আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৩-০৬-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

বৃষ্টি নিয়ে আক্ষেপ রোডসের

স্পোর্টস রিপোর্টার
| খেলা

শ্রীলঙ্কা ম্যাচের গণমাধ্যমপর্বে আগে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা বার বার বলছিলেন, যে কোনো মূল্যে চান ম্যাচটা হোক। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়টা পাখির চোখ করেই এসেছিল বাংলাদেশ, শেষ পর্যন্ত বৃষ্টিতে ভেসে গেল ম্যাচ। ১ পয়েন্ট পাওয়ার চেয়ে হারানোর আক্ষেপই মাশরাফিদের। ম্যাচ শেষে গণমাধ্যমপর্বে কোচ স্টিভ রোডসের কণ্ঠেও সেই হতাশার অনুরণন, হতাশার সূরে বলেনও ‘যেভাবে বৃষ্টিতে একের পর এক খেলা প- হচ্ছে, মৌসুম বুঝে এ বিশ্বকাপে রিজার্ভ ডে থাকা দরকার ছিল।

শ্রীলঙ্কার কাছে হারটা স্বাভাবিকভাবেই বেশি আক্ষেপ জাগাবে বাংলাদেশের। বিশ্বকাপে কখনও তাদের বিপক্ষে জয় না পেলেও সাম্প্রতিক রেকর্ড বাংলাদেশের পক্ষেই ছিল। রোডস তাই সরাসরিই বলেন, ‘শ্রীলঙ্কা হেলাফেলা করার মতো দল নয়। তবে আমরা মনে করি ১ পয়েন্ট হারিয়েছি। হতাশাজনক, এ ম্যাচ থেকে ২ পয়েন্ট পাওয়া আমাদের লক্ষ্য ছিল, এখন বাকি ম্যাচগুলো জিততে হবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজের সঙ্গে পরের ম্যাচটি আগে জিততে হবে, এরপর বাকিগুলো। যেটার ওপর আমাদের নিয়ন্ত্রণ নেই, সেটা নিয়ে তো আমরা কিছু করতে পারব না।’
এবারের বিশ্বকাপে বৃষ্টি এমনিই বড় একটা অনুঘটক হয়ে দাঁড়িয়েছে। এখন পর্যন্ত দুইটি ম্যাচে একটি বলও ক্রিজে পড়েনি, ক্রিকেট বিশ্বকাপ ইতিহাসেই আগে কখনও হয়নি। স্বাভাবিকভাবে প্রশ্ন ওঠে, খেয়ালি ইংলিশ আবহাওয়ায় বিশ্বকাপের মতো ম্যাচে রিজার্ভ ডে কি রাখা যেত না? কাজটা কঠিন মেনে নিয়েও রোডস সে কথাই বলেন, ‘আমি সেটাই চাই। ইংলিশ আবহাওয়া আমি চিনি, দুঃখজনকভাবে এ সময় এখানে বৃষ্টি হবেই। কখন আসবে আমরা জানি না। বিশ্বের নানা দেশ থেকে আমার কাছে সবাই জানতে চাইছে, বৃষ্টি থামবে কী না। কিন্তু আমি সেটা বলতে পারব না। এ মুহূর্তে এটা বড় সমস্যা মনে হচ্ছে। জানি আয়োজকদের জন্য এটা অনেক কঠিন। কিন্তু আমাদের তো খেলার মধ্যে কয়েকটা দিন বিরতি আছে। একদিন পরও ভেন্যুতে যেতে হলেও সেটা ভাবা যায়। আমরা মানুষকে চাঁদে পাঠাতে পেরেছি, তাহলে বিশ্বকাপে রিজার্ভ ডে রাখতে পারব না কেন? যখন বিশ্বকাপটা এমনিতেই অনেক লম্বা হয়ে যাচ্ছে। দর্শকদের জন্যও তো এটা হতাশার, টাকা দিয়ে টিকিট কেটেছেন মাঠে এসেছেন তারা। সেখানে খেলা না হওয়া তো হতাশার।’
শ্রীলঙ্কার চার ম্যাচের দুটিই বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়েছে। ব্রিস্টলে পাকিস্তান ও বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচে একটিও বল মাঠে গড়ায়নি। বৃষ্টির কারণে দুই ম্যাচে ২ পয়েন্ট পেয়েছে করুনারতেœর দল, চার ম্যাচে মোট ৫ পয়েন্ট নিয়ে পঞ্চম স্থানে তারা। তবে করুনারতেœ এরকম ‘ফাও’ পয়েন্ট পেয়ে একদমই খুশি নন, ‘অনেকের মনে হতে পারে, আমরা পয়েন্ট ভাগাভাগি হওয়ায় খুশি হয়েছি, কিন্তু আমরা এমন পয়েন্ট চাই না, ম্যাচ খেলেই অর্জন করতে চাই। দুর্ভাগ্যজনকভাবে বৃষ্টি থামতেই চাইছে না, তাই বাধ্য হয়েই পয়েন্ট ভাগাভাগি করতে হচ্ছে।’
শুধু বাংলাদেশ কোচ রোডস নয়, সব দলের জন্য দুঃসংবাদ, এ সপ্তাহেও আরও বেশ কিছু ম্যাচে বৃষ্টির পূর্বাভাস আছে। এ বিশ্বকাপের শনিরদশা, তাই সহজে কাটছে না বলেই মনে হচ্ছে!