আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২৪-০৪-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

প্রাক বাজেট আলোচনায় এনবিআর চেয়ারম্যান

জনগুরুত্বপূর্ণ খাতে ভ্যাটের হার ১০ শতাংশের নিচে

নিজস্ব প্রতিবেদক
| অর্থ-বাণিজ্য

পোল্ট্রি শিল্পে শুল্ক বৈষম্য কমানো হবে। বিশেষ করে ফিড তৈরির উপকরণ সয়াবিন খৈলের শুল্ক কমানোর বিষয়টি ভেবে দেখবে এনবিআর। এছাড়া আগামী বাজেটে জনগুরুত্বপূর্ণ খাতে ভ্যাটের হার ১০ শতাংশের নিচে রাখা হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া। মঙ্গলবার এনবিআর সম্মেলন কক্ষে প্রাক-বাজেট আলোচনায় এসব কথা বলেন তিনি।
এসডিজি বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে পোল্ট্রি শিল্পের উন্নয়নের বিকল্প নাই। দেশের মানুষের কর্মসংস্থান এবং প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করছে পোল্ট্রি খাত। শুল্কমুক্ত সুবিধা পেলে তা আরও দ্রুতগতিতে বাড়বে। এজন্য পোল্ট্রি শিল্পের জন্য ২০৩০ সাল পর্যন্ত কর অব্যাহতির দাবি জানিয়েছে এ খাতের উদ্যোক্তারা। সাশ্রয়ী মূল্যে নিরাপদ ডিম ও মুরগির মাংস উৎপাদন, কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি এবং পোল্ট্রি পণ্য রপ্তানির মাধ্যমে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে কর অব্যাহতি চাওয়া হয়েছে।
সভায় ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এহতেশাম বি. শাহজাহান বলেন, বিশ্বের বড় বড় দেশগুলোতে যেখানে পোল্ট্রি ও ফিশ ফিড তৈরির অত্যাবশ্যকীয় কাঁচামাল নিজ দেশে উৎপাদিত হওয়ার পরও খামারিদের ভর্তুকি দেওয়া হচ্ছে, সেখানে আমাদের দেশে ভুট্টা, সয়াবিন মিল, ওষুধসহ বেশির ভাগ কাঁচামাল আমদানিনির্ভর হওয়া সত্ত্বেও এ খাতের ওপর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ করের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। শিল্পসংশ্লিষ্টরা যেহেতু ২০২৫ সালের মধ্যেই রপ্তানি শুরু করতে চান এবং ২০৩০ সাল নাগাদ বিশ্ববাজারে একটা শক্ত অবস্থান তৈরি করতে চান, তাই ২০৩০ সাল পর্যন্ত সব ধরনের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ কর থেকে অব্যাহতি জরুরি।
তিনি আরও বলেন, জাতিসংঘের হিসাব মতে দেশের জনসংখ্যা বর্তমানে প্রায় ১৬ কোটি ৭৭ লাখের ওপরে। সে হিসাবে দেশের ডিম ও মুরগির মাংসের উৎপাদন ব্যয় প্রায় ২.৭ বিলিয়ন ডলার। দেশীয় পোল্ট্রি শিল্প গড়ে না উঠলে প্রতি বছর এ বিশাল অংকের বৈদেশিক মুদ্রা খরচ করতে হতো ডিম ও মুরগির মাংস আমদানির পেছনে। সরকার চাচ্ছে ২০২১ সালের মধ্যে মাথাপিছু ডিমের বার্ষিক উৎপাদন ৯০ থেকে বাড়িয়ে ন্যূনতম ১০৪টিতে এবং মাংসের উৎপাদন ৬.৫ কেজি থেকে বাড়িয়ে ৭.৫ কেজিতে উন্নীত করতে। সেটি করতে হলে ঠিক এ মুহূর্তে চাহিদা ও জোগানের যে চিত্র তাতে বছরে অন্তত ২৩৪ কোটি ৮২ লাখ ডিম এবং ১ লাখ ৮৫ হাজার টন মুরগির মাংসের উৎপাদন বাড়াতে হবে। আর যদি রপ্তানিতে যেতে হয় তবে বছরে অন্তত ১২০০ কোটি ডিম ও ৮ লাখ টন মুরগির মাংসের উৎপাদন বাড়াতে হবে।
তিনি আরও বলেন, মিট অ্যান্ড বোন মিলের আমদানি বন্ধ হওয়ায় ভেজিটেবল সোর্স থেকে উৎপাদিত প্রোটিন মিল ব্যবহার করতে হচ্ছে। এতে খরচ বাড়ছে। তাই সব ধরনের ভেজিটেবল প্রোটিন ও ভেজিটেবল সোর্স থেকে উৎপাদিত প্রোটিন মিল/প্রোটিন কনসেনট্রেট, সি-ফুড মিল, পোল্ট্রি মিলের আমদানি শুল্ক শূন্য করার দাবি করছি। ভুট্টা আমদানির ওপর থেকে ৫ শতাংশ অগ্রিম আয়কর, সয়াবিন অয়েল কেক আমদানির ক্ষেত্রে ৫ শতাংশ রেগুলেটরি ডিউটি, কাসাব আমদানিতে ১৫ শতাংশ কাস্টমস ডিউটি, ১০ শতাংশ রেগুলেটরি ডিউটি, ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ৫ শতাংশ এআইটি ও ৫ শতাংশ এটিভি, কটনসিড মিল ও পাম কারনেল মিলের ওপর ৫ শতাংশ কাস্টমস ডিউটি ও ৫ শতাংশ অগ্রিম ভ্যাট (এটিভি) প্রভৃতি উপকরণ শূন্য শুল্কে আমদানি সুবিধার দাবি করছি।
এনবিআর চেয়ারম্যান মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে আরও আলোচনা করব। এরপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে আসলে ভ্যাট মওকুফ করা যাবে কিনা। আর ভ্যাট মওকুফ করলে আসলে প্রান্তিক খামারিরা সুবিধা পাবেন কিনা সেটাও ভেবে দেখতে হবে।
বৈঠকে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ফিড ইন্ডাস্ট্রিজ অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি ফজলে রহিম খান শাহরিয়ার, সাংগঠনিক সচিব মো. আনোয়ারুল হক, ব্রিডার্স অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক আসিফুর রহমান, আহকাব সভাপতি ডা. নজরুল ইসলাম, বিপিআইএর মহাসচিব ডা. এমএম খান, বিপিআইসিসির সচিব দেবাশিস নাগ, উপদেষ্টা শ্যামল কান্তি ঘোষ প্রমুখ।