আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২০-০১-২০২০ তারিখে পত্রিকা

স্ত্রী-শাশুড়িসহ চারজনকে খুনের পর আত্মহত্যা

মৌলভীবাজার প্রতিনিধি
| শেষ পাতা

বড়লেখা উপজেলার পাল্লাথল চা বাগানে পারিবারিক কলহের জেরে স্ত্রী-শাশুড়িসহ চারজনকে ধারালো দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে নিজে আত্মহত্যা করেছে নির্মল কর্মকার (৪০) নামে এক ব্যক্তি। রোববার ভোরে উপজেলার পাল্লাতল চা বাগানে এ ঘটনা ঘটে। নিহতরা তিনজন একই পরিবারের সদস্য এবং দুইজন প্রতিবেশী। এর মধ্যে তিনজন নারী এবং খুনিসহ দুইজন পুরুষ। ঘটনার খবর পেয়ে সকালেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন মৌলভীবাজার পুলিশ সুপার মো. ফারুক আহমেদ এবং বড়লেখা থানার ওসি মো. ইয়াসিনুল হক। ঘটনাস্থলের আলামত সংগ্রহ ও লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে জন্য মৌলভীবাজার হাসপাতালে প্রেরণ করে পুলিশ।

হত্যাকাণ্ডের শিকার চারজন হলেন, নির্মলের স্ত্রী জলি ব্যানার্জি (৩৫), তার শাশুড়ি লক্ষ্মী ব্যানার্জি (৫০), পাসের ঘরের বসন্ত ভৌমিক (৫৫), বসন্তের মেয়ে শিউলি ভৌমিক (১৬)। এছাড়া নির্মলের দায়ের কোপে গুরুতর আহত হয়েছেন বসন্ত ভৌমিকের স্ত্রী কানন ভৌমিক। তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, পারিবারিক কলহের জেরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। দেশীয় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তাদের হত্যা করা হয়েছে। এদের মধ্যে ঘরের মেঝেতে একজনের লাশ ঝুলন্ত অবস্থায়, অন্য লাশগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকাবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।
এলাকায় নয়। এক বছর আগে জলির সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তারপর থেকে তিনি শ্বশুরবাড়িতেই থাকতেন। প্রতিবেশীরা জানান, তাদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া ও মারধরের ঘটনা ঘটে। গতকালও ভোর ৫টার দিকে নির্মল ও জলির মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। একপর্যায়ে জলিকে মারধর করতে থাকলে সে দৌঁড়ে অন্য ঘরে বাবা-মায়ের কাছে চলে যায়। তখন নির্মল ধারালো অস্ত্র দিয়ে জলিকে কোপাতে থাকে। মেয়েকে রক্ষা করতে শাশুড়ি ছুটে এলে তাকেও কোপায় নির্মল। এরপর পাশের ঘরের বসন্ত ও তার মেয়ে শিউলি সেখানে এলে দুইজনকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে নির্মল। পরে চারজনের মৃত্যু হলে নির্মল নিজেই নিজের ঘরে গিয়ে আত্মহত্যা করে।