কারা অনুগ্রহপ্রাপ্ত ও কারা অভিশপ্ত?

আল্লাহর বান্দাদের মধ্যে একশ্রেণি আছে আল্লাহর অনুগ্রহপ্রাপ্ত এবং আরেক শ্রেণি আছে অভিশপ্ত বা তার লানতপ্রাপ্ত। এরা কারা এবং এদের বৈশিষ্ট্য নিয়েই এ লেখা। 

অনুগ্রহপ্রাপ্ত বান্দা 
আল্লাহকে বিশ্বাস করে এমন প্রত্যেক ব্যক্তিই আল্লাহর অনুগ্রহ পাওয়ার আশা করে; কিন্তু সবাই কি তার অনুগ্রহপ্রাপ্ত বান্দা হতে পারে? পারে না। এ সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, ‘তোমাদের মধ্যে যারা ঈমান আনে এবং সৎকর্ম করে আল্লাহ তাদের এ মর্মে ওয়াদা দিয়েছেন যে, তিনি নিশ্চিতভাবে তাদের পৃথিবীতে খেলাফত প্রদান করবেন, যেমন তিনি খেলাফত প্রদান করেছিলেন তাদের পূর্ববর্তীদের এবং তিনি তাদের দ্বীনকে অবশ্যই তাদের জন্য শক্তিশালী ও সুপ্রতিষ্ঠিত করবেন, যা তিনি তাদের জন্য পছন্দ করেছেন এবং তাদের ভয়-ভীতির পরিবর্তে তাদের অবশ্যই নিরাপত্তা দান করবেন; তারা আমারই ইবাদত করবে, আমার সঙ্গে কোনো কিছুকে শরিক করবে না আর এরপর যারা অকৃতজ্ঞ হবে তারাই ফাসিক।’ (সূরা নুর : ৫৫)। 
তাদের গুণাবলি হলোÑ
১। তাদের ঈমান মজবুত
২। তারা কোরআন-সুন্নাহভিত্তিক জীবন পরিচালনায় শপথবদ্ধ।
৩। তারা তাকওয়াবান।
৪। তাদের ঈমান শিরকমুক্ত, ইবাদত বিদায়াতমুক্ত।
৫। তারা আল্লাহর বিধান ও রাসুলের সুন্নাহ মোতাবেক জীবন পরিচালনাকে জীবনের উদ্দেশ্য মনে করেন।
যারা আল্লাহর অনুগ্রহপ্রাপ্ত বান্দা
১. নবী
২. সিদ্দিকিন
৩. শহীদ
৪. সালেহিন 
অনুগ্রহপ্রাপ্তদের গুণাবলি
নবী : যারা আল্লাহর কাছ থেকে ওহিপ্রাপ্ত হয়েছেন। আল্লাহর কাছ থেকে সত্যের বিধান লাভ করেছেন এবং তা প্রচার করেছেন।
সিদ্দিকিন : যারা ইসলাম, কোরআন, হাদিস ও সত্যকে উদার, উন্মুক্ত, অকুণ্ঠচিত্তে গ্রহণ করেছেন এবং আমল করেছেন।
শহীদ : যারা নিজেদের কথা দিয়ে, কাজ দিয়ে, ধনসম্পদ দিয়ে, এমনকি নিজের জীবনটা ইসলামের জন্য কোরআনের রাস্তায় বিলিয়ে দিয়ে দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন।
সালেহিন : ১. যারা জীবনের প্রত্যেকটি ক্ষেত্রে একনিষ্ঠভাবে আল্লাহর হুকুম পালন করেছেন, ২. যারা হকের পথে অটল থেকেছেন। ৩. কোনো অবস্থাতেই ইসলামি আদর্শ পরিত্যাগ করেনি। 
অভিশপ্ত বান্দা 
পক্ষান্তরে আল্লাহর অভিশপ্ত লোকেরা ঈমানের বিপরীত চরিত্র বহন করে। আল্লাহ তায়ালা মানুষকে অনেক ভালোবেসে তাঁর ইবাদত করার জন্য তৈরি করেছেন। তিনি চান না যে, তাঁর বান্দা অভিশপ্ত জীবনযাপন করুক। আবার মুসলমান যত বড় পাপীই হোক না কেন, তাকে অভিশাপ দেওয়া জায়েজ নেই। যারা অভিশপ্ত তারা আল্লাহদ্রোহিতার কাজ করেÑ তা থেকে তওবা না করে যদি মৃত্যুবরণ করে; তারাই হলো আল্লাহর অভিশপ্ত বান্দা।
কারা অভিশপ্ত বান্দা
১. কাফেররা
২. ইহুদিরা
৩. নাসারারা
৪. মোনাফেকরা
অভিশপ্তদের বৈশিষ্ট্যাবলি
১. যারা আল্লাহ তায়ালার আয়াতকে অস্বীকার করেছে।
২. যারা আল্লাহর নবীদের হত্যা করেছে।
৩. যারা প্রত্যেকটি ব্যাপারে আল্লাহর আইন, সীমালঙ্ঘন করেছে।
৪. যারা ঈমানদারদের কষ্ট দিয়েছে।
৫. যারা আল্লাহর আইন বাদ দিয়ে অন্য আইন দিয়ে জীবন পরিচালনা করেছে।


নারী শিক্ষায় ইসলামের নির্দেশনা
পবিত্র কোরআনে বারবার মানুষকে পড়াশোনা করতে, জ্ঞানার্জনে ব্রতী হয়ে আল্লাহর
বিস্তারিত
কোরআন-হাদিসে একতার গুরুত্ব
কোরআন এবং হােিদস সংঘবদ্ধতার গুরুত্ব অপরিসীম। মুসলিম জাতি এক প্রাণ
বিস্তারিত
সালাম সম্প্রীতির বিকাশ ঘটায়
দেখা-সাক্ষাতে আমরা একে অপরকে শুভেচ্ছা-অভিবাদন জানাই। এটি আমাদের সহজাত একটি
বিস্তারিত
নীলসাগর
ভ্রমণ একটি আনন্দময় ইবাদত। জ্ঞান-বিজ্ঞান ও অভিজ্ঞতার উৎস। ভ্রমণের অন্যতম
বিস্তারিত
লোক-দেখানো দান সদকা নয়
ইসলামি পরিভাষায় দান করাকেই সদকা বলা হয়। সদকা শব্দটি এসেছে
বিস্তারিত
সদকার ব্যাপকতা
পৃথিবীতে চলমান অধিকাংশ পেশাই এমন, যেগুলো আল্লাহপাকের ইবাদতের মাধ্যম হতে
বিস্তারিত