ঢাকা ২১ জুলাই ২০২৪, ৬ শ্রাবণ ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

‘বাংলা ব্লকেডে’ রাজধানীতে তীব্র যানজট, ভোগান্তিতে নগরবাসী

‘বাংলা ব্লকেডে’ রাজধানীতে তীব্র যানজট, ভোগান্তিতে নগরবাসী

সরকারি চাকরির নিয়োগে কোটা পদ্ধতি বাতিল এবং ২০১৮ সালের পরিপত্র পুনর্বহালের দাবিতে রাজধানীতে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি চলছে। এ কর্মসূচির অংশ হিসেবে শাহবাগ, হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টাল মোড়, বাংলামোটর, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট, সায়েন্সল্যাব মোড়, গুলিস্তান জিরো পয়েন্ট, আগারগাঁও, মৎস্য ভবন মোড় ও নীলক্ষেত মোড় অবরোধ করেছেন শিক্ষার্থীরা।

সোমবার বিকেল সাড়ে ৪টার পর এই অবরোধ শুরু করেছেন শিক্ষার্থীরা। এর ফলে বিভিন্ন সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে রাজধানীজুড়ে দেখা দিয়েছে যানজট। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন নগরবাসী।

কোটা বাতিলের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা গত কয়েক দিন ধরে ধারাবাহিকভাবে শাহবাগ মোড় অবরোধ করে আসছেন। গতকাল তারা ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি পালন শেষে সোমবারও (৮ জুলাই) একই কর্মসূচি ঘোষণা করেন। এতদিন শাহবাগে অবরোধ সীমাবদ্ধ থাকলেও গতকাল তা ছড়িয়ে দেওয়ার ঘোষণা দেন শিক্ষার্থীরা।

ডিএমপির ধানমন্ডি জোনের সহকারী কমিশনার (ট্রাফিক) নবকুমার বিশ্বাস বলেন, শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের কারণে কলাবাগান সাইন্স ল্যাব, ধানমন্ডি, নীলক্ষেত আশপাশের এলাকায় অধিকাংশ সড়ক বন্ধ। কালকের মতো আজও গাড়ি চলাচল করতে পারছে না।

গুলিস্তান থেকে ধানমন্ডিমুখী এক পথচারী বলেন, অফিস থেকে বাসায় যাওয়ার জন্য বাসে উঠেছিলাম। কিন্তু একটু পরেই অবরোধের মুখে পড়তে হলো। এখন বাস থেকে নেমে হেঁটে বাসার উদ্দেশ্যে রওনা দেব। এছাড়া আর উপায় নেই। অবরোধ ছাড়ার জন্য অপেক্ষা করলে রাত পর্যন্ত বসে থাকতে হবে।

অন্যদিকে শাহবাগ হয়ে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালের মোড়, বাংলামোটর, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট হয়ে আগারগাঁওয়ের বিভিন্ন পয়েন্টে অবরোধ করে রেখেছে শিক্ষার্থীরা। যার ফলে এসব সড়কও তার আশপাশের এলাকার সড়কেও দেখা দিয়েছে তীব্র যানজট।

এ বিষয়ে ডিএমপির কারওয়ান বাজার জোনের সহকারী কমিশনার (ট্রাফিক) স্নেহাশীষ কুমার দাস বলেন, কোনো গাড়ি কারওয়ান বাজার থেকে শাহবাগের দিকে যেতে পারছে না। ফলে এ যানজট ফার্মগেট-তেজগাঁও ছাড়িয়ে বিজয় সরণি পর্যন্ত পৌঁছেছে।

বর্তমানে শিক্ষার্থীদের একদফা দাবি হলো, সব গ্রেডে সকল প্রকার অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে সংবিধানে উল্লিখিত অনগ্রসর গোষ্ঠীর জন্য কোটাকে ন্যূনতম পর্যায়ে এনে সংসদে আইন পাশ করে কোটা পদ্ধতিকে সংশোধন করতে হবে।

এর আগে ২০১৮ সালে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মুখে কোটা পদ্ধতি বাতিল করে সরকার। পরে ২০২১ সালে কয়েকজন বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হাইকোর্টে রিট করলে গত ৫ জুন এক রায়ের মাধ্যমে আবারও ফিরে আসে কোটা ব্যবস্থা।

গত ১ জুলাই থেকে বৈষম্য বিরোধী ছাত্র আন্দোলনের ব্যানারে চার দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা। পরবর্তীতে এক দফা দাবিতে আন্দোলন শুরু করেন।

সরকারি চাকরি,বাংলা ব্লকেড,রাজধানী
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত