২০১৯ সালে মধ্যপ্রাচ্যে যা হতে পারে

বিশ্বের সবচেয়ে বেশি অপরিশোধিত তেল রপ্তানিকারক দেশ সৌদি আরবকে তার জাতীয় বাজেটে সমন্বয়ের জন্য তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৮০ ডলার করতে হবে

আমেরিকার ব্লুমবার্গ এজেন্সি ২০১৯ সালের মধ্যপ্রাচ্য সম্পর্কে বেশকিছু পর্যবেক্ষণ দিয়েছে এ অঞ্চলে আমেরিকার অনুসৃত রাজনীতি, জ্বালানি তেলের অস্থিতিশীলতা ও প্রক্সি যুদ্ধ নিয়ে। পর্যবেক্ষণ শেষে ২০১৮ সালে কাতারের মার্কেটকে সেরা সফল ও দুবাই মার্কেটকে সবচেয়ে বাজে হিসেবে ফলাফল উল্লেখ করেছে।

২০১৮ সালের অর্থনৈতিক অবস্থা
তেলের বাজার চরম অস্থিতিশীল থাকার কারণে তেল রপ্তানিকারক দেশের ওপর বেশ চাপ যাচ্ছে। আন্তর্জাতিকভাবে সৌদি আরবের ভাবমূর্তি বর্তমানে বেশ প্রশ্নের মুখে। অন্যদিক ওয়াশিংটনের সঙ্গে ইরানের টানাপড়েন তেলের বাজারসহ সবকিছুতেই রুশ প্রভাব বৃদ্ধির পথ খুলে দেবে।
চলতি বছরের প্রথম অংশে যেসব বিনিয়োগকারী সৌদিতে বিনিয়োগ করেছেন, তারা বড় ধরনের লোকসান গুনে বসে আছেন। কারণ ইস্তানবুুলে সৌদি কনস্যুলেটে সাংবাদিক ও লেখক জামাল খাসোগি নিহত হওয়ার পর সৌদি ভাবমূর্তি চরমভাবে ক্ষুণœ হয়েছে।
অন্যদিকে বাহরাইন বন্ডকেন্দ্রিক বড় ধরনের ক্ষতির মুখে পড়ার পরই তাদের সহযোগিতায় এগিয়ে এসেছে সহযোগীরা। আবার সৌদির আরামকো তাদের শেয়ার আপাতত মার্কেটে না ছাড়ার সিদ্ধান্ত বিনিয়োগকারীদের আস্থায় বড় ধরনের ফাটল ধরিয়েছে।
এ বছর তুরস্কের মুদ্রার অবস্থা বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বাজে অবস্থায় গিয়েছে। এখনও তুরস্ককে বিদেশি বিনিয়োগের ওপর অনেকাংশে নির্ভর করতে হচ্ছে।
এ অস্থিতিশীলতার মধ্যেই অ্যাটন ভ্যান্স কোর্পের ফিন্যান্সিয়াল প্রধান মার্শাল স্টোকার ২০১৯ সালের মার্কেট সম্পর্কে একটি ধারণা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন।
তবে আগামী বছর বিনিয়োগকারীরা খুবই সতর্ক থাকবেনÑ এটা নিশ্চিত।

তেলের মূল্য
বিশ্বের সবচেয়ে বেশি অপরিশোধিত তেল রপ্তানিকারক দেশ সৌদি আরবকে তার জাতীয় বাজেটে সমন্বয়ের জন্য তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৮০ ডলার করতে হবে। 
হংকংভিত্তিক ফিট র‌্যাংকিংয়ের নির্বাহী বলেন, ২০১৯ সালে তেল রপ্তানিকারক দেশগুলো যদি তেলের দাম কমিয়ে দেয়, তবে তাদের জাতীয় বাজেটে আমদানি-রপ্তানির সমন্বয়ে বড় ধরনের বিশৃঙ্খলা দেখা দেবে।
অন্যদিকে তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর প্রতিষ্ঠান ওপেক চলতি মাসের শুরুতে তেল উৎপাদন হ্রাসের ঘোষণা দেওয়ার পরও ৬০ ডলারের মধ্যেই তেলের মূল্য ঘুরছে, যা খুবই আশঙ্কাজনক।

সৌদির আঞ্চলিক রাজনীতি 
সৌদির ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সালমানের অর্থনৈতিক সংস্কারের ঘোষণা সত্ত্বেও বিনিয়োগকারীরা আশ্বস্ত হতে পারছেন না। বিশেষ করে সম্প্রতি সৌদি ভিন্ন মতাবলম্বী সাংবাদিক জামাল খাসোগি নিহত হওয়ার পর থেকেই তার সম্পর্কে বেশ নেতিবাচক অবস্থা তৈরি হয়েছে।

