হুয়াওয়ে গুপ্তচবৃত্তি করে না

হুয়াওয়ে চীনের হয়ে গুপ্তচরবৃত্তি করছে না বলে জানিয়েছেন বৃহত্তম প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের প্রধান নির্বাহী রেন ঝেংফেই। এমনকি চীনা সরকার থেকে বিশেষ অনুরোধ এলেও হুয়াওয়ে কখনোই তাদের গ্রাহকদের তথ্য প্রদান করবে না। ১৫ জানুয়ারি চীনের শেনজেনে হুয়াওয়ের প্রধান কার্যালয়ে আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের সঙ্গে আলাপকালে এক বিবৃতিতে তিনি এসব কথা বলেন। কয়েক দিন ধরে নিরাপত্তার অভিযোগে হুয়াওয়ের ওপর যে রাজনৈতিক চাপ তৈরি হয়েছে তার পরিপ্রেক্ষিতে রেন এ বিবৃতি দিয়েছেন। হুয়াওয়ের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রে চীন সরকার গুপ্তচরবৃত্তি চালাচ্ছেÑ যুক্তরাষ্ট্রের এমন ধারণাকে পুরোপুরি নাকচ করে দিয়েছেন সাবেক পিপল’স লিবারেশন আর্মির এ সৈনিক রেন ঝেংফাই। তিনি স্পষ্ট করে জানিয়েছেন, যুক্তরাষ্ট্রের এমন সন্দেহ সত্য নয়। তিনি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে আরও জানান, বর্তমান সরকারের সঙ্গে তার ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক থাকলেও গ্রাহকদের ক্ষতি হয় এমন কোনো কাজ তিনি করবেন না এবং সেটা তার নিজের পার্টি বললেও না। রেন বলেন, ‘গ্রাহকদের সাইবার সিকিউরিটি এবং প্রাইভেসি সুরক্ষার ব্যাপারে সবসময় আমরা তাদের পাশে আছি। একটি দায়িত্বশীল প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমরা কখনোই কোনো জাতি অথবা ব্যক্তির ক্ষতি হয় এমন কিছু করব না।’ তিনি আরও বলেন, ‘চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের আনুষ্ঠানিক ব্যাখ্যায় জানিয়েছেÑ চীনের কোনো আইন কোনো প্রতিষ্ঠানকেই গুপ্তচরবৃত্তিতে বাধ্য করে না। এছাড়াও হুয়াওয়ে কিংবা আমার কাছে কখনও চীনা সরকারের পক্ষ থেকে এমন অনুরোধ আসেনি।’ রেন এবং সরকারের মধ্যকার রাজনৈতিক সম্পর্ক কখনও গ্রাহকদের তথ্যকে তৃতীয় পক্ষের হাতে তুলে দিতে পারে কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ব্যবসায়িক নীতিতে সবসময় গ্রাহকদের স্বার্থ প্রাধান্য পাবে এবং একটি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান হিসেবে আমাদের ব্যবসায়িক নীতি মেনে চলতে হয়। সুতরাং আমি সরকারের সঙ্গে আমার সম্পর্ককে কোনো বড় বাধা হিসেবে দেখছি না। সেক্ষেত্রে আমি মনে করি আমার অবস্থান খুবই স্পষ্ট এবং আমরা এ ধরনের যেকোনো অনুরোধকে না বলবো।’ রেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশংসা করে বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি এখনও বিশ্বাস করি ট্রাম্প একজন অসাধারণ প্রেসিডেন্ট। কর নীতির প্রশ্নে তার অবস্থান অনেক শক্তিশালী ছিল। আমি মনে করি, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিল্পোন্নয়নে তার এ অবস্থান অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।’ রেনকে তার মেয়ের কারাবাসের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, কানাডা এবং যুক্তরাষ্ট্রের আইনব্যবস্থার ওপর তার পূর্ণ আস্থা আছে এবং তিনি বিশ্বাস করেন খুব শিগগিরই তিনি সুবিচার পাবেন। রেন আরও জানান, ২০১৯ সালে আন্তর্জাতিক বাজারে হুয়াওয়েকে অনেক বেশি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হবে। অনেক বছর ধরেই আমরা গবেষণা এবং উন্নয়ন কার্যক্রমে প্রচুর বিনিয়োগ করেছি। সেক্ষেত্রে জেডটিইর ভাগ্যে যা ঘটেছে হুয়াওয়ের ক্ষেত্রে এমনটা ঘটবে না। সাইবার নিরাপত্তা খাতে পাঁচ বছরে ২০০ কোটি ডলার বিনিয়োগ করবে হুয়াওয়ে।


তরুণরা নতুন উদ্ভাবনে উদ্বুদ্ধ হবে
আইসিটি সল্যুশন সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে বাংলাদেশে তাদের গ্লোবাল ফ্ল্যাগশিপ সিএসআর
বিস্তারিত
নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জে বাংলাদেশ
প্রথমবারের মতো ১ হাজার ৩৯৫টি দলকে হারিয়ে নাসা স্পেস অ্যাপস
বিস্তারিত
অ্যাপলের আরেকটি এআই স্টার্টআপ পুলস্ট্রিং
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সানফ্রান্সিসকোভিত্তিক এআই (কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা) স্টার্টআপ পুলস্ট্রিং কিনে নিয়েছে
বিস্তারিত
দেশীয় উদ্যোক্তাদের সহায়তা করবে যুক্তরাষ্ট্রের
দেশীয় উদ্যোক্তাদের সহায়তা দিতে বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে কাজ
বিস্তারিত
১৯ মার্চ শুরু হচ্ছে বেসিস
টেকনোলজি ফর প্রসপারিটি সেøাগান নিয়ে ১৯ থেকে ২১ মার্চ তিন
বিস্তারিত
৩ জিবি র‌্যামের ওয়ালটনের নতুন
শক্তিশালী ব্যাটারির নতুন ফোরজি ফোন বাজারে ছেড়েছে ওয়ালটন। যার মডেল
বিস্তারিত