আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ১৯-০৯-২০১৯ তারিখে পত্রিকা

স্ত্রী তৃতীয় লিঙ্গের

ছয়জনকে আসামি করে মামলা

মনিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি
| দেশ

বাসরঘরে স্বামী টের পেলেন স্ত্রী তৃতীয় লিঙ্গের। বিষয়টি ফাঁস করলে আত্মহত্যার হুমকি দেন নববধূ মার্জিয়া সুলতানা। ফলে বেশ কিছুদিন ঘটনা লুকিয়ে রাখেন স্বামী। এরপর তৃতীয় লিঙ্গের মার্জিয়া সুলতানা বাড়ির স্বর্ণালংকারসহ নগদ টাকা চুরি করে পালিয়ে যান। পরে ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে মীমাংসায় ব্যর্থ হন লাভলু রহমান। অবশেষে ভুক্তভোগী লাভলু রহমান মঙ্গলবার যশোর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তৃতীয় লিঙ্গের স্ত্রী মার্জিয়া সুলতানাসহ ছয়জনকে আসামি করে মামলা করেন। আদালতের বিচারক মঞ্জুরুল ইসলাম মামলাটি গ্রহণ করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) যশোরকে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের আদেশ দেন। মামলার অভিযুক্তরা হলেন যশোর সদর উপজেলার মাহিদিয়া গ্রামের তৃতীয় লিঙ্গের (হিজড়া) মার্জিয়া সুলতানা, তার বাবা লতিফ সরদার, ভাই মিঠু ও রাসেল সরদার এবং চাচা রশিদ সরদার। অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, চলতি বছর ১১ মার্চ মামলার প্রধান অভিযুক্ত মার্জিয়া সুলতানার সঙ্গে যশোরের মনিরামপুর উপজেলার হানুয়ার গ্রামের সদর আলীর ছেলে লাভলুর রহমানের ১ লাখ টাকা দেনমোহরে পারিবারিকভাবে বিয়ে হয়। ওই দিন বাসর রাতে লাভলুর রহমান জানতে পারেন, তার স্ত্রী মার্জিয়া সুলতানা তৃতীয় লিঙ্গের বা হিজড়া। ওই রাতেই বিষয়টি কাউকে জানানো হলে মার্জিয়া আত্মহত্যা করবেন বলে হুমকি দেন। পরবর্তীতে এ বিষয়ে মার্জিয়ার পরিবারের লোকজনের সঙ্গে আলোচনা করা হলে তারা কোনো জবাব দিতে পারেননি। কয়েক দিন পর স্বামী লাভলুর রহমানের অনুপস্থিতিতে টাকা, স্বর্ণালংকার চুরি করে মার্জিয়া সুলতানা বাবার বাড়িতে চলে যান। এরপর বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবে সালিশের মাধ্যমে মীমাংসার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন লাভলু। অবশেষে আদালতে মামলা করেন তিনি। মামলায় আদালতের বিচারক আগামী ১২ নভেম্বরের মধ্যে তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য যশোরের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে আদেশ দেন।