বাই-ইসতিসনা ও তার ব্যাংকিং প্রয়োগ

বর্তমান সমাজে ইসতিসনার ব্যাপক প্রচলন রয়েছে। প্রয়োজনীয়তার বিবেচনায় এ জাতীয় লেনদেনকে ইসলামি শরিয়তে জায়েজ সাব্যস্ত করা হয়েছে। আল্লামা কাসানি (রহ.) বলেন, এটি বাইয়ে মাউদুম হওয়া সত্ত্বেও মানুষের সহজের জন্য এ বেচাকেনাটিকে সমর্থন দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ফুকাহায়ে কেরামের ঐকমত্য রয়েছে। ইমাম মুহাম্মাদ ইবনে হাসান (রহ.) বলেন, ইসতিসনা সব মুসলমানের ঐকমত্যে জায়েজ। (আল জামউস 
সগীর ১/৩২৫)। 

ব্যাংকের প্রধান কাজ হলো জনগণের বিক্ষিপ্ত অর্থগুলো সংগ্রহ করে তা প্রকৃত উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীদের মাঝে খাটানো। প্রচলিত সুদি ব্যাংকগুলোর তহবিল খাটানোর সর্বজনবিদিত এবং বহুল প্রচলিত পদ্ধতি হলো নগদ ঋণ (ঈধংয ঈৎবফরঃ) বা সিসি। 
উল্লেখ্য, সিসি বা ক্যাশ ক্রেডিট ব্যাংক ঋণের এমন একটি বহুল প্রচলিত পদ্ধতি যা ব্যবসায়ী-অব্যবসায়ী এবং শিক্ষিত-অশিক্ষিত নির্বিশেষে সবাই এ সিস্টেমের সঙ্গে পরিচিত। যেখানে ব্যাংক গ্রাহকের আবেদনক্রমে মঞ্জুরিকৃত ঋণের টাকা তাকে এ শর্তে প্রদান করে যে, উত্তোলনকৃত টাকার ওপর বার্ষিক হারে মূলধনের অতিরিক্ত আগে নির্ধারিত হারে ঋণদাতা ব্যাংককে প্রদান করতে হবে। এখানে কোনোরূপ পণ্যের ক্রয়-বিক্রয় ছাড়াই মূলধনের ওপর অর্জিত অতিরিক্ত অংশই ইসলামি শরিয়তের দৃষ্টিতে সুদ বলে বিবেচিত। ইসলামি ব্যাংক ব্যবসার উদ্দেশ্যে কাউকে নগদ টাকা ঋণ বা ধার দেয় না। তার পরিবর্তে ইসলামি ব্যাংক শরিয়তে অনুমোদিত বিনিয়োগে এবং অর্থায়ন পদ্ধতিতে ব্যবসা করে সম্পূর্ণ হালাল আয় উপার্জন করার চেষ্টা করে। ব্যাংক যেসব পদ্ধতিতে অর্থায়ন করে তার একটি প্রকার হলো বাই-ইসতিসনা বা (ঙৎফবৎ ঝধষব)।
বাই-ইসতিসনা (ঙৎফবৎ ঝধষব) : ইসতিসনা শব্দটি আরবি সনাআ শব্দ থেকে এসেছে। সনাআ শব্দের অর্থ শিল্প। ইসতিসনা হচ্ছে এমন একটি ক্রয়-বিক্রয় চুক্তি, যেখানে ক্রেতার দেওয়া নমুনা ও আদেশ মতে উভয়ের সম্মতিতে নির্ধারিত মূল্যে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বিক্রেতা কোনো পণ্য তৈরি করে ক্রেতার কাছে বিক্রি করে। (বাদায়িউস সানায়ে ৫/২, আশ শারহুল কাবির ৩/২১৫, হাশিয়াতুল বাজিরমি ২/৩৩৯, আল ইকনা ২/২৯১, কাশশাফুল কিনা ৩/২৯১ ও আহকামুল মাআমালাতিশ শরইয়্যাহ ৪৭৬-৪৭৮)।
বর্তমান সমাজে ইসতিসনার ব্যাপক প্রচলন রয়েছে। প্রয়োজনীয়তার বিবেচনায় এ জাতীয় লেনদেনকে ইসলামি শরিয়তে জায়েজ সাব্যস্ত করা হয়েছে। আল্লামা কাসানি (রহ.) বলেন, এটি বাইয়ে মাউদুম হওয়া সত্ত্বেও মানুষের সহজতার জন্য এ বেচাকেনাটিকে সমর্থন দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ফুকাহায়ে কেরামের ঐকমত্য রয়েছে। ইমাম মুহাম্মাদ ইবনে হাসান (রহ.) বলেন, ইসতিসনা সব মুসলমানের ঐকমত্যে জায়েজ। (আল জামউস সগীর ১/৩২৫)। 
