logo
প্রকাশ: ০১:০৮:১৯ AM, সোমবার, আগস্ট ২০, ২০১৮
ঈদবিষয়ক প্রশ্নোত্তর মুফতি তাওহীদুল ইসলাম

 

সহকারী মুফতি

জামিয়া রাহমানিয়া আরাবিয়া, মোহাম্মদপুর, ঢাকা

 

প্রশ্ন :  ঈদের নামাজের শরয়ি বিধান কী?

উত্তর : ঈদের নামাজ ওয়াজিব; প্রত্যেক সুস্থ মস্তিষ্ক, প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষকে তা আদায় করতে হবে। রাসুলুল্লাহ (সা.) নিয়মিত ঈদের নামাজ আদায় করেছেন এবং সবাইকে ঈদের জামাতে শামিল হওয়ার জন্য আদেশও করেছেন। (সূত্র : বোখারি : ৯৭১)।

 

প্রশ্ন : ঈদের নামাজ আদায়ের ক্ষেত্রে বিশেষ কোনো ঐতিহাসিক ঈদগাহে নামাজ আদায়ে ফজিলত আছে কি না?

উত্তর : জামাত যত বড় হবে তার ফজিলত তত বেশি। তবে ঐতিহাসিক কোনো ঈদগাহে নামাজ আদায়ে অতিরিক্ত ফজিলত নেই। বর্ণিত আছেÑ একা নামাজ পড়ার চেয়ে দুজনের জামাত উত্তম, তিনজনের জামাত দুইজন থেকে উত্তম। এভাবে যত বাড়বে ততই আল্লাহর কাছে তা বেশি প্রিয় হবে।

 

প্রশ্ন : ‘ঈদ সেলামি’ বিষয়ে ইসলামের বিধান কী?

উত্তর : ঈদ উপলক্ষে যে-কাউকে খুশি মনে ‘ঈদ সেলামি’ দেওয়া জায়েজ আছে। এতে ইসলামের কোনো বাধা নেই। অনেক সহিহ হাদিসে আছে যে, কারও সম্পদ অন্যের জন্য তার মনোতুষ্টি ছাড়া হালাল হবে না। ঈদ সালামি যেহেতু মনোতুষ্টিসহ হয়ে থাকে তাই জায়েজ আছে।

 

প্রশ্ন : ঈদের দিনে ‘ঈদ মোবারক’ বলে পারস্পরিক সম্ভাসনের যে রেওয়াজ প্রচলিত আছে, তা শরিয়ত অনুমোদিত কি না?

উত্তর : ‘ঈদ মোবারক’ যার অর্থ ‘তোমার ঈদ বরকতপূর্ণ হোক’ এটি একটি দোয়া বিশেষ। আর কোনো মুসলমানের জন্য এমন দোয়া করতে বাধা নেই। তাবারানি শরিফের এক রেওয়ায়েতে আছেÑ ‘কোনো মুসলমান ভাইয়ের অন্তরে আনন্দ দেওয়া সর্বোত্তম আমলের একটি।’ এছাড়াও বোখারি শরিফের একটি বর্ণনায় আছে, ‘দ্বীন হলো কল্যাণ কামনার নাম।’ আর এর মাধ্যমে মুসলমান ভাইয়ের কল্যাণ কামনাই করা হয়। 

 

 ঁ গ্রন্থনা : আমিন ইকবাল

সম্পাদক ও প্রকাশক : কাজী রফিকুল আলম । সম্পাদক ও প্রকাশক কর্তৃক আলোকিত মিডিয়া লিমিটেডের পক্ষে ১৫১/৭, গ্রীন রোড (৪র্থ-৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২০৫ থেকে প্রকাশিত এবং প্রাইম আর্ট প্রেস ৭০ নয়াপল্টন ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত। বার্তা, সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক বিভাগ : ১৫১/৭, গ্রীন রোড (৪র্থ-৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২০৫। ফোন : ৯১১০৫৭২, ৯১১০৭০১, ৯১১০৮৫৩, ৯১২৩৭০৩, মোবাইল : ০১৭৭৮৯৪৫৯৪৩, ফ্যাক্স : ৯১২১৭৩০, E-mail : [email protected], [email protected], [email protected]