প্রত্নলিপি

তোমার ইশারালিপি পাঠ করি ধীরে

মনে হয়Ñ আমরা ছিলাম মুখোমুখি
গুহার ভেতরে, অগ্নিপরিখার ঘরে
একদিনÑ নিজেরই গলার স্বর শুনে
বুঝি যে চিৎকারে কেঁপে ওঠে শিলাখ-
দুলে ওঠে প্রতœত্রস্ত পূর্ণাঙ্গ শরীর  
এতদিন কী দেখেছিÑ একে একে বলি
গুমোট, দুঃসহ, ভারি সেই নীরবতা। 

অগ্নিপরিখার ঘরেÑ দাঁড়াই আবার
দেখি আজ হাওয়ায় দুলছে বনলতা
কাঁপছে উদ্ভিন্ন স্তন তীব্র শিহরণে
একদিনÑ নিজেরই গলার স্বর শুনে
বুঝি যে বিস্ফারে কেউ চলে যায় দূরে
কেউ থেকে যায়Ñ মুখোমুখি গুহাঘরে।


সাহিত্যে নোবেল জয়ী পিটার হান্ডকে
সাহিত্যে কে পাবেন নোবেল পুরস্কার? এমন প্রশ্নে অবধারিতভাবেই গত কয়েক
বিস্তারিত
বেলা অবেলার গল্প
  বের হয়েছে হামিদ রেজা খানের উপন্যাস ‘বেলা অবেলার গল্প’। এটি
বিস্তারিত
স্নানমুখী এক শাপলা
  আছাড়-পিছাড় খেতে-খেতে হাঁটু তুষার মাড়িয়ে যখন ছুটছি, কেবল ছুটছিÑ
বিস্তারিত
মমি ও লাল টমেটো
তুমি গবেষণগারে তৈরি নতুন একটি লাল টমেটো খেয়ে তিন মাস
বিস্তারিত
তোমারই আঁচল ছায়ায়
  এই যে শরৎ  এই যে নীল-সাদা আকাশ এই যে
বিস্তারিত
একদিন শিহরণ সংগীতে
তরুণীরা ভিজছে, তাদের মানুষ বলে মনেই হচ্ছে না। প্রেমিকের বুকের
বিস্তারিত