এ বিষয়ে অনেকগুলো দলিল রয়েছে। 
প্রথম দলিল : হজরত জুলকারনাইন (রহ.) পৃথিবী ভ্রমণ করে ইয়াজুজ-মাজুজের অত্যাচারিত এলাকায় গিয়ে পৌঁছলে এলাকাবাসী তাকে বিনিময় দেওয়ার শর্তে একটি দেওয়াল নির্মাণ করার আবেদন করে। যাতে তারা ইয়াজুজ-মাজুজের নিপীড়ন থেকে রেহাই পায়। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা সে ঘটনার দিকে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘তারা বলল, হে জুলকারনাইন! নিশ্চয় ইয়াজুজ ও মাজুজ জমিনে অশান্তি সৃষ্টি করছে, তাই আমরা কি আপনাকে এ জন্য কিছু খরচ দেব যে, আপনি আমাদের ও তাদের মধ্যে একটা প্রাচীর নির্মাণ করে দেবেন?’ (সূরা কাহ্ফ : ৯৪)। জুলকারনাইনের সঙ্গে এলাকাবাসীর এ চুক্তিটি ছিল বাই-ইসতিসনার ভিত্তিতে। 
দ্বিতীয় দলিল : হাদিস শরিফে এসেছে, রাসুল (সা.) এক আনসারি মহিলার কাছে লোক পাঠিয়ে বলেন, তোমার কাঠমিস্ত্রি গোলামকে বল, আমাকে যেন একটি বসার মিম্বর বানিয়ে দেয়, আমি যখন মানুষের সঙ্গে কথা বলব, তখন সেখানে বসব। (আল জামউস সগির ২/৭৩৮, হাদিস নং ১৯৮৮, মুসলিম শরিফ ১/৩৮৬, হাদিস নং ৫৪৪)। হুজুর (সা.) এর এ চুক্তিটিও বাই-ইসতিসনার ভিত্তিতে ছিল। 
তৃতীয় দলিল : অন্য হাদিসে রয়েছে, হজরত ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুল (সা.) একটি স্বর্ণের আংটি বাই-ইসতিসনার ভিত্তিতে বানিয়েছিলেন। তিনি তা পরিধান করতেন। পরিধানকালে তার পাথরটি হাতের ভেতরের দিকে রাখলেন। তখন লোকেরাও (এরূপ) করল। এরপর তিনি মিম্বরের ওপর বসে তা খুলে ফেললেন এবং বললেন, আমি এ আংটি পরিধান করেছিলাম এবং তার পাথর হাতের ভেতরের দিকে রেখেছিলাম। অতঃপর তিনি তা ছুড়ে ফেলে দিলেন। আর বললেন, আল্লাহর কসম! আমি এ আংটি আর কোনোদিন পরিধান করব না! তখন লোকেরাও আপন আপন আংটিগুলো খুলে ফেলল। (বোখারি শরিফ, হাদিস নং ৬২৭৫)।
চতুর্থ দলিল : রাসুল (সা.) এর যুগ থেকেই বাই-ইসতিসনার ওপর আমল চলে আসছে। প্রতিটি যুগেই এর ওপর আমল হওয়াটাও একটি আমলি ইজমা। কারণ হাদিস শরিফে রয়েছে, রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, ‘আমার উম্মতের সবাই কখনোই গোমরাহির ওপর একমত হতে পারে না।’ (সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৩৯৫১)। আরেকটি হাদিসে বলা হয়েছে, হজরত আবদুল্লাহ ইবনে মাসউদ (রা.) বলেন, ‘মুসলমানরা যা ভালো মনে করে সেটা আল্লাহর কাছেও ভালো। আর মুসলমানরা যা খারাপ মনে করে তা আল্লাহর কাছেও খারাপ।’ (মুসনাদে আহমাদ, হাদিস নং ৩৬০০)।
