কাঠঠোকরা

আমার দেহে ঠুকরে ঠুকরে অনবরত
গর্ত করে কাঠঠোকরা 
বাসা বানায়
ব্যথায় নীল হই আমি।
তুমি খোঁজ সুখের বাস
জমা রাখো সোনালি ডিম।

তারপর ডিমগুলি পাখি হয়
এবং উড়ে যায়

আমি অসংখ্য ভালোবাসার গর্ত দেহে দাঁড়িয়ে থাকি
অতঃপর শূন্য গর্তে সাপেরা এসে বাসা বাঁধে।


ভাতঘুম
সুমন রহমান লাজুক ভঙিতে হাসে। তার মাথাটা নুয়ে আসে বুকের
বিস্তারিত
কাঠমান্ডুর দরবারে
নেপালের কাঠমান্ডুতে অবস্থিত হনুমান ধোকা দরবার ১৯৭৯ সালে ইউনেস্কোর বিশ্ব
বিস্তারিত
কবিতা
কাজী জহিরুল ইসলাম গৃহগল্প দাঁড়াবার জন্য কিছুটা সময় নেয় এরপর টুপ
বিস্তারিত
গণসমুদ্রচোখ আমাকে পাহারা দেয়
দাগহীন আত্মসমর্পণ, গোটা থানকুনি বাঁক তা দিচ্ছে। ধুলোর গায়ে-বেদনায়, প্রয়াণে;
বিস্তারিত
পথিক
তোমার বাস কোথায় গো পথিক, দেশে না বিদেশে আমি তোমায়
বিস্তারিত
নদী এবং নদীরা
হ্যাঁ, মেয়েটির নাম ছিলÑ নদী! পারভীন জাহান নদী। হয়তো আরও
বিস্তারিত