ঢাকা ২৪ জুলাই ২০২৪, ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ | বেটা ভার্সন

উখিয়ার রাজাপালং ইউপি উপনির্বাচন

সরকারি চাকরিতে বহাল থাকায় প্রভাষক হুমায়ুনের মনোনয়ন বাতিল

সরকারি চাকরিতে বহাল থাকায় প্রভাষক হুমায়ুনের মনোনয়ন বাতিল

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলার রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের শূন্য আসনের উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হুমায়ুন কবির চৌধুরীর মনোনয়ন বাতিল হয়েছে। স্থানীয় সরকার আইন ২০০৯-এর ধারা ২৬ এর উপধারা ২(ঙ)-এর বিধান যথাযথভাবে প্রতিপালিত না হওয়া রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক দেওয়া অধ্যাপক হুমায়ুনের মনোনয়ন বৈধতার সিদ্ধান্ত বাতিল করেন। গতকাল মঙ্গলবার সকালে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন কক্সবাজার জেলা নির্বাচন অফিসারের কার্যালয়ে আপিল নিষ্পত্তি করেন ইউনিয়ন পরিষদ শূন্য আসনের উপ-নির্বাচন ২০২৪-এর আপিল কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত প্রদান করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন আপিল কর্তৃপক্ষ ও কক্সবাজার জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ নাজিম উদ্দিন। সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ জুলাই স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী সাদমান জামী চৌধুরী স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন ২০০৯ এর ধারা ২৬ এর উপর ধারা ২ এর বিধান যথাযথ প্রতিপালিত হয়নি মর্মে আপিল করেন। এর আগে তফসিল অনুযায়ী গত শুক্রবার মনোনয়ন যাচাই-বাছাই এর শেষ দিন ছিল। ওই দিন মনোনয়নপত্র যাচাই বাছাই কালে রিটার্নিং অফিসার কর্তৃক হুমায়ুন কবির চৌধুরীর মনোনয়নের বৈধতা ঘোষণা দিলে তীব্র আপত্তি তুলেন প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীরা। তাদের অভিযোগ, সরকারি কলেজে চাকরিতে বহাল থেকে উপ-নির্বাচনে প্রার্থী প্রভাষক হুমায়ুন কবির চৌধুরী মনোনয়ন বৈধতার বিষয়টি ইউপি নির্বাচন আইন লঙ্ঘনের সামিল। গত ৫ জুলাই মনোনয়ন যাচাই বাছাইকালে উখিয়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার ভূমিকা নিয়ে হতাশ হয়েছেন প্রতিদ্বন্দ্বী ৩ প্রার্থী। নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ৫ জন প্রার্থীর মনোনয়ন ফরম যাচাই-বাছাই শেষে সকলকে বৈধ প্রার্থী হিসাবে তালিকা প্রকাশ করেন উখিয়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদ উপনির্বাচন-২০২৪ এর রিটার্নিং অফিসার মুহাম্মদ মিজানুর রহমান। তারা হলেন, স্থানীয় সংসদ সদস্য শাহিন আক্তার ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহাঙ্গির কবির চৌধুরীর বড় ভাই হুমায়ুন কবির চৌধুরী, রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের টানা চারবারের চেয়ারম্যান শাহ কামাল চৌধুরীর ছেলে সাদমান জামী চৌধুরী, উখিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও উখিয়া সরকারি মডেল প্রাথমিক বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ ফরিদুল আলম, উখিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মকবুল হোসাইন মিথুন ও ব্যবসায়ী আব্দুল মালেক চৌধুরী। এবারের নির্বাচনে দলীয় কোন প্রতীক না থাকায় সবাইকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। রিটার্নিং অফিসার ৫ জন প্রার্থীর মনোনয়ন বৈধতা দিলেও হুমায়ুন কবির চৌধুরীর মনোনয়ন বৈধতা নিয়ে অভিযোগ তুলে আপীল করেছেন চেয়ারম্যান প্রার্থী সাদমান জামী চৌধুরী। আইনবিদ এবং দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রে জানা গেছে, রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান পদের উপনির্বাচনে প্রার্থী হুমায়ুন কবির চৌধুরী কক্সবাজার জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য এবং সেই সাথে বঙ্গমাতা ফজিলুতুন্নিসা মুজিব সরকারি মহিলা কলেজের ইসলামি ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সরকারি কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারী আত্মীকরণ বিধিমালা, ২০১৮ এর বিধি ৫ ও ৬ এর বিধান অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক রাজস্ব খাতে নিয়োগপ্রাপ্ত প্রভাষক। চেয়ারম্যান পদে নির্বাচনে স্থানীয় সরকার ইউনিয়ন পরিষদ আইন, ২০০৯ এর ধারা ২৬-এর উপধারা ২ এর (ঙ) এবং (চ) ধারা অনুসারে প্রার্থী হিসেবে যোগ্যতা প্রমাণ করতে হলে হুমায়ুন কবির চৌধুরীকে জেলা পরিষদের সদস্য পদ হতে জেলা পরিষদ আইন, ২০০০-এর ৯ ধারা অনুসারে এবং কলেজের প্রভাষক পদ হতে সরকারি চাকুরি আইন, ২০১৮ এর ৫৩ ধারা অনুসারে ইস্তফা প্রদান করতে হতো। সরকারি চাকুরি আইন, ২০১৮ (৫৩) ধারা মতে হুমায়ুন কবির চৌধুরীকে ইস্তফা প্রদান করতে হলে তার ইস্তফার আবেদন নিয়োগদানকারী কর্তৃপক্ষ কর্তৃক চূড়ান্তভাবে নিষ্পত্তি হতে হবে। সরকারি কলেজ শিক্ষক ও কর্মচারী আত্মীকরণ বিধিমালা, ২০১৮ এর এর বিধ ৪(ক) অনুসারে কলেজ শিক্ষকের নিয়োগদানকারী কর্তৃপক্ষ রাষ্ট্রপতি। অতএব উনার ইস্তফার আবেদন রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নিষ্পত্তি হতে হবে। নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত হুমায়ুন কবির চৌধুরী কলেজের প্রভাষক পদে অটো বহাল থাকবে! যা উনাকে স্থানীয় সরকার আইন, ২০০৯ এর ২৬ (২) ধারা অনুসারে ইউপি চেয়ারম্যান পদে আইনে আরো উল্লেখ রয়েছে নির্বাচন অযোগ্য হিসেবে বিবেচিত করে। উখিয়া সদর রাজাপালং ইউনিয়ন পরিষদের উপ-নির্বাচনে ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়ন ফরম জমার শেষ তারিখ ছিল ৪ জুলাই। যাচাই-বাছাই ছিল ৫ জুলাই। রিটার্নিং কর্মকর্তার সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপিল ৬ থেকে ৮ জুলাই। আপিল নিষ্পত্তি ৯ জুলাই। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ১০ জুলাই। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ ১১ জুলাই। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) এর মাধ্যমে ১৫টি ভোটকেন্দ্রে ১০১ বুথে ২৭ জুলাই সকাল ৮ টা থেকে ৪ টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। রাজাপালং ইউনিয়নে মোট ভোটার রয়েছে ৪২৫৯৮ জন। তারমধ্যে ২২১৮৭ জন পুরুষ ও ২০৪১১ জন মহিলা ভোটার।

আরও পড়ুন -
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত