আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১২-০৯-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

খাসোগিকে ‘কোরবানির পশু’ বলেছিল এক ঘাতক

আলোকিত ডেস্ক
| আন্তর্জাতিক

জামাল খাসোগি

সৌদি ভিন্নমতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাসোগিকে হত্যার আগে সৌদি ঘাতক দলের এক ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ তাকে ‘কোরবানির পশু’ বলে বর্ণনা করেছিল। তুরস্কের ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে তাকে হত্যার জন্য সৌদি আরব থেকে একটি ‘ঘাতক দল’ এসে হাজির হয়েছিল। বুধবার এসব তথ্যই প্রকাশিত হয়েছে তুরস্কের এক সংবাদপত্রে।
সরকারপন্থি পত্রিকা সাবাহ্ খাসোগির জীবনের শেষ মুহূর্তের ‘অডিও রেকর্ডিং’-এর বিষয়বস্তু প্রকাশ করেছে। পত্রিকাটি বলছে, সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে এ অডিও রেকর্ডিং ধারণ করা হয়েছে এবং তুর্কী গোয়েন্দা সংস্থা এটি সংগ্রহ করেছে।
গত বছর অক্টোবরে ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটের মধ্যে খাসোগিকে হত্যার ঘটনা নিয়ে বিশ্বজুড়ে তুমুল তোলপাড় শুরু হয়। খাসোগি সৌদি রাজপরিবারের একজন কঠোর সমালোচক ছিলেন এবং মৃত্যুর আগে বেশ ক’বছর ধরে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছিলেন।
সৌদি সরকার এবং রাজপরিবার সব সময় খাসোগি হত্যাকা-ে তাদের হাত থাকার কথা অস্বীকার করে আসছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত কয়েকজনকে আটক করে সৌদি আরবে তাদের বিচারও শুরু হয়েছে। এর আগে তুর্কী পত্রিকা সাবাহ্ খাসোগির রহস্যময় খুনের ব্যাপারে একাধিক রিপোর্ট প্রকাশ করেছে; যা নিয়ে দুনিয়া জোড়া হেডলাইন হয়েছে। তবে তার দু-একটি রিপোর্ট নিয়ে বিতর্কও ছিল। চলতি সপ্তাহেও পত্রিকাটি তার ভাষায়, সৌদি ‘ঘাতক দল’-এর কথিত তৎপরতার ওপর দুটি খবর ছাপিয়েছে। পত্রিকার সর্বশেষ খবরটি ছিল সৌদি কনস্যুলেটের ভেতর অডিও রেকর্ডিংকে ভিত্তি করে। এতে বলা হয়েছে, খাসোগি সৌদি কনস্যুলেটে পৌঁছানোর আগে সৌদি আরব থেকে আসা ঘাতক দলের সদস্য একজন ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ খাসোগিকে ‘কোরবানির পশু’ বলে বর্ণনা করেছিল। সাবাহ্ বলছে, কনস্যুলেটে ঢোকার পর কিছু একটা আঁচ করে খাসোগির সন্দেহ হয়। এসময় তাকে বলা হয়, তার বিরুদ্ধে ইন্টারপোলের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা রয়েছে। তাই তাকে সৌদি আরবে ফেরত যেতে হবে; কিন্তু তিনি সেই হুকুম মানতে চাননি। এ সময় তিনি তার ছেলেকে একটি টেক্সট মেসেজ পাঠান। এরপরই তাকে ওষুধ দিয়ে অচেতন করা হয় বলে সাবাহ্ তার খবরে দাবি করছে। জ্ঞান হারানোর আগে তিনি তার কথিত ঘাতকদের উদ্দেশ করে বলেন, তার হাঁপানি রয়েছে সে কারণে তার মুখ যেন বেঁধে ফেলা না হয়। সাবাহ্? খবরে বর্ণনা করা হয়, এরপর কীভাবে খাসোগির মাথা একটি ব্যাগের মধ্যে ঢুকিয়ে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। প্রাণ রক্ষার্থে তার ছটফটানির শব্দও রেকর্ড হয়। বিবিসি