আজকের পত্রিকাআপনি দেখছেন ২০-০১-২০২০ তারিখে পত্রিকা

প্রচারের সময় বেশি পাওয়ায় খুশি সবাই

তারিখ পেছানোয় মেয়র প্রার্থীদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া

রকীবুল হক
| প্রথম পাতা

ব্যাপক বিতর্কের পর ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তারিখ দুই দিন পেছানোর সিদ্ধান্তকে ইতিবাচক হিসেবে দেখলেও এ বিষয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন প্রধান দুই দলের মেয়র প্রার্থীরা। সরস্বতী পূজার কারণে এ দুই সিটিতে ৩০ জানুয়ারির পরিবর্তে ১ ফেব্রুয়ারি ভোটগ্রহণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ইসির এ সিদ্ধান্ত ঘোষণার পরের দিন রোববার বিভিন্ন এলাকায় গণসংযোগে গিয়ে প্রতিক্রিয়া জানান প্রার্থীরা। তবে নির্বাচনের তারিখ পেছানোর কারণে দুই দিন বাড়তি প্রচারের সুযোগ পেয়ে সব প্রার্থীই সন্তোষ প্রকাশ তারিখ পেছানোয় মেয়র প্রার্থীদের
করেছেন। নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের কারণে এসএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতিতে ব্যাঘাত ঘটবে বলে তাদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করেছেন দক্ষিণে আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। তারিখ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত আরও আগে নিলেই শিক্ষার্থীদের জন্য ভালো হতো বলেও মনে করেন তিনি।
একই সিটিতে বিএনপির মেয়র প্রার্থী প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান বিবেচনায় নিয়ে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনকে সাধুবাদ জানান। তিনি এও বলেন, নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণের সময়ই কমিশনের উচিত ছিল হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূজার বিষয়টি বিবেচনা করা। তাহলে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনজনিত কারণে পরীক্ষার্থীদের বিপাকে পড়তে হত না। 
ঢাকা উত্তরে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, নির্বাচন কমিশন দেরিতে হলেও সরস্বতী পূজার বিষয়টি আমলে নিয়ে নির্বাচন পিছিয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ, এটাই তার প্রমাণ।
আর উত্তরে বিএনপির মেয়র প্রার্থী তাবিথ আউয়াল নির্বাচনের তারিখ নিয়ে জটিলতার সমালোচনা করে বলেন, ইসি বিনা কারণে তাদের অযোগ্যতার একটি পরিচয় আবারও দিয়েছে। এ বিষয়টি অনেক আগেই নিষ্পত্তি হওয়া দরকার ছিল।
পরীক্ষার্থীদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ তাপসের : রোববার মতিঝিলে নটর ডেম কলেজের পাশে পথসভার মধ্য দিয়ে নির্বাচনি প্রচার শুরু করেন ঢাকা দক্ষিণে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। 
পথসভায় দেওয়া বক্তব্যে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনের কারণে এসএসসি পরীক্ষা পিছিয়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের প্রস্তুতিতে ব্যাঘাত ঘটবে বলে তাদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করেন তিনি। ভোটের তারিখ পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত আরও আগে নিলেই শিক্ষার্থীদের জন্য ভালো হতো বলেও মনে করেন তাপস।
তিনি বলেন, নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তন হয়েছে, সেখানে হয়তো নগরবাসীর কাছে যেতে আমরা আরও একটু বেশি সুযোগ পাব। তবে আমার শিক্ষার্থী ভাইবোনদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করছি, কারণ এসএসসি পরীক্ষা একজন শিক্ষার্থীর জীবনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি পরীক্ষা। সূচি যদি পরিবর্তন করতেই হতো, তাহলে আরও আগে সিদ্ধান্ত নিলে ভালো হতো।
আমি মনে করি নির্বাচনের তারিখ না পিছিয়ে এগিয়ে নিয়ে এলে আরও ভালো হতো। আমাদের শিক্ষার্থীদের এ অসুবিধাটা আর হতো না। কারণ পরিবার-পরিজনসহ তাদের এ পরীক্ষার প্রস্তুতি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। সেখানে তাদের একটু ব্যাঘাত হচ্ছে। আর আমরা যে গণসংযোগ করছি, সে কারণেও শিক্ষার্থীদের একটু ব্যাঘাত ঘটছে। এ কারণে নির্বাচনের তারিখ এগিয়ে নিয়ে এলে সবার জন্য ভালো হতো। যাই হোক নির্বাচন কমিশন যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, সেই অনুযায়ী কাজ করে যাচ্ছি।