ফুকাহায়ে কেরাম বাই-ইসতিসনার ধরন কী হবে তা নিয়ে ফিকহের কিতাবে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। ইমাম আবু হানিফা (রহ.) এর কাছে পণ্য তৈরি করার পর ক্রেতার ওই পণ্য নেওয়া-না নেওয়ার অধিকার থাকবে। যেহেতু তার মতে এটি কোনো বেচাকেনা চুক্তি নয়; বরং ওয়াদামাত্র। অনুরূপ বিক্রেতারও ক্রেতাকে দেওয়া-না দেওয়ার অধিকার থাকবে। তবে এ অধিকার হলো পণ্যটি তৈরি হওয়ার পর তাকে দেখার আগে। দেখিয়ে ফেললে তাকেই দিতে হবে। অন্যকে দেওয়ার অধিকার থাকবে না। (আল ইখতিয়ার ২/৩৮)। ইমাম আবু ইউসুফ (রহ.) এর মতে ফিরে যাওয়ার অধিকার কারোই থাকবে না। ইজাব কবুল তথা প্রস্তাব ও সম্মতি হয়ে যাওয়ার পর চুক্তি সম্পন্ন হয়ে যায়। ফিকাহবিদরা ইমাম আবু ইউসুফ (রহ.) এর অভিমতের ওপর ফতোয়া প্রদান করেছেন।
ইমাম শাফেয়ি, মালেক ও আহমাদ ইবনে হাম্বল (রহ.) এর কাছে ইসতিসনা হলো বাইয়ে সালামের পর্যায়ের। তারা ইসতিসনা শুদ্ধ হওয়ার জন্য বাই সালামের শর্তগুলোকে শর্ত করেছেন। বাইয়ে সালামের গুরুত্বপূর্ণ একটি শর্ত হলো বিনিময় মজলিসেই প্রদান করা। তবে ইমাম আবু হানিফা (রহ.) এর কাছে ইসতিসনা আর বাই সালাম অভিন্ন নয়। সুতরাং বাইয়ে সালামের শর্তগুলো এখানে প্রযোজ্য নয়। 
ইসতিসনা জায়েজ হওয়ার জন্য কিছু শর্ত রয়েছে :
১. এমন মেয়াদ নির্দিষ্ট করা যাবে না, যার আগে পণ্যটি নেওয়া সহিহ হবে না। 
২. পণ্য তৈরির যাবতীয় উপকরণ কারিগরের হতে হবে। অধিকাংশ উপকরণ অর্ডারদাতার হলে ইসলামি ফিকহের পরিভাষায় এটিকে ইজারা বা কর্মচারী নিয়োগের মতো হয়ে যাবে। তখন কাজের ওপর উজরত তথা চাকরির বিধান প্রয়োগ হবে। 
৩. পণ্যটি বহুল প্রচলিত হতে হবে। অপ্রচলিত অচেনা কোনো জিনিসের বাই-ইসতিসনা সহি নয়। পণ্যটি এমন হতে হবে, যাতে মানুষের বাই-ইসতিসনা করার প্রচলন রয়েছে। 
৪. পণ্যের পূর্ণ বিবরণ পরিপূর্ণ দিতে হবে। তার জাত, ধরন, পরিমাণ ও অন্য বিবরণগুলোকে বিস্তারিত বলতে হবে।
একটি প্রশ্ন-উত্তরের মাধ্যমে বাই-ইসতিসনার একটি দৃষ্টান্ত দেওয়া যাক। 
প্রশ্ন : বর্তমানে ফ্ল্যাট ক্রয়-বিক্রয়ের একটি পদ্ধতি প্রচলিত রয়েছে, প্রথমে পুরো প্রজেক্টের নকশা তৈরি করা হয় ও কোন ক্যাটাগরিতে তা তৈরি করা হবে তার বিস্তারিত বিবরণ সংবলিত তথ্যপূর্ণ ক্যাটালগ বা ফিরিস্তিও প্রকাশ করা হয় এবং নির্মাণকাজ শুরু করার আগেই সেসব ফ্ল্যাট ক্রয়-বিক্রয় করা হয়। এভাবে ফ্ল্যাট ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে কিনা?
উত্তর : কোনো বস্তুর ক্রয়-বিক্রয়ের ক্ষেত্রে শরিয়তের একটি মূলনীতি হলো বাস্তব ক্ষেত্রে বস্তুটির অস্তিত্ব থাকা। কেননা অস্তিত্বহীন বস্তুর ক্রয়-বিক্রয় জায়েজ নেই। তবে ফুকাহায়ে কেরাম একটি সুরতকে এর ব্যতিক্রম বলেছেন। যাকে ফিকাহের পরিভাষায় বলে (ইসতিসনা) বা অর্ডার বা নির্দেশ দিয়ে কারও মাধ্যমে কোনো বস্তু প্রস্তুত করানো। সমাজে যার প্রচলন রয়েছে, যেমন জুতা বানানো। আর প্রচলিত ফ্ল্যাটের ক্রয়-বিক্রয়ও এ ধরনের অন্তর্ভুক্ত। কারণ আগে থেকেই ফ্ল্যাটের নকশা, অবস্থান তৈরির কৌশল এবং কোন ক্যাটাগরিতে তৈরি করা হবে তার বিস্তারিত বিবরণ সংবলিত তথ্যপূর্ণ ক্যাটালগ বা ফিরিস্তি প্রকাশ করা হয়ে থাকে। আর এসব বিবরণ জানা এবং কোন স্থানে তার ফ্ল্যাটের অবস্থান তাও গ্রাহক সঠিকভাবে জানা ও দেখার সুযোগ সহজেই পেতে পারে এবং পরবর্তী সময়ে তা সঠিকভাবে বিবরণ অনুযায়ী কার্যকরও হয়ে থাকে। ফলে জানা না থাকার কারণে যেসব ঝগড়া-বিবাদ ও কলহের আশঙ্কা হয়ে থাকে তা আর হয় না। তাই প্রচলিত পদ্ধতিতে ক্রয়-বিক্রয় জায়েজ আছে। (বাদায়ে সানায়ে : ৬/৬৭৭, আল মাবসুত লিস সারাখসি : ১২/১৩৮, কিতাবুল ফাতাওয়া : ৫/২৭১)।
ব্যাংকিংয়ে ইসতিসনা : শুধু মেশিনপত্র বা হাতে তৈরি পণ্যের ক্ষেত্রে বাই ইসতিসনা চুক্তি করা যাবে। ধরা যাক, কোনো গার্মেন্ট মালিক এক হাজার শার্ট তৈরি করার একটি রপ্তানি অর্ডার পেলেন। কিন্তু তার হাতে সে অর্ডার সম্পন্ন করার মতো পর্যাপ্ত অর্থের সংস্থান নেই। এমতাবস্থায় ব্যাংকের দ্বারস্থ হলে ব্যাংক গ্রাহকের আবেদনক্রমে ইসতিসনা চুক্তি করে বর্ণিত পণ্যের মূল্য অগ্রিম পরিশোধ করে উৎপাদনে সহযোগিতা করে। পণ্য তৈরি করার পর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই উৎপাদক (গ্রাহক) ব্যাংকের (ক্রেতার) কাছে বুঝিয়ে দেয়। অতঃপর গ্রাহকের পক্ষে ব্যাংক পণ্যের রপ্তানি শিপমেন্ট করে। আমদানিকারক কর্তৃক ডকুমেন্টস গৃহীত হওয়ার পর অর্জিত রপ্তানিমূল্য গ্রাহকের হিসাব থেকে ব্যাংক তার পাওনা সমন্বয় করে নেয়। 

লেখক : সম্পাদক, মাসিক আরবি ম্যাগাজিন আলহেরা 


বিশ্বাস ও কর্মে কোরআনের মহিমা
দুনিয়ার শান্তি ও আখেরাতের মুক্তির পথ রচনা করতে কোরআনে হাফেজ
বিস্তারিত
অসিয়ত কার্যকরের পদ্ধতি
প্রশ্ন : কোনো এক ব্যক্তি ওসিয়ত করলÑ সে মৃত্যুবরণ
বিস্তারিত
আলোর পরশ
কোরআনের বাণী পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছেÑ ‘...আল্লাহ ব্যতীত অন্য কেউ এর
বিস্তারিত
ইখলাস ছাড়া আমল ফুটো থলিতে
নবী করিম (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তায়ালা সব আমলের মধ্যে শুধু
বিস্তারিত
ইসলামে শালীনতার গুরুত্ব
শালীনতা অর্থ মার্জিত, সুুন্দর ও শোভন হওয়া, ভদ্রতা, নম্রতা, লজ্জাশীলতা
বিস্তারিত
ইসলামি অর্থনীতির বৈশিষ্ট্য
ইসলামি অর্থনীতির এমন কিছু বিশেষত্ব ও বৈশিষ্ট্য রয়েছে; যেগুলো অপরাপর
বিস্তারিত