তুর্কি রাজনীতি
সুদের হার বৃদ্ধির ঘোরতর বিরোধিতাকারী তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান সম্প্রতি এ ব্যাপারে কিছুটা ছাড় দিলেও বিনিয়োগকারীরা আশ্বস্ত হতে পারছেন না। বিশেষ করে আগামী মার্চে স্থানীয় নির্বাচন হওয়ায় এ আশঙ্কা আরও বাড়ছে। এরই মধ্যে তুরস্কের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ওপর কিছু সংস্কার আনার জন্য চাপ তৈরি হয়েছে।
তুরস্কের অর্থনীতির গ্রোথ বেশ পিছিয়ে পড়েছে। আবার মুদ্রাস্ফীতিকেও তার নির্দিষ্ট জায়গায় আনা যায়নি, এখনও মুদ্রাস্ফীতি অনেক বেশি। এমন সময় তুরস্কের প্রতি যে-কোনো হুমকি তার মুদ্রাÑ যা সম্প্রতি কিছুটা সংকট কাটিয়ে উঠেছেÑ আবার বিপর্যয়ের মুখে পড়বে। 
লেবাননে এ বছরের মার্চে জাতীয় নির্বাচন হয়েছে। এখনও তারা তাদের নতুন সরকার গঠনের ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছতে পারেনি, যা তাদের যে-কোনো অর্থনৈতিক পরিকল্পনাকে বাধাগ্রস্ত করবে।
হংকংভিত্তিক ফিট র‌্যাংকিংয়ের নির্বাহী ক্রিস ক্রাউন্টিনস আশঙ্কা প্রকাশ করেন, সৌদি ও ইরানের মধ্যে প্রক্সি যুদ্ধ যদি আরও প্রকট আকার ধারণ করে বা ইসরাইল ও ইরান সমর্থিত হিজবুল্লাহর মাঝে কোনো সংঘর্ষ দেখা দেয়; তবে এ অঞ্চলের অর্থনৈতিক অবস্থা আরও নাজুক হয়ে পড়বে। এরই মধ্যে তো সিরিয়ায় ইরানের উপস্থিতি ও বাশার আল আসাদের পক্ষ নিয়ে হিজবুল্লাহর লড়াই করা নিয়ে ইরান ও ইসরাইলের মধ্যে উত্তেজনা বেশ বৃদ্ধি পেয়েছে। 
অন্যদিকে মধ্যপ্রাচ্যে রাশিয়ার উপস্থিতি এ অঞ্চলে ওয়াশিংটনের প্রভাবকে বেশ খাটো করে দিচ্ছে, যা এ অঞ্চলের রাজনীতিকে বেশ জটিল করে তুলবে। কারণ বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আন্তর্জাতিক রাজনীতির পরিবর্তে ব্যবসাবাণিজ্য নিয়েই বেশি ব্যস্ত, যা এ অঞ্চলে রাশিয়ার প্রভাব বাড়িয়ে তুলছে।

কাতারকে বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা
সৌদির নেতৃত্বে কাতারের ওপর অন্যায় অবরোধ আগামী বছর শেষ হবে বলে স্টোকার মনে করেন না। কাতার এরই মধ্যে বিকল্প বাজার তৈরি করেছে, যা তাকে তুরস্ক ও ইরানের কাছাকাছি নিয়ে এসেছে।

কাতার ও দুবাই মার্কেট
স্টোকার মনে করেন না, ২০১৮ সালে কাতার যেভাবে অর্থনৈতিক অগ্রগতি অর্জন করেছে, তা ২০১৯ সালে অব্যাহত রাখতে পারবে। কাতার ২০১৮ সালে বিশ্বের অন্যতম সফল মার্কেট হিসেবে বিবেচিত হয়েছে। তবে কাতার হয়তো ২০১৯ সালে শিল্পায়নে অধিক গুরুত্ব দেবে। যাতে সে তার অর্থনীতিতে বৈচিত্র্য আনতে পারে।
ব্লুমবার্গ জানায়, ২০১৮ সালে কাতার স্টক এক্সচেঞ্জ এ অঞ্চলে সেরা পারফরম্যান্স দেখিয়েছে। অন্যদিকে দুবাই স্টক এক্সচেঞ্জ সবচেয়ে বাজে অবস্থার মধ্য দিয়ে গিয়েছে।
ি সূত্র : নিউ-অ্যারাব


ইসলামে অকারণে গাছ কাটা নিষিদ্ধ
রাসুলে করিম (সা.) এরশাদ করেছেন, ‘যখন কোনো মুসলিম গাছ লাগায়
বিস্তারিত
দুনিয়া আসক্তির ভয়ানক পরিণতি
কিছু সময়ের জন্য আমরা এ দুনিয়ায় এসেছি। এ কথাটি সাধারণত
বিস্তারিত
ইমাম বোখারি (রহ.) ও এক হাজার
ইমাম বোখারি (রহ.) একবার সমুদ্রপথে সফরে বেরিয়ে পড়লেন। সফরের পাথেয়
বিস্তারিত
আলোর পরশ
কোরআনের বাণী  পাঠ করো তোমার প্রতিপালকের নামে, যিনি সৃষ্টি করেছেনÑ সৃষ্টি
বিস্তারিত
মসজিদে আকসার পুরাকীর্তি জাদুঘর
ইসলামি পুরাকীর্তি জাদুঘরটিকে পবিত্র মসজিদে আকসার অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রতœতাত্ত্বিক নিদর্শন,
বিস্তারিত
ভ্যালেন্টাইনসের বদলে বোন দিবস!
  ভ্যালেন্টাইনস ডের নাম বদলে ‘বোন দিবস’ করেছে পাকিস্তানের একটি বিশ্ববিদ্যালয়।
বিস্তারিত