সুষ্ঠু সিটি নির্বাচন নিয়ে ধানের শীষের প্রার্থীদের সংশয় প্রকাশের বিষয়ে প্রশ্নে তাপস বলেন, সিটি নির্বাচন নিয়ে কোনো ধরনের আশঙ্কা নেই। আমি কোনো শঙ্কা দেখছি না। প্রত্যেক এলাকায় তাদের যথেষ্ট পোস্টার রয়েছে, তারা সুন্দর লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডে গণসংযোগ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। এখন যদি কেউ গণসংযোগ না করে ঘরে বসে থাকে, তাহলে তো সেটার ব্যাপারে আমাদের বলার কিছু নেই।
তিনি বলেন, আমরা ঢাকাবাসীর ঘরে ঘরে যাচ্ছি, স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া পাচ্ছি। আমি আশা করি, ১ ফেব্রুয়ারি সুষ্ঠু, প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এবং অংশগ্রহণমূলক একটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সেই নির্বাচনে ঢাকাবাসী সৎ, যোগ্য সেবককে নির্বাচিত করবে।
এ সময় তিনি ৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী মোজাম্মেল হক এবং নারী কাউন্সিলর প্রার্থী মিলু রহমানকে পরিচয় করিয়ে দেন। পরে মতিঝিল, গুলিস্তান, শান্তিনগর এলাকায় গণসংযোগ করেন শেখ ফজলে নূর তাপস।
পূজার বিষয়টি আগেই বিবেচনা করা উচিত ছিলÑ ইশরাক : মেয়র নির্বাচিত হলে ঢাকাকে নিরাপদ বাসযোগ্য ও সিটি করপোরেশনকে দুর্নীতিমুক্ত করার ঘোষণা দেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন। তিনি বলেন, সিটি করপোরেশনকে দুর্নীতিমুক্ত করার লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট ৫২টি প্রতিষ্ঠানকে একসঙ্গে নিয়ে কাজ করব। এজন্য শুধু সরকারের সদিচ্ছা প্রয়োজন।
নির্বাচনি প্রচার কাজের দশম দিন রোববার আজিমপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে গণসংযোগ শুরুর আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। 
এ সময় অন্যদের মধ্যে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, বিএনপি কেন্দ্রীয় নেতা মীর শরাফত আলী সফু, এসএম জিলানী, যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোরতাজুল করিম বাদরু, রফিক শিকদার, শরিফ হোসেন, ওলামা দলের নেতা মাওলানা রফিকুল ইসলামসহ বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী এবং স্থানীয় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী গণসংযোগে অংশ নেন।
এর আগে সকাল ১০টায় বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের মাজারে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও কেন্দ্রীয় নেতাসহ ইশরাক হোসেন। মাজারে শ্রদ্ধা ও মোনাজাত শেষে আজিমপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে আজকের গণসংযোগের কর্মসূচি শুরু করেন তিনি।
সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান বিবেচনায় নিয়ে সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনকে সাধুবাদ জানান অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার জ্যেষ্ঠ পুত্র ইশরাক হোসেন। তিনি বলেন, নির্বাচনের তারিখ নির্ধারণের সময়ই কমিশনের উচিত ছিল হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূজার বিষয়টা বিবেচনা করা। তাহলে নির্বাচনের তারিখ পরিবর্তনজনিত কারণে পরীক্ষার্থীদের বিপাকে পড়তে হতো না। 
এদিকে নির্বাচনি পোস্টার ছেঁড়ার অভিযোগ তুলে ইশরাক হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, পোস্টার ছেঁড়া ছোট লোকের কাজ। পোস্টার ছেঁড়ার মাধ্যমে আমাদের জনগণের মন থেকে মুছে ফেলতে পারবে না। বিএনপি গণতান্ত্রিক আন্দোলনের অংশ হিসেবে এ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। এ নির্বাচনে জয়লাভ করার জন্য রাজনৈতিক দল হিসেবে আমাদের যা যা করণীয় তাই করব। 
নারীবান্ধব ঢাকা গড়তে সিসিটিভি ও বাতি লাগানো হবেÑ আতিকুল : নির্বাচিত হলে ঢাকাকে নারীবান্ধব করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন উত্তর সিটি করপোরেশনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী আতিকুল ইসলাম। এজন্য সিসিটিভি ক্যামেরা ও ৪২ হাজার বাতি লাগানোর পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন তিনি। তার ভাষ্যÑ এ ক্যামেরা ও বাতি নিয়ন্ত্রণ করা হবে সিটি করপোরেশনের কমান্ড সেন্টারের মাধ্যমে। রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর কল্যাণপুরের খাজা মার্কেটের সামনে নির্বাচনি গণসংযোগে এসব কথা বলেন আতিকুল। তিনি বলেন, নিরাপদ, পরিষ্কার ও আলোকিত ঢাকা গড়তে এরই মধ্যে আমরা কমান্ড সেন্টারের কাজ শুরু করেছি। এক বছরের মধ্যে সব চলে আসবে কমান্ডার সেন্টারের অধীনে।
