আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১২-০৭-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

‘রোডস চাইলে থাকতে পারেন’

স্পোর্টস রিপোর্টার
| খেলা

২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ পর্যন্ত চুক্তি থাকলেও স্টিভ রোডসের সঙ্গে সমঝোতার ভিত্তিতে গত সোমবার সেটা বাতিলের কথা জানান বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী। কিন্তু দুই দিনের মধ্যে ভিন্ন বক্তব্যই দিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বুধবার লন্ডনে সাংবাদিকদের জানালেন, চাইলে বাংলাদেশের কোচের দায়িত্বে থেকে যেতে পারবেন রোডস।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সেমিফাইনাল খেলার স্বপ্ন ভেঙে যায় ভারতের কাছে হেরে। প্রত্যাশা পূরণ করতে না পারায় প্রশ্ন ওঠে কোচের সামর্থ্য নিয়ে। তাই বিশ্বকাপ শেষে দেশে ফেরার পর থেকে চাকরি হারানোর শঙ্কায় ছিলেন রোডস। সে শঙ্কা সত্যি হয় বাংলাদেশের বিশ্বকাপ শেষ হওয়ার কয়েক দিনের মাথায়। কিন্তু নাজমুল হাসানের কথা টাইগার দলে রোডসের ভবিষ্যৎ নিয়ে বেশ ধূম্রজাল তৈরি করল। 
বুধবার লন্ডনের চেজউইক ক্রিকেট গ্রাউন্ডে বিভিন্ন দেশের সংসদ সদস্যদের নিয়ে আয়োজিত ক্রিকেট টুর্নামেন্টে খেলা দেখতে আসেন বিসিবি সভাপতি। বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের খেলা দেখার ফাঁকে সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। এ সময়ে রোডসের প্রসঙ্গে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘রোডস চাইলে থাকতেও পারে। কারণ এরকম (চলে যাওয়া নিয়ে) কোনো কথা হয়নি। তবে তার আর আমাদের চিন্তায় একটু পার্থক্য আছে। এজন্যই প্রশ্ন উঠেছে তিনি আমাদের সঙ্গে কাজ চালিয়ে যাবেন কিনা।’ এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারটি রোডসের ওপর ছেড়ে দিলেন নাজমুল হাসান, ‘আমরা ধারণা তিনিই সিদ্ধান্ত জানাবেন। আমি এখন পর্যন্ত জানি না। হয়তো দুই-একদিনের মধ্যে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবেন। সামনে যেহেতু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আছে, তাড়াতাড়ি এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া উচিত।’
বিশ্বকাপে দলের পারফরম্যান্সই মূলত রোডস ও বিসিবিকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে গেছে বললেন বোর্ড প্রধান, ‘বিশ্বকাপের পর প্রত্যেক দলের কোচিং স্টাফ ও খেলোয়াড়দের মূল্যায়ন করা হয়। এ প্রক্রিয়ায় কাজ করছে বিসিবি। একেকজনের একেক রকম স্টাইল থাকে। তারটা যে খারাপ সেটা বলছি না। কিন্তু অনেক সময় আমাদের সঙ্গে চিন্তাধারা এক না হলে সমস্যায় পড়তে হয়। সেজন্য তাকে নিয়ে বসা উচিত। তাকে কিন্তু আমরা বাদ দেইনি। তিনি ইচ্ছা করলে আরও কয়েক মাস থাকতে পারেন।’
 রোডস ছাড়াও বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা প্রসঙ্গেও কথা বলেন বিসিবি প্রধান। বিশ্বকাপে হ্যামস্ট্রিংয়ের চোট নিয়ে খেলেছেন মাশরাফি, চোটে ভুগে নিজের সেরাটাও দিতে পারেননি। ৮ ম্যাচে ৩৭৬ রান দিয়ে পেয়েছেন কেবল ১ উইকেট। বিশ্বকাপে দল ব্যর্থ হওয়ায় মাশরাফির অবসর নিয়েও শুরু হয়েছে নতুন করে আলোচনা। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের একদম অন্তিমে থাকা মাশরাফিকে দেশের মাঠ  থেকেই বিদায় জানানোর পক্ষে নাজমুল হাসান। মাশরাফির অবসর প্রসঙ্গে বোর্ড সভাপতি বলেন, ‘আমরা যত সুন্দরভাবে করা যায় (মাশরাফির বিদায়)  সেটা করব। দেশের মাটিতে করাটাই উচিত হবে। তার সঙ্গে শেষ যেদিন কথা হয়েছেÑ আমরা এটাই বলেছি। আমরা ভালোভাবে দেশেই (বিদায়ি ম্যাচ) করতে চাই।’ তবে  বিশ্বকাপে ভালো না গেলেও অধিনায়ক মাশরাফির এখনও কোনো বিকল্প দেখেন না বলে জানান বিসিবি প্রধান, ‘মাশরাফি খেলোয়াড় হিসেবে তো আসে না। কিন্তু যদি অধিনায়ক বলেন তাহলে ওর মতো অধিনায়ক আমরা কোথাও পাব না। আমি সবসময় বলি দুটি খেলোয়াড়ের বদলি আমাদের নেই।  খেলোয়াড় হিসেবে সাকিব আর অধিনায়ক হিসেবে মাশরাফি। এ দুজন ছাড়া সবারই বিকল্প আছে। এ দুজনের বিকল্প পাওয়া কঠিন।’
চলতি মাসের শেষ দিকে শ্রীলঙ্কায় তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ খেলতে যাবে বাংলাদেশ। এ বছর দেশের মাঠে নেই আর কোনো ওয়ানডে। মাশরাফির বিদায়ী সিরিজ তাহলে কবে ও কীভাবে আয়োজন  করা হবে তা স্পষ্ট করেননি নাজমুল।