আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৬-০৫-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে

বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙচুরের ঘটনায় এফআইআর

কলকাতা প্রতিনিধি
| শেষ পাতা

বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহর রোড শো’র সময় বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার ঘটনায় জোড়া এফআইআর দায়ের হয়েছে। মঙ্গলবার বিকালে কলকাতার বিদ্যাসাগর কলেজে এ মূর্তি ভাঙার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় কলকাতার জোড়াসাঁকো থানায় বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরা। অন্যদিকে কলকাতার আর্মহার্স্ট স্ট্রিট থানায় মঙ্গলবার মধ্যরাতে অভিযোগ দায়ের করেন বিদ্যাসাগর কলেজের পড়ুয়ারা। দুটি অভিযোগের তীরই বিজেপির দিকে। 

অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে, বিজেপির লোকজন কলেজ চত্বরে ঢুকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে। একই সঙ্গে শিক্ষার্থীদের মারধর এবং শ্লীলতাহানি করা হয়। অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় মামলা দায়ের করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় যারা যুক্ত তাদের কঠোর শাস্তির দাবি তুলেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীরাও। বুধবার সকাল থেকে ওই ঘটনার প্রতিবাদে সত্যাগ্রহ আন্দোলনে বসার হুমকি দিয়েছেন ছাত্রছাত্রীরা। এদিকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে মধ্যরাত থেকেই পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীসহ রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের প্রায় সব নেতানেত্রীই সোশ্যাল মিডিয়ায় তাদের ডিপিতে বিদ্যাসাগরের ছবি লাগিয়েছেন। কভার ফটো প্রতিবাদের ভাষা কালো। 

এদিকে অমিত শাহর রোড শো ঘিরে কলকাতার বিদ্যাসাগর কলেজে তা-বের ঘটনায় সরব হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বিজেপিকে চরম হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার কলকাতা সংলগ্ন বেহালার এক জনসভায় দাঁড়িয়ে মমতা হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙে দিয়েছে। আমরা এটা ছেড়ে দেব না। ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে জবাব নেব, শুনে রাখো বিজেপি। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ মমতা বলেন, অমিত শাহ বাবু নাকি বিরাট নেতা। তার মুখ দেখলেই মানুষ ভয় পায়। উত্তর কলকাতায় মিছিল করতে উত্তরপ্রদেশ, বিহার, ঝাড়খ- থেকে লোক এনেছেন। অমিত শাহর মিছিল যেই শেষ হয়েছে, বিজেপির কিছু গুন্ডা হাতে ডা-া নিয়ে বিদ্যাসাগর কলেজে আগুন লাগিয়েছে, ঈশ্বরচন্দ্রের মূর্তি ভেঙে দিয়েছে। এটা নকশাল আমলেও ঘটেনি। এটা আমাদের লজ্জা। আমরা এটা ছেড়ে দেব না। ইঞ্চিতে ইঞ্চিতে জবাব নেব। মমতা বিজেপিকে কটাক্ষ করে বলেন, তোমরা জানো ঈশ্বচন্দ্র বিদ্যাসাগর কে যিনি নারী শিক্ষার প্রচলন করেছিলেন। যিনি মানুষকে শিক্ষিত করেছিলেন। বিজেপি মিছিল করার নামে বাইরের গুন্ডা এনে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙেছে, আগুন লাগিয়েছে, দাঙ্গা বাধিয়েছে। তাদের কোনো ক্ষমা নেই। মমতা বলেন, এটা দ্বিশত বর্ষ বিদ্যাসাগরের। বাংলার হেরিটেজের গায়ে হাত দিলে আমার থেকে ভয়ঙ্কর কেউ নেই। বুধবার রাজ্যজুড়ে প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দিয়েছেন তিনি। 
এদিকে মঙ্গলবার রাতেই পশ্চিম মেদিনীপুরের ডেবরা এবং চন্দ্রকোনা টাউনে প্রতিবাদ জানায় তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। ডেবরায় ৬ নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে নরেন্দ্র মোদি এবং অমিত শাহর কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়। বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছেন পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন মহল। বুধবার সকাল থেকেই কলকাতা শহরে একাধিক মিছিল বের করেছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও বিভিন্ন সংগঠন। এদিন কলকাতার কলেজ স্কোয়ার থেকে হেদুয়ায় বিদ্যাসাগর মূর্তির পাদদেশ পর্যন্ত প্রতিবাদ মিছিলের ডাক দিয়েছে বামফ্রন্ট। 
এ ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ দাবি করেছেন, তার রোড শো ভ-ুল করতে তৃণমূলের গুন্ডারা হিংসা ছড়িয়েছে। ওই কলেজের ভেতর থেকে কালো ঝা-া নিয়ে বেরিয়ে আসে তৃণমূলের গুন্ডা বাহিনী। পুলিশ নীরব দর্শক ছিল। তৃণমূলের গুন্ডা বাহিনীর সঙ্গে আমাদের কর্মীদের ঝামেলা বাধে। হিংসা লাগিয়ে পদপৃষ্ট করিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস মানুষ মারতে চেয়েছিল। অমিত শাহ দাবি করেন, কলকাতায় বিজেপির রোড শো দারুণ সাড়া পেয়েছে। বহু মানুষ অংশ নিয়েছিল। এটা দেখেই তৃণমূলের গুন্ডা বাহিনী আমাদের মিছিল ভ-ুল করতে মরিয়া হয়ে উঠেছিল। সে কারণেই হামলা চালিয়েছিল। মানুষকে পদপৃষ্ট করে মারার পরিকল্পনা ছিল। অমিত শাহ বলেন, তৃণমূলের কর্মীরাই বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভেঙেছে। কলেজের সদর দরজা বন্ধ থাকায় বিজেপি সমর্থকরা কলেজের ভেতরে কী করে ঢুকবে বলেও প্রশ্ন তোলেন তিনি। তৃণমূলের কর্মীরা বিজেপি কর্মীদের মোটরবাইক পুড়িয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন কমিশন পক্ষপাতিত্ব করছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি। তিনি সাফ বলেন, মমতা ব্যানার্জির দল যে ধরনের হিংসার রাজনীতির আশ্রয় নিচ্ছে তার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। ভারতের লোকসভা নির্বাচনের শেষ দফায় পশ্চিমবঙ্গের মানুষের কাছে হিংসার জবাব দেওয়ার আবেদন রাখেন তিনি। বিজেপির পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, আমরা তো মিছিলের সময় কলেজ ক্যাম্পাসের বাইরে ছিলাম। হোস্টেলের গেট তো বন্ধই ছিল। বিজেপি কর্মীরা তো ভেতরেই ঢোকেনি। কলেজগুলোতে যত গুন্ডা ও বদমায়েশ পুষে রেখেছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জি।
এ ঘটনায় ফেইসবুক, টুইটার প্রোফাইলে বিদ্যাসাগরের ছবি লাগালেন মমতা ব্যানার্জি। এমনকি মমতা ব্যানার্জির দল তৃণমূল কংগ্রেসের অফিসিয়াল সোশ্যাল সাইটের অ্যাকাউন্টেও বিদ্যাসাগরের ছবি প্রোফাইলে ব্যাবহার করা হয়েছে। এদিকে বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার প্রতিবাদে বুধবার পশ্চিমবঙ্গজুড়ে প্রতিবাদ মিছিল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। গলায় বাংলার মনীষীদের ছবি ঝুলিয়ে দলের নেতাকর্মীদের মিছিলে হাঁটার নির্দেশ দেন তিনি।