নির্বাচন কমিশনকে ধন্যবাদ জানিয়ে মেয়র আতিকুল বলেন, নির্বাচন কমিশন দেরিতে হলেও সরস্বতী পূজার বিষয়টিকে আমলে নিয়ে নির্বাচন পিছিয়ে দিয়েছে। বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ, এটাই তার প্রমাণ।
আতিকুল বলেন, গেল ৯ মাসে ডিজিটাল সিটি তৈরিতে কাজ করেছি। অনেক কাজ করতে পারিনি। এ সময় কমান্ড সেন্টারের পরিকল্পনা ছিল। আবার নির্বাচিত হলে কমান্ড সেন্টার করা হবে। এর মাধ্যমে ঢাকার কোথায় ময়লা পড়ে আছে, পরিচ্ছন্নতা কর্মীরা কোথা থেকে ময়লা নেননি, সে খবর চলে আসবে। তিনি জানান, আনসার ক্যাম্প থেকে কচুক্ষেত পর্যন্ত ১০০ ফুট সড়ক করা হবে।
দুর্নীতিমুক্ত সিটি করপোরেশন গড়ার অঙ্গীকার করে আতিকুল বলেন, অনলাইনের মাধ্যমে সবাই বাড়ির ট্যাক্স দেবেন। আঞ্চলিক নির্বাহী কর্মকর্তার অফিসে আর যেতে হবে না।
নির্বাচনি প্রচারের দশম দিনে আজ ঢাকা-১৪ আসনের ৯, ১০, ১১ নম্বর ওয়ার্ডের কল্যাণপুর, পাইকপাড়া, দক্ষিণ পাইকপাড়া, মধ্য পাইকপাড়া, মাজার রোড, গোলারটেক, লালকুঠি, গাবতলী সড়কে নির্বাচনি গণসংযোগ করেন আতিকুল।
ইসি আবার অযোগ্যতার পরিচয় দিয়েছেÑ তাবিথ আউয়াল : ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনের তারিখ নিয়ে জটিলতার সমালোচনা করেছেন উত্তরের বিএনপি প্রার্থী তাবিথ আউয়াল। তিনি বলেছেন, ইসি (নির্বাচন কমিশন) বিনা কারণে তাদের অযোগ্যতার একটি পরিচয় আবারও দিয়েছে। এ বিষয়টি অনেক আগেই নিষ্পত্তি হওয়া দরকার ছিল। তবুও সাধুবাদ। একটা তারিখ নির্ধারণ হয়েছে, যা সবার জন্য গ্রহণযোগ্য। তারা সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় রাখতে পারলে মেয়র ও ধানের শীষের কাউন্সিলরদের বিজয় হবেই।রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে রাজধানীর মিরপুর বিআরটিএ এলাকায় গণসংযোগকালে তিনি এসব কথা বলেন।
তাবিথ আউয়াল বলেন, নির্বাচন কমিশন ইশতেহার ঘোষণা থেকেই বিতর্ক সৃষ্টি করেছে। আমরা এখনও দেখতে চাই নির্বাচন কমিশন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন দিতে কী কী পদক্ষেপ নেয়, আমরা সেদিকে তাকিয়ে আছি। সরস্বতী পূজা উপলক্ষে নির্বাচন দুই দিন পিছিয়েছে। একই সঙ্গে এসএসসি পরীক্ষাও পিছিয়েছে। যে কারণে পরীক্ষার্থীরা মনঃক্ষুণ্ন হতে পারে। তাদের জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি।
তিনি বলেন, সব ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে গণতন্ত্র রক্ষায় ১ ফেব্রুয়ারি ভোটের লড়াইয়ে বিজয়ী হতে হবে।
তাবিথ আউয়াল রোববার সকাল থেকে মিরপুর-১৩, উত্তর ইব্রাহিমপুর, কাফরুল, কলোনি সেন্টাল জামে মসজিদ, মিরপুর-১৪-এর হাউজিং স্টাফ কোয়ার্টার, শহীদ স্মৃতি পুলিশ কলেজ এলাকায় নির্বাচনি প্রচার চালান। 
তিলোত্তমা ঢাকা গড়ার এরশাদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে চাইÑ হাজী মিলন : জাতীয় পার্টি মনোনীত ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন মেয়র প্রার্থী হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন বলেছেন, রাজধানী ঢাকাকে পরিকল্পিত ও তিলোত্তমা নগরী করার যে চেষ্টা পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ করে গিয়েছেন আমি নির্বাচিত হলে তা বাস্তবায়ন করব। বেড়িবাঁধ নির্মাণ, নগর ভবন সৃষ্টি, রাজধানীর রাস্তা প্রশস্ত, নতুন রাস্তা নির্মাণসহ রাজধানীতে উন্নয়নের বিপ্লব ঘটিয়েছেন এরশাদ। আমি নির্বাচিত হতে পারলে প্রথমেই নগরবাসীর মূল সমস্যা যানজট, সন্ত্রাস থেকে রক্ষা করার জন্য প্রয়োজনে নিজের জীবন বাজি রাখব। 
মাওলানা মাসউদের গণসংযোগ, আবদুর রহমানের ইশতেহার ঘোষণা আজ : ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়রপ্রার্থী অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা শেখ ফজলে বারী মাসউদ রোববার সকালে নগরীর মোহাম্মদপুর এলাকায় গণসংযোগ করেন। এ সময় বিভিন্ন পথসভায় তিনি বলেন, নির্বাচনের তারিখ বিভ্রান্তি থেকেই বুঝা যায়, নির্বাচন কমিশন সিটি নির্বাচন নিয়ে সিরিয়াস নয়।