হয়, দ্বীপটিতে ৪ লাখ ৩০ হাজার সাপের বাস। দ্বীপজুড়ে এত সাপ থাকার পরও এরা নাকি অস্তিত্ব বিলুপ্তির হুমকিতে আছে! জানা যায়, সোনালি রঙের এ সাপ ব্রাজিলের ওই দ্বীপে থাকলের বিশ্বের অন্য স্থানগুলোয় এদের তেমন দেখা যায় না। এ কারণেই এরা বিলুপ্তির মুখে। বিষাক্ত এ সাপ ছাড়াও দ্বীপটিতে বাস করে ডিপসাস আলবিফ্রন্স নামের আরেক ধরণের সাপ। তবে এরা বিষাক্ত নয়। সূত্র : উইকিপিডিয়া