‘হার্টের ৩০ শতাংশ সক্ষমতা নিয়ে বেঁচে ছিলেন আইয়ুব বাচ্চু’

হার্টের ৩০ শতাংশ সক্ষমতা নিয়েই জীবনের শেষ ক’টি বছর বেঁচে ছিলেন বলে জানিয়েছেন স্কয়ার হাসপাতালের চিকিৎসক। বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) সকালে কিংবদন্তি এই সংগীতশিল্পীকে মৃত অবস্থাতেই হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়েছিল বলে জানান হাসপাতাল পরিচালক (মেডিকেল সার্ভিসেস) ড. মির্জা নাজিম উদ্দিন।

তিনি বলেন, আইয়ুব বাচ্চুর হার্টের কার্যক্ষমতা ছিল ৩০ শতাংশ। নরমালি থাকে ৭০ শতাংশ। ওনার ছিল ৩০ শতাংশ। যার জন্য ওনি বার বার হাসপাতালে ভর্তি হতে হতো।

সকালে আইয়ুব বাচ্চুর হার্ট অ্যাটাক হলে তার গাড়ির চালক তাকে হাসপাতালে নিয়ে যান।

নাজিম উদ্দিন জানান, গাড়ি চালক যখন তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন উনার মুখ দিয়ে ফেনা বের হচ্ছিল। এর অর্থ হলো হার্টের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে মুখ দিয়ে পানির মত অর্থাৎ ফেনা বের হচ্ছিল। যেটাকে আমরা হার্টফেলও বলে থাকি।

হাসপাতালে আসতে আসতে রাস্তায়ই উনি মারা যান, এমন মন্তব্য করে এই চিকিৎসক বলেন, আমাদের বিশেষ টিম যথেষ্ট চেষ্টা করেছে। তবে তার আগেই ওনি আমাদের ছেড়ে চলে গেছেন। সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে তার মৃত্যু ঘোষণা করি।

ড. মির্জা নাজিম উদ্দিন আরও বলেন, তিনি বহুদিন হৃদরোগে ভুগছিলেন। দুই সপ্তাহ আগেও তিনি চেকআপ করিয়ে গেছেন। এর আগে ২০০৯ সালে তার হার্টে রিং পরানো হয়।

এর আগেও ২০১২ সালে ফুসফুসে পানি জমার কারণে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে হয়েছিল আইয়ুব বাচ্চুকে।


গীতিকার ও সুরকার আহমেদ ইমতিয়াজ
একুশে পদকপ্রাপ্ত গীতিকার, সুরকার ও সঙ্গীত পরিচালক আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল
বিস্তারিত
মোস্তফা কামাল রাজের নতুন ধারাবাহিকে
চলচ্চিত্র ও নাটক নির্মাতা মুহাম্মদ মোস্তফা কামাল রাজ নতুন বছরে
বিস্তারিত
আহত হয়ে হাসপাতালে হিরো আলম
শুটিং করার সময় হাতে রড ঢুকে আহত হয়েছেন এই সময়ের
বিস্তারিত
সংরক্ষিত নারী আসনে একঝাঁক তারকা
সংরক্ষিত নারী আসনে মনোনয়নপত্র তুলেছেন একঝাঁক শোবিজ তারকা। গত ৩০
বিস্তারিত
ফের বিয়ে ভাঙল শ্রাবন্তীর!
কলকাতার আলিপুর আদালতে মঙ্গলবার ওঠে শ্রাবন্তীর বিবাহ বিচ্ছেদ মামলা। আদালতের
বিস্তারিত
পাঁচ বছর কঠিন লড়াই, অতঃপর
পাঁচ বছর ধরে কঠিন লড়াইয়ের পর অভিনেতা ইমরান হাশমির পুত্র
বিস্তারিত