ঢাকা ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

কালিয়াকৈরে সড়ক-ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত

আবারো গড়ে ওঠার শঙ্কা
কালিয়াকৈরে সড়ক-ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার কালিয়াকৈর বাজার এলাকায় গড়ে ওঠা অবৈধ স্থাপনা গতকাল সকালে আবারো অবৈধ দখলমুক্ত করেছে উপজেলা প্রশাসন। শুধু স্বাধীনতা দিবস ও বিজয় দিবসসহ বিভিন্ন সময় বার বার ওই বাজার এলাকায় সড়ক ও ফুটপাত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও আবার অবৈধ স্থাপনা বসান দখলদাররা। এবার দখলমুক্ত করায় প্রশংসায় ভাসছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। তবে আবারো সেখানে অবৈধ স্থাপনা গড়ে ওঠার শঙ্কা প্রকাশ করেছেন পথচারীরা। এলাকাবাসী, পথচারী ও উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, কালিয়াকৈর উপজেলায় একটি ঐতিহ্যবাহী সুনামধন্য বাজার হচ্ছে কালিয়াকৈর বাজার। কিন্তু এ বাজারের প্রবেশ মুখে সিন্ডিকেট চক্র দীর্ঘদিন ধরে পুরোনো ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক ও বাজার সড়ক অবৈধভাবে দখলের মাধ্যমে রমরমা ব্যবসা-বাণিজ্য করে আসছে। অভিযোগ রয়েছে, সড়ক ও জনপথ বিভাগ, পুলিশ এবং স্থানীয় প্রশাসনের অসাধু কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারী, ক্ষমতাসীন দলের প্রভাবশালী নেতাকর্মীদের ছত্রছায়ায় এসব অবৈধ স্থাপনা গড়ে ওঠে। আর এসব অবৈধ স্থাপনার কারণে এ মহাসড়কের ওই অংশে, বাজার সড়ক, ধামরাই-কালিয়াকৈর-মাওনা সড়কে নিয়মিত যান চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। শতশত অবৈধ স্থাপনার কারণে এখান দিয়ে চলাচলরত যাত্রী ও পথচারীরা পায়ে হেঁটেও চলাচলেও চরম দুর্ভোগে পড়েন। সবচেয়ে বেশি দুর্ভোগে পড়েন রোগী ও তার পরিবার, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীসহ বিভিন্ন পেশাজীবী মানুষ। অথচ স্বাধীনতা দিবস ও বিজয় দিবসসহ বিভিন্ন সময় বার বার ওই বাজার এলাকায় সড়ক ও ফুটপাত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও ২-৩ দিন পরই আবারো অবৈধ স্থাপনা বসান দখলদাররা। এদিকে মানুষের দুর্ভোগ লাঘব করতে মৌখিকভাবে নির্দেশনা দেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাউছার আহম্মেদ। তার নির্দেশনা অনুযায়ী গতকাল সকালে এসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিয়েছেন দখলদাররা। এর মাধ্যমে দখলমুক্ত হলো বহু কাঙ্ক্ষিত পুরোনো ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়ক, ধামরাই-কালিয়াকৈর-মাওনা সড়ক, কালিয়াকৈর বাজার সড়ক ও ফুটপাত। এদিকে প্রশাসনের এমন উদ্যোগে হতাশা প্রকাশ করেছেন দখলদারী ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, আয় রোজগারের পথ বন্ধ হলো এখন আমরা পরিবার-পরিজন নিয়ে কীভাবে চলব? তবে এখানে সরাসরি অনেক জমি আছে, যদি দোকান ঘরের ব্যবস্থা করে দিতেন তাহলে পরিবার-পরিজন নিয়ে খেয়ে-পড়ে বাঁচতে পারবেন বলেও ব্যবসায়ীরা জানান। অপরদিকে এসব অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিলেও সরানো হয়নি উপজেলা মডেল মসজিদের সামনে সিএনজি ও অটোরিকশার অবৈধ স্টেশন। ওই অবৈধ স্টেশনও উচ্ছেদের দাবি জানিয়েছেন চলাচলরত পথচারী ও বিভিন্ন যানবাহনের যাত্রীরা। তারা সড়ক ও ফুটপাত অবৈধ দখলমুক্ত হওয়ায় খুশি। বার বার অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হলেও গড়ে ওঠে অবৈধ স্থাপনা। তবে আবারো সেখানে আগের মতো অবৈধ স্থাপনা উঠবে না তো? এমন শঙ্কা প্রকাশ করেছেন পথচারীরা। এ ব্যাপারে কালিয়াকৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কাউছার আহম্মেদ জানান, মৌখিকভাবে নির্দেশনায় সেখানকার অবৈধ স্থাপনা সরিয়ে নিচ্ছেন দখলদাররা। তবে সিএনজি ও অটোরিকশার অবৈধ স্ট্রেশন অভিযান চালিয়ে উচ্ছেদ করা হবে।

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত