সম্মোহন

তুমি স্থির হয়ে দাঁড়িয়ে আছো
তবুও তোমার ছায়া থরথর করে কাঁপছে।
এ দৃশ্য দেখতে দেখতে আমার নিজের ছায়া বিলীন...
সেই থেকে আমি শত আলোর মাঝেও ছায়াহীন মানব।

পৃথিবীর বাতাসে ভূমিষ্ঠ শিশুর প্রথম নিঃশ্বাসের আনন্দের মতোÑ
একদিন সূর্য উঠলÑ প্রভাতের সূর্য।
আমি জাতিস্মর শিশু হয়ে সূর্যের ছায়া অনুসন্ধান করেছিÑ
না, কোথাও সূর্যের ছায়ার সন্ধান মেলেনি।
তাই আমার ছায়াহীন দুঃখ, এই ভেবে লাঘব করিÑ
সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের মেঘ একই রঙে রঙিন
যেন মায়ের কপালের সিঁদুরÑ আনন্দময়।

জীবনের কিছুকথা যখন পবিত্র হয়ে যায়
সেইসব কথার গন্ধ শুঁকে আমরা কি বলতে পারিÑ
মাতৃগর্ভের স্মৃতি কেমন ছিল?


আত্মজীবনী লিখলে ঘরে ও বাইরে
ঢাকায় বাতিঘর আয়োজন করে ‘আমার জীবন আমার রচনা’ শীর্ষক আলাপচারিতা।
বিস্তারিত
যে নদীর মন বোঝে
পদ্মা মেঘনার মতো দুই ভাগ হয়ে গেছে মানুষ চলে পাশাপাশি তবুও
বিস্তারিত
সেই তুমুল অঘ্রানলোকে
সবকিছু উগরে দিয়েছে ওরা  প্রীতি ও বিচ্ছেদ, সুর ও সুরভী, রতি
বিস্তারিত
চোরাচালানি
কুয়াশায় আচ্ছন্ন প্রতিদিনের সন্ধ্যা গভীর রাতে শিয়ালের কান্না শীতের আগমনী
বিস্তারিত
অভিশাপ
অভিশাপে কপালের আধখান শেষ। ভাগ্যরা আর পাশে নেই। উড়ে গেছে
বিস্তারিত
যে বৃক্ষে বাতাস জমেনি
আমাদের দুই জোড়া হাতে যে বৃক্ষটি রোপণ করেছি। সেটি যেদিন
বিস্তারিত