ঢাকা ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

কোটা নিয়ে আন্দোলনে স্থবির ঢাকা

কোটা নিয়ে আন্দোলনে স্থবির ঢাকা

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে সকাল-সন্ধ্যা সর্বাত্মক ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচিতে কার্যত অচল হয়ে পড়েছে রাজধানী ঢাকা। সরকারি চাকরিতে কোটা ব্যবস্থা বাতিল করে ২০১৮ সালে সরকারের জারি করা পরিপত্র পুনর্বহালের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা সারাদেশে চালিয়ে যাচ্ছেন এ কর্মসূচি।

বুধবার (১০ জুলাই) সকাল ১০টা থেকে রাস্তায় নেমেছেন শিক্ষার্থীরা। ফলে শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে।

ইতোমধ্যে আন্দোলনকারীরা ঘোষণা দিয়েছেন, সরকারের নির্বাহী বিভাগ থেকে কোটা সংস্কারে ঘোষণা না আসা পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন তারা। ফলে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ঢাকার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের হাজার হাজার শিক্ষার্থী মিছিল নিয়ে জড়ো হচ্ছেন নির্ধারিত স্পটে। সড়কে যান চলাচল বন্ধ রেখে বসে বসে স্লোগান আর গান-কবিতায় মাতিয়ে রাখছেন আন্দোলনকারীরা।

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন যত জোরদার হচ্ছে রাজধানীর মানুষের ভোগান্তি তত বাড়ছে৷ বিশেষ করে নারী-শিশু ও বয়স্ক মানুষ পড়েছেন বেশি দুর্ভোগে৷

আন্দোলনকারীদের পক্ষ থেকে ঢাকায় যেসব জায়গায় অবরোধ করার কথা ঘোষণা করা হয়েছিল সকাল থেকে খুব একটা শিক্ষার্থীদের চাপ ছিল না সেখানে। তবে বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতি বদলে গেছে। বাড়তে থাকে শিক্ষার্থীদের উপস্থিতি। এতে ওইসব এলাকায় সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

বকশিবাজার মোড় ও চানখারপুল মোড়ে অবস্থান নিয়ে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করায় এর প্রভাব পড়েছে পুরান ঢাকার অলিগলিতে।

অন্যদিকে পল্টন মোড়-জিপিওতে সড়কে বসে আন্দোলন করায় গুলিস্তান ও আশপাশের এলাকা, মতিঝিলে ছড়িয়ে পড়েছে যানজট। মানুষজন পড়েছেন ভোগান্তিতে।

এছাড়া শাহবাগ, সায়েন্সল্যাব, ফার্মগেট, বাংলামোটর, আগারগাঁও, মহাখালী, বনানী এলাকায় শিক্ষার্থীরা সড়কে বসে পড়ায় ভোগান্তি দেখা দিয়েছে বিমানবন্দরের দিকে যাওয়া যাত্রীদেরও।

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করছে ঢাকা মহানগর পুলিশ-ডিএমপি। তারা পরিস্থিতি অনুযায়ী ব্যবস্থা নেবে বলে জানিয়েছে। যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে রাজধানীজুড়ে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। গোয়েন্দা সদস্যরাও সাদা পোশাকে বিভিন্ন জায়গায় অবস্থান করছেন।

আবা/এসআর/২৪

কোটা,স্থবির,আন্দোলন
আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত