তাকওয়ার চার স্তর

প্রথম স্তর : যেসব বিষয়বস্তু বা যে সম্পদ হারাম হওয়ার বিষয়ে শরিয়তের নির্দেশ বিদ্যমান; তা না করা বা তেমন কিছু ব্যবহার না করা। অর্থাৎ ফতোয়ার বিধান মোতাবেক আমল করে যাওয়া, হালাল-হারাম মান্য করা। এটি হচ্ছে সর্বসাধারণের তাকওয়া।

দ্বিতীয় স্তর : সালেহিনের তাকওয়া অর্থাৎ যারা সংশয়যুক্ত বিষয়াদি থেকেও বেঁচে থাকে। হাদিসে এসেছেÑ মহানবী (সা.) এরশাদ করেন, ‘যা কিছুতে সংশয় বিদ্যমান তা পরিহার কর এবং যেসবে সংশয় নেই তা গ্রহণ কর।’
তৃতীয় স্তর : মুত্তাকিদের স্তর। রাসুল (সা.) এরশাদ করেন, ‘মুসলমানরা যতক্ষণ পর্যন্ত বিপজ্জনক বিষয়াদিতে জড়িয়ে পড়ার আশঙ্কায় আপাতত বিপজ্জনক নয় এমন সব বিষয় থেকেও বিরত না থাকবে; ততক্ষণ পর্যন্ত তারা মুত্তাকির স্তরে উপনীত হতে পারবে না।’ তার মানে, মুত্তাকিদের কাছে শুধু ওই সম্পদ ও বস্তু হালাল, ব্যবহারযোগ্য যাতে উপস্থিত সময়েও কোনোরকম সংশয় নেই এবং ভবিষ্যতেও তাতে আশঙ্কার কিছু নেই।
চতুর্থ স্তর : সর্বোচ্চ স্তরের তাকওয়া হচ্ছে সিদ্দিকিনের তাকওয়া। অর্থাৎ যা কিছু আহার করলে আল্লাহর ইবাদত-আনুগত্যে শক্তি-সামর্থ্য অর্জনের কিছু নেই; তা পরিত্যাগ করা। (দরসে কোরআন : পৃ.-৪৯৭)।


পরিবেশের হুমকি : উত্তরণের উপায়
আল্লাহ তায়ালা বৃষ্টি বর্ষণ করেন, যাতে ভূমি সজীব ও উর্বর
বিস্তারিত
অহংকারের পরিণাম ধ্বংস
হজরত লোকমান (আ.) তার ছেলেকে যে উপদেশ দিয়েছিলেন তার বর্ণনা দিয়ে
বিস্তারিত
লাইসেন্স করা পিস্তল ব্যবহার
প্রশ্ন : আমার মামা একজন বড় ব্যবসায়ী। তার ব্যবসা দেশের
বিস্তারিত
ন তু ন প্র
বই : মুসলিম মহীয়সী মূল : মাওলানা ইসহাক মুলতানি অনুবাদ : মাওলানা
বিস্তারিত
‘হালাল সনদ প্রদানের জন্য ইসলামিক
২০০৭ সাল থেকে ইসলামিক ফাউন্ডেশন বাংলাদেশে উৎপাদিত খাদ্যসামগ্রী, ভোগ্যপণ্য, ফার্মাসিউটিক্যালস
বিস্তারিত
চরম নির্যাতিত চীনের উইঘুর মুসলমান
চীনের মুসলমানদের ওপর নতুন করে নিপীড়নের খ—গ নেমে এসেছে। পশ্চিমাঞ্চলীয়
বিস্তারিত