আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৬-০৫-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

ঈদযাত্রা

প্রতিদিন ২৭ হাজার ট্রেনের টিকিট

| প্রথম পাতা

নিজস্ব প্রতিবেদক : আসন্ন ঈদুল ফিতরের অগ্রিম ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু হবে ২২ মে। কমলাপুরসহ রাজধানীর পাঁচটি জায়গা থেকে এ টিকিট দেওয়া হবে। প্রতিদিন প্রায় ২৭ হাজার টিকিট দেওয়া হবে, যার অর্ধেক পাওয়া যাবে মোবাইল অ্যাপস থেকে আর বাকি অর্ধেক কাউন্টার থেকে সংগ্রহ করতে হবে। বুধবার দুপুরে রেলওয়ে ভবনে এক

সংবাদ ব্রিফিংয়ে ঈদ উপলক্ষে রেলওয়ের কর্মসূচি সম্পর্কে এসব তথ্য জানান রেলপথমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন। ২২ মে পাওয়া যাবে ৩১ মে’র টিকিট। এছাড়া ২৩ মে ১ জুনের, ২৪ মে ২ জুনের, ২৫ মে ৩ জুনের এবং ২৬ মে ৪ জুনের টিকিট দেওয়া হবে। ঈদের সম্ভাব্য তারিখ ৫ জুন ধরে এ টিকিট দেওয়া হবে। টিকিট কেনার জন্য জাতীয় পরিচয়পত্র প্রদর্শন বাধ্যতামূলক। একজন যাত্রী সর্বোচ্চ চারটি টিকিট নিতে পারবেন। প্রত্যেক বিক্রয়কেন্দ্রে নারীদের জন্য একটি করে আলাদা কাউন্টার থাকবে। রাজধানীর কাউন্টারগুলোর মধ্যে কমলাপুর থেকে দেওয়া হবে সমগ্র পশ্চিমাঞ্চলগামী ট্রেন টিকিট ভায়া যমুনা সেতু। বিমানবন্দর কাউন্টার থেকে দেওয়া হবে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সব আন্তঃনগরের টিকিট। তেজগাঁও রেলস্টেশনে পাওয়া যাবে ময়মনসিংহ, জামালপুরগামী সব আন্তঃনগরের টিকিট। বনানী থেকে দেওয়া হবে নেত্রকোনাগামী মোহনগঞ্জ ও হাওর এক্সপ্রেস ট্রেনের টিকিট। ফুলবাড়িয়া পুরোনো রেলভবন থেকে দেওয়া হবে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট।
আসন্ন ঈদ উপলক্ষে আট জোড়া বিশেষ ট্রেন চলাচল করবে। ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা রুটে ২ থেকে ৪ জুন এবং ৬ থেকে ১২ জুন চলবে দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশাল এক জোড়া ট্রেন। আর চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম রুটে ২ থেকে ৪ জুন এবং ৬ থেকে ১২ জুন চলবে চাঁদপুর ঈদ স্পেশাল দুই জোড়া ট্রেন।
সংবাদ ব্রিফিংয়ে মন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, মোবাইল অ্যাপসে যে ৫০ শতাংশ টিকিট বিক্রি হওয়ার কথা, তা যদি অ্যাপসের মাধ্যমে বিক্রি না হয়, তবে কাউন্টারের মাধ্যমে পাওয়া যাবে। টিকিট কালোবাজারি প্রতিরোধ ও নাশকতা রোধে তারা বিশেষ ব্যবস্থা নিয়েছেন।