আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৬-০৫-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ

মমতার নির্বাচনি প্রচারে নিষেধাজ্ঞা দাবি বিজেপির

আলোকিত ডেস্ক
| আন্তর্জাতিক

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে লোকসভা নির্বাচনের প্রচার প্রক্রিয়ার বাইরে রাখার দাবি তুলল বিজেপি। বিজেপির দাবি, সাংবিধানিক পদে থেকেও অসাংবিধানিক মন্তব্য করে চলেছেন মমতা এবং সরাসরি সহিংসতার মাধ্যমে নিজের দলের কর্মী-সমর্থকদের বদলা নেওয়া নিদান নিচ্ছেন তিনি। এসব কারণে তার ভোট-প্রচার প্রক্রিয়ায় অংশ থাকার কোনো নৈতিক যোগ্যতা নেই। নিজেদের দাবি সামনে রেখে দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনে যায় বিজেপি। প্রতিনিধি ছিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী নির্মলা সীতারামন থেকে শুরু করে মুক্তার আব্বাস নকভিসহ আরও কয়েকজন। পরে নকভি বলেন, মমতা পদের অপব্যবহার করছেন। তৃণমূল কর্মীদের সহিংসতায় উন্মত্ত হতে উৎসাহ দিচ্ছেন। সাংবিধানিক পদে বসে অসাংবিধানিক মন্তব্য করছেন তিনি। নির্বাচনের প্রচার প্রক্রিয়া থেকে মমতাকে বাইরে রাখা প্রয়োজন বলে মনে করেন মোদির মন্ত্রিসভার এ সদস্য। তৃণমূলের গুন্ডারা পশ্চিমবঙ্গের প্রশাসনকে হাইজ্যাক করেছে। আর তাই এখন পশ্চিমবঙ্গে প্রশাসনকে পাশে নিয়েই সন্ত্রাস হচ্ছে বলে দাবি করেন তিনি। ১৯ মে লোকসভা নির্বাচনের শেষ দফার ভোটগ্রহণ হবে। শেষ দফা ভোটের প্রচারে মমতাকে নিষিদ্ধ করার দাবিতে নির্বাচন কমিশনের কাছে দরবার করার পাশাপাশি দিল্লিতে প্রতিবাদ কর্মসূচিও নিয়েছে গেরুয়া শিবির। 

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনায় মোদি : নিজের ছায়াকেই ভয় পান পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। পশ্চিমবঙ্গে এসে এই ভাষাতেই মমতাকে আক্রমণ করলেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। এই দুজন একে অপরকে তীব্র আক্রমণ করে চলেছেন। বুধবার পশ্চিমবঙ্গে এসে সেই ধারাই বজায় রাখলেন মোদি। একদিন আগেই বিজেপি সভাপতি অমিত শাহর সভা ঘিরে কলকাতায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে। মোদি বলেন, বাংলায় গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে এখানকার মানুষ সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন। তাদের মধ্যে যে উৎসাহ এবং উত্তেজনা তৈরি হয়েছে তা গোটা দেশ দেখছে। মমতার গু-াদের সামনে দাঁড়িয়ে লড়ছেন এখানকার মানুষ। আর তার জন্যই রাজ্য থেকে ক্ষমতাচ্যুত হবেন মুখ্যমন্ত্রী। মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, মনে রাখবেন রাজ্যের প্রধান হওয়া একটি অতি গুরুদায়িত্ব। অত্যন্ত সম্মানের এই পদ। আর সেখানে বসে ক্ষমতার নেশায় আপনি গণতন্ত্রকেই শেষ করছেন। চিটফান্ডের প্রসঙ্গ তুলে ধরে মোদি বলেন, চিটফান্ডের নামে আপনি গরিব মানুষের পয়সা লুঠ করেছেন, আপনি দুর্নীতিপরায়ণদের আশ্রয় দেন।