সেই তুমুল অঘ্রানলোকে

সবকিছু উগরে দিয়েছে ওরা 

প্রীতি ও বিচ্ছেদ, সুর ও সুরভী, রতি ও রসনা 
সবকিছু বেরিয়ে পড়েছে
ঠোঁট বেয়ে বুক ছেয়ে, ক্লেদে-মাংসে
পাঁকে পাঁকে গলগল...

ওরা এসব আগলে রেখেছিল এতদিন
ওরা এসব স্বপ্রেমে পুষেছিল এতদিন
তারপর তুমুল ঘেমেছিল পরিপাশ
তার-আগে ঘুমে ঘুমে কেটেছিল অধিবাস!

তারপর অঘ্রানের অশুষ্ক বাতাবনে 
ওরা একদিন জড়ো হলো চুপিচুপি
সেই অমাঘোর রাতের তলাটে জোনাকির বিনোদ ছিল না 
ছিল না শাসন ঝিঁঝিদেরÑ
অনন্ত আশ্রমে তারাদের নিঃশব্দ লীন হতে দেখে
শুরু হয় আর্তনাদ, সংকেত, ছুটোছুটি
তারপর মদির দাহনলোকে নেমে আসে দীর্ঘ বৃষ্টিপাত
ওরা শিথানে রেখেছিল নিজ নিজ দেহ
জলে-অনলে-বর্ষণে বহুদিন পর ওরা একদিন অকস্মাৎ জেগে ওঠে
তখন গ্রহণ কেটে গেছে
লাল নীল নগ্ন-পেখমে রেঙে ওঠে গোলাপ বাগান 
ঊষাকালে, জালিকের গামছাটি বেঁধে যে লোকটি প্রথম এসেছিল পারে 
কেবল সে দেখেছে, একদল জোয়ান বসে আছে পাথারের উষ্ণ-কিনারে !


নিস্তব্ধ অন্তরে
তুমি আছো নিস্তব্ধ অন্তরে আমার অন্তরের দেবালোকে। পাইনি বলে আজও
বিস্তারিত
মধ্য রাতের ইচ্ছে
বৈশাখের মধ্যরাতে আমি অপেক্ষা করছিলাম কোনো এক সম্পূর্ণ কবির জন্য দু’হাত
বিস্তারিত
চিঠি
ঢাকা শহর এক আশ্চার্য শহর বটে পাহাড় নেই, শাল মহুয়া
বিস্তারিত
বিমিশ্র প্রচ্ছদে সমুদ্র রূপ
পাহাড় মুখ অবলোকন আসা যাওয়ার স্বরচিত সমুদ্র পথে পারাপার যান
বিস্তারিত
সুতোয় বেঁধো না
তোমার হস্তের নাটাই সুতোয় বেঁধো না আমায়  প্রিয়তম আমাকে সুতোকাটা
বিস্তারিত
নমস্য দীর্ঘশ্বাস
নমস্য দীর্ঘশ্বাস, তোমাকে পুনরায় নমস্কার ঘোলা চাঁদ পা-ুরতায় তোমার এমন
বিস্তারিত