আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ৩০-০৯-২০১৮ তারিখে পত্রিকা

৬০০ মন্ডপে চলছে নানা প্রস্তুতি

বরিশালে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত মৃৎশিল্পীরা

বরিশাল ব্যুরো
| শেষ পাতা

দুর্গোৎসব উপলক্ষে বরিশাল জেলার ৬০০ ম-পে চলছে নানা প্রস্তুতি। ম-পে ম-পে প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন মৃৎশিল্পীরা। প্রতিমা আকর্ষণীয় করাতে দিনভর শ্রম দিয়ে যাচ্ছেন কারিগররা। আয়োজকরা আশা করছেন, এবার পূজা বেশ জাঁকজমকভাবেই সম্পন্ন হবে। 

জানা গেছে, বরিশাল জেলায় ৫৬২ এবং মহানগরে ৩৮ ম-পে দুর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। নগরীর জগন্নাথ দেবের মন্দির, ফলপট্টি নতুন বাজার, শ্রী শ্রী শংকর মঠ, কাটপট্টি, বাজার রোড এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে ব্যস্ত মৃৎশিল্পীরা। নতুন আঙ্গিকে এবারে প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন তারা। অনেকে বাঙালি সাজে মা দুর্গাকে সাজিয়ে তোলার চেষ্টা করছেন। নগরীর সদর রোডের জগন্নাথ দেবের মন্দিরের পূজা উদযাপন কমিটির কোষাধ্যক্ষ গোপাল সাহা বলেন, দুর্গা প্রতিমা তৈরিতে তারা ফরিদপুর থেকে সুজন পাল নামের কারিগরকে এনেছেন। তিনি ভিন্ন আঙ্গিকে প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন। নগরীর শ্রী শ্রী শংকর মঠ মন্দিরে দুর্গা প্রতিমার কারিগর বাকেরগঞ্জের কলসকাঠি এলাকার সুমন পাল জানান, এবারে প্রতিমা তৈরিতে যেমন খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে তেমনি কাজও আকর্ষণীয় করার চেষ্টা করছেন। নতুন ডিজাইন যুক্ত করা হচ্ছে প্রতিমা তৈরিতে। শংকর মঠ পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি কিশোর কুমার দে জানান, দুর্গা পূজা আকর্ষণীয় করতে প্রধান টার্গেট থাকে মা দুর্গার প্রতিমাটি। প্রতিমা তৈরির মধ্য দিয়েই সব ধরনের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। তাই প্রতিমা তৈরিতে কারিগরদের সেই ধরনের নির্দেশনা দেওয়া রয়েছে।

এ বছর বরিশাল বিভাগের সবচেয়ে বেশি পূজা ম-প তৈরি হচ্ছে আগৈলঝাড়া উপজেলায়। প্রতিমা তৈরিতে মহাব্যস্ত সময় পার করছেন আগৈলঝাড়ার পাল পাড়ার মৃৎশিল্পীরা। উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের কুয়াতিয়ারপাড় গ্রামের সার্বজনীন দুর্গা পূজা মন্দিরে প্রতিমা নির্মাণের সময় কথা হয় উপজেলার উত্তর শিহিপাশা গ্রামের পালপাড়ার প্রতিমা নির্মাণ শিল্পী গৌরাঙ্গ পালের সঙ্গে। তিনি জানান, তাদের গ্রামে ১৭টি পরিবারের মধ্যে ৪০ জন পুরুষ শিল্পী ও অন্তত ৩০ জন নারী শিল্পী রয়েছেন। নারীদের শিল্প কাজে রয়েছে নিপুন দক্ষতা। পুরুষ শিল্পীদের পাশাপাশি পাল পাড়ার প্রত্যেক নারীরাই মাটির তৈরি শিল্প কাজে নিয়োজিত রয়েছেন। বিশেষ করে প্রতিমার মুখম-ল তৈরির নিপুন কাজে নারী শিল্পীরা খুবই দক্ষ। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপুল চন্দ্র দাস জানান, উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়নে ১৪৭টি পূজা ম-পে পূজার প্রস্তুতি চলছে। বরিশাল মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক স্বপন কর জানান, বরিশাল মহানগর ও জেলার প্রতি মন্দিরেই কাজ চলছে। এবার পূজা জাঁকজমকভাবেই অনুষ্ঠিত হবে বলে তার ধারণা। একইভাবে জেলার উজিরপুর, বানারীপাড়া, বাকেরগঞ্জ, মেহেন্দীগঞ্জে শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে প্রস্তুতি চলছে।