আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২০-০১-২০২০ তারিখে পত্রিকা

শীতে মানবতার দেওয়াল সাড়া ফেলেছে রংপুরে

রংপুর ব্যুরো
| শেষ পাতা

রংপুরে অসহায় দুস্থ মানুষের মধ্যে সাড়া ফেলেছে মানবতার দেওয়াল। চলতি মৌসুমে হাড় কাঁপানো শীতে মানবতার দেওয়ালের প্রতি ঝোঁক বেড়েছে হতদরিদ্র মানুষের। এখন নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়কের পাশে আর পাড়া মহল্লায় মানবতার দেওয়ালের সংখ্যাও বাড়ছে। বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ও সমাজসেবীদের চেষ্টায় মানবতার দেওয়ালে ঝুলছে অন্যের রেখে যাওয়া কাপড়। ঝুলিয়ে রাখা কারও অপ্রয়োজনীয় কাপড়ে স্বস্তি খুঁজে নিচ্ছেন সমাজের নিম্নবিত্ত মানুষরা। এদিকে দুস্থ অসহায়দের জন্য এ সপ্তাহে মহানগরীর বেশ কয়েকটি এলাকায় ২০টিরও বেশি মানবতার দেওয়াল তৈরি হয়েছে। এতে সাঁটানো ব্যানারে লেখা রয়েছে ‘আপনার অপ্রয়োজনীয় কাপড় এখানে রাখুন এবং আপনার প্রয়োজনীয় কাপড় এখান থেকে নিয়ে যান’।

শুক্রবার নগরীর শাপলা চত্বর, সেন্ট্রাল রোড, খামারপাড়া, স্টেশন রোড, জুম্মাপাড়া, কেরানিপাড়া, ধাপ এলাকা ঘুরে অন্তত ১৫টি মানবতার দেওয়াল দেখা গেছে। মানবতার বন্ধনে, আমরাই পাশে, প্রতিজ্ঞা, টিম ৩৬০ ডিগ্রি, তারুণ্যের আলো, স্পর্শ, বাংলার চোখসহ একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এসব মানবতার দেওয়াল তৈরি করেছে। এদিকে বিবেকবান ও দানশীল মানুষকে আকৃষ্ট করছে এসব মানবতার দেওয়াল। অনেকেই স্বেচ্ছায় দেওয়ালে তাদের ব্যবহৃত আবার কেউবা অব্যবহৃত কাপড় ঝুলিয়ে রাখছেন। হতদরিদ্র শীতার্তদের শরীরে দেওয়াল থেকে নেওয়া কাপড়ই যেন ছড়াচ্ছে মানবতার উষ্ণতা। শাপলা চত্বরে মানবতার দেওয়াল থেকে নিজের প্রয়োজন অনুযায়ী কাপড় নিতে পেরে আনন্দিত কাদের মিয়া। তিনি শীতে মানবতার দেওয়াল

বলেন, গরিব মানুষের জন্য মানবতার দেওয়াল খুব ভালো উদ্যোগ। এখান থেকে দুইটা প্যান্ট আর একটা সোয়েটার নিয়েছি।
সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন প্রতিজ্ঞার প্রধান সমন্বয়কারী নুর হোসেন সুজন জানান, সরকারের পাশাপাশি সমাজের বিত্তবানদের দেওয়া শীতবস্ত্র অনেক শীতার্ত মানুষই পান না। আবার অনেকে লাইনে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে শীতবস্ত্র নিতে অস্বস্তি বোধ করেন। কিন্তু মানবতার দেওয়াল থেকে কাপড় নিতে কারও কোনো সমস্যা নেই। এমনকি যারা সহায়তার কাপড় ঝুলিয়ে রাখছেন, তারাও স্বস্তি বোধ করেন।