সৌদি-যুক্তরাষ্ট্রের কাছে খাশোগি হত্যার রেকর্ডিং

সাংবাদিক জামাল খাশোগি হত্যার রেকর্ডিং সৌদি আরব, যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, ফ্রান্স এবং ব্রিটেনের কাছে পাঠিয়েছে তুরস্ক। শনিবার (১০ নভেম্বর) এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোগান। 

এদিকে হত্যা করার মুহূর্তে অডিও রেকর্ডিংয়ের তথ্য ফাঁস করেছেন দেশটির একজন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক। তিনি বলেন, ঘাতকদের হাতে নিহত হওয়ার আগ মুহূর্তে বেঁচে থাকার তীব্র আকুতি জানিয়েছিলেন খাশোগি। খবর আলজাজিরা ও পার্স ট্যুডে।

গত ২ অক্টোবর তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশের পর নিখোঁজ হন খাশোগি। কনস্যুলেটের ভেতরেই তাকে হত্যা করা হয়। ওই হত্যাকাণ্ডের একটি অডিও রেকর্ডিং নিজেদের কাছে আছে বলে দাবি করেছিল তুরস্ক। কিন্তু আনুষ্ঠানিকভাবে ওই রেকডিং প্রকাশ করা হয়নি। তাই আদৌ এর অস্তিত্ব আছে কি না তা নিয়ে সংশয় দেখা দেয়।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সমাপ্তির শতবর্ষ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ফ্রান্সের উদ্দেশে দেশত্যাগের আগে এরদোগান বলেন, ২ অক্টোবর যে ১৫ জন ইস্তাম্বুলে এসেছিল খাশোগির হত্যাকারী ওই দলের মধ্যেই আছে। আর সেটা সৌদি জানে। আমরা খাশোগি হত্যার টেপ দিয়েছি। তারা ওই অডিও টেপে থাকা সব কথাবার্তা শুনেছেন। এদিকে হত্যা করার মুহূর্তে অডিও রেকর্ডিংয়ের তথ্য ফাঁস করা তুর্কি সাংবাদিক বলেছেন, ঘাতকদের হাতে নিহত হওয়ার আগ মুহূর্তে বেঁচে থাকার তীব্র আকুতি জানিয়েছিলেন খাশোগি।

তুর্কি পত্রিকা ডেইলি সাবাহর ক্রাইম বিভাগের প্রধান নাজিফ কারামান জানান, ঘাতকরা খাশোগিকে হত্যা করার জন্য তার মাথার ওপর একটি ভারী ব্যাগ রেখেছিল। অডিওতে খাশোগিকে বলতে শোনা গেছে, আমার দম বন্ধ হয়ে আসছে। আমার মাথার ওপর থেকে ব্যাগটি সরাও। আমি ভীষণ ভয় পাচ্ছি। এ বিষয়ে তুর্কি সরকার জানান, কারামান যে অডিওর তথ্য ফাঁস করেছে তা দিয়ে প্রমাণ করা যাবে- খাশোগিকে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী হত্যা করা হয়েছে।

শ্বাসরুদ্ধ হয়ে খাশোগির মৃত্যু হতে সাত মিনিট সময় লাগে। তুর্কি সরকারের ঘনিষ্ঠ ব্যক্তি হিসেবেও পরিচিত এই সাংবাদিক আরো জানান, সৌদি থেকে আসা ঘাতক বাহিনী মৃত্যুর পর ১৫ মিনিটের মধ্যে তার দেহ টুকরো টুকরো করে ফেলে। এরপর সেখান থেকে মরদেহ সরিয়ে ফেলা হয়।

উল্লেখ্য, শনিবার খাশোগির মরদেহ উদ্ধারে তল্লাশি অভিযান শেষ করেছে তুর্কি পুলিশ। তবে ৫৯ বছর বয়সী এই সাংবাদিকের হত্যাকাণ্ডের ঘটনা এখনো তদন্তাধীন। ইস্তাম্বুলে গত শুক্রবার সৌদির কনসাল জেনারেলের বাসভবনে এসিডের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে বলে জানা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে ওই বাসভবনের আশপাশেই খাশোগির মরদেহ কোনো রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করে সরিয়ে ফেলা হয়েছে। খাশোগি হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি প্রথমে সৌদি অস্বীকার করে। পরে দেশটির তরফ থেকে দাবি করা হয় যে, কনস্যুলেটের ভেতরে সংঘর্ষে জড়িয়ে নিহত হন খাশোগি। কিন্তু তার মরদেহ কোথায় আছে তা এখনো জানায়নি সৌদি।


হাইতিতে শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের আহ্বান জাতিসংঘ
জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বৃহস্পতিবার শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদের আহ্বান জানিয়েছে। দেশটিতে সহিংস
বিস্তারিত
সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে ভারতের সাথে আছেন
কাশ্মীরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় ভারতীয় সেনাদের হত্যার জের ধরে ভারত-পাকিস্তানের
বিস্তারিত
দিল্লি গেলেন সৌদি যুবরাজ
সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান একদিনের সফরে মঙ্গলবার রাতে ভারতের
বিস্তারিত
ঘনীভূত হচ্ছে সাইক্লোন ওমা, অস্ট্রেলীয়
সাইক্লোন ওমা ঘনীভূত হয়ে তিন মাত্রার ঝড়ে পরিণত হয়েছে। এটি
বিস্তারিত
কাশ্মীরে ফের জঙ্গি হামলায় নিহত
ভারতনিয়ন্ত্রীত কাশ্মীরের পুলওয়ামায় আত্মঘাতী জঙ্গি হামলায় আধাসামরিক বাহিনীর ৪৪ জওয়ান
বিস্তারিত
অস্থিরতার কারণে হাইতি ছাড়লো কানাডার
হাইতিতে সরকার বিরোধী বিক্ষোভের কারণে একটি অস্থির অবস্থা বিরাজ করায়
বিস্তারিত