কতিপয় বিচ্ছিন্ন মুহূর্তের টীকা

 

১.
নিরন্তর শুষ্কতার বশে আমি এক মরুকাঠ; অথচ ঠান্ডাজলপূর্ণ কিছু পানপাত্র 
এমন অনুকূল জলাধার ভেবে বারবার আমাকেই পান করতে চায় কেন!
২.
ব্যথা ও বাসনার বশে অবিরাম ডানা-ঝাপটাই
আমি এক হৃদয়ের রোগী...
৩.
মন যা ভাবে, মুখে তা বলতে পারি না লাজেÑ
যায় না সেসব লেখা । 
ফলে না তো সবকিছু কাজেÑ
যা কিছু চাইছে হৃদয় নিরবধি...      
৪.
জীবন সমরে ঝড় আসে অগ্নিজ্বালা
কেউ মেঘ রঙধনু কেউ হানে শিলা!
৫.
রমনাপার্কে বৃক্ষদের অবিশ্রাম পাতাঝরা দেখে ভাবনাকুল একদল পরী।
ইস্, ওরা যদি অমৌসুম হতো, অকাল ঋতুর দোষে ফুরাতো না শ্যামল সুরভী, অনাহূত শীত এসে নষ্ট হলো কুঞ্জ-কানন!
কেনো ভাঙে পুষ্পসাজ; কেন এই পাতার রোদন!
প্রেমিকের বাহুডোর থেকে ভাবে ওরা ব্যথাতুর মনে: উত্তরের ঊষর প্রান্ত হতে চুপেচুপে আমি আজ শোনেছি সেসব।


ভাতঘুম
সুমন রহমান লাজুক ভঙিতে হাসে। তার মাথাটা নুয়ে আসে বুকের
বিস্তারিত
কাঠমান্ডুর দরবারে
নেপালের কাঠমান্ডুতে অবস্থিত হনুমান ধোকা দরবার ১৯৭৯ সালে ইউনেস্কোর বিশ্ব
বিস্তারিত
কবিতা
কাজী জহিরুল ইসলাম গৃহগল্প দাঁড়াবার জন্য কিছুটা সময় নেয় এরপর টুপ
বিস্তারিত
গণসমুদ্রচোখ আমাকে পাহারা দেয়
দাগহীন আত্মসমর্পণ, গোটা থানকুনি বাঁক তা দিচ্ছে। ধুলোর গায়ে-বেদনায়, প্রয়াণে;
বিস্তারিত
পথিক
তোমার বাস কোথায় গো পথিক, দেশে না বিদেশে আমি তোমায়
বিস্তারিত
নদী এবং নদীরা
হ্যাঁ, মেয়েটির নাম ছিলÑ নদী! পারভীন জাহান নদী। হয়তো আরও
বিস্তারিত