আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১২-০৭-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

প্রায় ৩৫ হাজার হজযাত্রী সৌদি পৌঁছেছেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
| শেষ পাতা

আট দিনে বিমান ও সৌদি এয়ারলাইন্সের ৯৬টি হজ ফ্লাইটে প্রায় ৩৫ হাজার বাংলাদেশি হজযাত্রী সৌদি আরবে পৌঁছেছেন। এবার সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় মোট এক লাখ ২৭ হাজার বাংলাদেশি হজে যাবেন। এখন পর্যন্ত হজ ফ্লাইটগুলো নির্বিঘেœ ঢাকা ছাড়ছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

ধর্মমন্ত্রণালয়ের হজ অফিস সূত্রে জানা গেছে, ৪ জুলাই থেকে বুধবার মধ্যরাত পর্যন্ত বিমান ও সৌদি এয়ারলাইন্সের মোট ৮৫ ফ্লাইটে ৩০ হাজার ৭৬৯ জন হজযাত্রী সৌদি আরবে যান। এরমধ্যে বিমানের ৪২টি ও সৌদি এয়ারলাইন্সের ৪৩টি ফ্লাইট ঢাকা ছাড়ছে। এসব ফ্লাইটে সৌদিতে যাওয়া হজযাত্রীদের মধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনার ৩ হাজার ৭৬৬ জন এবং বাকিরা বেসরকারি ব্যবস্থাপনার। বৃহস্পতিবার বিমানের 

ছয়টি ও সৌদি এয়ারলাইন্সের পাঁচটি হজ ফ্লাইট পরিচালিত হয়। এদিকে বিমানের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ৪ জুলাই থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত পূর্ণ- উদ্যমে এগিয়ে চলেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের হজ পরিচালনার কার্যক্রম। কোনো ধরনের সংকট, জটিলতা ছাড়াই নির্বিঘেœ সুষ্ঠুভাবে চলছে বিমানের হজ অপারেশন্স-২০১৯। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স হজ অপারেশন-২০১৯ এর কার্যক্রমের আওতায় ১১ জুলাই সকাল ৮টা পর্যন্ত ৩৭টি ডেডিকেটেড এবং ৭টি শিডিউল ফ্লাইট পরিচালিত করে। বিমান এ পর্যন্ত ৪৪টি ফ্লাইটের মাধ্যমে মোট ১৬ হাজার ২০৬ জন হজযাত্রী পরিবহন করেছে। এদিকে চলতি হজ মৌসুমে সব হজযাত্রীকে আবারও যাত্রার ৮ ঘণ্টা আগে অবশ্যই আশকোনা ক্যাম্পে অবস্থান করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ জানানো হয়েছে। হজযাত্রীরা ওয়ানওয়েতে ১০০ ডলার এবং রিটার্ন যাত্রা (যাওয়া আসা) ২০০ ডলার বা সমপরিমাণ টাকার বিনিময়ে উড়োজাহাজের সামনের অপেক্ষাকৃত বড় ও আরামদায়ক আসনে যাতায়াত করতে পারবেন।
বিমানের পক্ষ থেকে বলা হয়, প্রথমবারের মতো এ বছর কিছু ফ্লাইটের জেদ্দা বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশন কার্যক্রম ঢাকা থেকেই সম্পন্ন করা হচ্ছে। এ উদ্দেশ্যে সৌদি আরবের ইমিগ্রেশন টিম ঢাকায় অবস্থান করছেন। এ বছর ধর্ম মন্ত্রণালয় ‘রোড টু মক্কা’-এর আওতায় বিমানের ১২২টি ফ্লাইটের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন করার অনুমতি দিয়েছে। ভবিষ্যতে সব ফ্লাইটের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রথম দিন অর্থাৎ ৪ জুলাই, সার্ভার জটিলতার কারণে ইমিগ্রেশনের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়েছিল তবে পরের দিন ৫ জুলাই থেকে সৌদি ইমিগ্রেশন কার্যক্রম স্বাভাবিকভাবে হচ্ছে।
‘রোড টু মক্কা’ অর্থাৎ হজযাত্রীদের ইমিগ্রেশন ঢাকায় সম্পন্ন হওয়ার সরকারের এ উদ্যোগের মাধ্যমে ধর্মপ্রাণ মুসুল্লিদের জেদ্দা বিমানবন্দরে দীর্ঘ প্রতীক্ষা এবং ভোগান্তির অবসান ঘটবে। বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স একটি সর্বাঙ্গ-সুন্দর হজ কার্যক্রম পরিচালনায় দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। এবারের হজ কার্যক্রম সফল করে তুলতে বিমান দেশবাসীর আন্তরিক সহযোগিতা কামনা করেছে। এদিকে এখনও যেসব এজেন্সি বিমানের টিকিটের জন্য পে-অর্ডার ইস্যু করেনি তাদের ১৪ তারিখের মধ্যে টিকিট নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে ধর্ম মন্ত্রণালয়। যদি কোনো এজেন্সির কারণে কোনো হজযাত্রীর ভোগান্তি বা যাত্রা বাতিল হয় তাহলে এজেন্সির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন মন্ত্রণালয়। বুধবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়। উল্লেখ্য, চাঁদ দেখা সাপেক্ষে এবারে হজ অনুষ্ঠিত হবে ১০ আগস্ট। ৫ আগস্ট পর্যন্ত হজ ফ্লাইট চলবে।