৪০ হাজারে কিনলেন আমেরিকা প্রবাসী

করোনা দুর্গতদের জন্য মেডেল বিক্রি করল ছোট্ট হাবিব

বয়স মাত্র ৬ বছর। দেশে করোনাভাইরাসের কারণে যে দেশে মহামারি চলছে সেটা বোঝার মতো বয়স তার হয়নি। তারপরেও টিভির সংবাদে খেটে খাওয়া কর্মহীন সাধারণ মানুষের কষ্ট দেখে নিজের মনেই কিছু একটা ভেবেছে। তার ছোট্ট জীবনের বড় অর্জন হলো একটি মেডেল। রংপুর বিভাগ সাংবাদিক সমিতির খেলাধূলা প্রতিযোগিতায় সে এই মেডেলটি জিতেছিল। এখন সে ওই মেডেল বিক্রি করে সেই টাকায় করোনা দুর্গতদের জন্য কিছু করতে চায়। পরে ছেলের অনুরোধে মা তার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে মেডেলটি বিক্রির ব্যাপারে একটি স্ট্যাটাস দেন।

স্ট্যাটাস দেওয়ার পর অভাবনীয় সাড়া মেলে। রাজধানীর গোপীবাগ এলাকার বাসিন্দা হালিমা-জামান দম্পতির ছেলে মো. হাবিবুর রহমানের এই ইচ্ছাপূরণ করতে এগিয়ে আসেন আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশি মো. সাইফুর রহমান চৌধুরী টিপু। তিনি ৪০ হাজার টাকায় কিনে নেন হাবিবের মেডেলটি। মেডেল বিক্রির পুরো অর্থ হাবিবের মা-বাবার মাধ্যমে সহায়তা করা হবে করোনাভাইরাসের এই দুঃসময়ে অসহায় হয়ে পড়া মানুষদের।

এ প্রসঙ্গে মো. হাবিবুর রহমানের মা-বাবা বলেন, 'যিনি ‌আমাদের এই ছোট্ট ছেলের ইচ্ছাপূরণ করেছেন ও আগামী ২০ বছর তার সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখবেন বলে জানান। আমরা কতটা খুশি হয়েছি তা আপনাদের বলে বোঝাতে পারব না। যা কিনা কোটি টাকা দিয়েও কেনা সম্ভব নয়। এই হৃদয়বান মহান মানুষটির প্রতি আমরা সারা জীবন কৃতজ্ঞ থাকব।'

হাবিবের ইচ্ছাপূরণ করা মো. সাইফুর রহমান চৌধুরী টিপু দীর্ঘদিন যাবৎ প্রবাস জীবন যাপন করে আসছেন। তার গ্রামের বাড়ি নোয়াখালী জেলায়। সোশ্যাল সাইটে ছোট্ট এই শিশুটির ইচ্ছার কথা জেনে তিনি আবেগাপ্লুত হয়ে পড়েন।

শুধু মেডেল কেনাই নয়, হাবিবের মা-বাবাকে ফোনে বলেন, 'আগামী ২০ বছর আমি আপনার ছেলের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখব'। এই মানবিক মানুষটির ইচ্ছাকে হাবিবের মা-বাবা সর্বোচ্চ সম্মান জানান।


আক্রান্তের হারে ভয়ঙ্কর বার্তা
করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্তে দেশে গত ১৮ দিনে নমুনা
বিস্তারিত
করোনার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি
করোনার উপসর্গ নিয়ে সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস‌্য
বিস্তারিত
সংসদে দর্শনার্থী ও সাংবাদিক প্রবেশে
করোনা মহামারীর সময়ে জাতীয় সংসদ সচিবালয়ে দর্শনার্থী ও সাংবাদিকদের প্রবেশে
বিস্তারিত
লিবিয়ায় মানবপাচারের চাঞ্চল্যকর তথ্য দিলেন
লিবিয়ার মিজদাহ শহরে গত ২৮ মে পাচারকালে নৃশংসভাবে গুলি করে
বিস্তারিত
পরিস্থিতি অবনতি হলে কঠিন সিদ্ধান্ত
স্বাস্থ্যবিধি না মানলে দেশ আরও গভীর সংকটে নিমজ্জিত হতে পারে
বিস্তারিত